ঝিনাইদহে ১০০ প্রধান শিক্ষককে শোকজ

ঝিনাইদহে ১০০ প্রধান শিক্ষককে শোকজ

ঝিনাইদহে
ঝিনাইদহে

লোকালয় ডেস্কঃ ঝিনাইদহ জেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১০০ জন প্রধান শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। যথাসময়ে স্কুল লেভেল ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের (স্লিপ) টাকার হিসাব না দেওয়ায় জেলা প্রথমিক শিক্ষা অফিস থেকে তাদেরকে এই কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়।

জেলা প্রথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শেখ মো. আক্তারুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ছয় উপজেলার মধ্যে শুধু হরিণাকুন্ডু উপজেলা থেকে কারণ দর্শাও নোটিশের জবাব দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ৪০ হাজার টাকার বিল ভাউচারও দেওয়া হয়েছে। তবে সারা জেলায় স্লিপ গ্রান্ডের টাকা নয়-ছয় হয়েছে বলে ওই কর্মকর্তা আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঝিনাইদহ জেলায় স্লিপ প্রকল্পের আওতায় ৯০৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২১৪টি, কালীগঞ্জে ১৫১টি, কোটচাঁদপুরে ৭৪টি, মহেশপুরে ১৫৩টি, শৈলকুপায় ১৮০টি ও হরিণাকুন্ডু উপজেলায় ১৩৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ সব বিদ্যালয়ে গত জুনের আগে তিন কোটি ৬২ লাখ ৮০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। প্রতিটি বিদ্যালয়ে দেওয়া হয় ৪০ হাজার টাকা করে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বিদ্যালয়ভিত্তিক উন্নয়ন কর্মসূচি বা পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির যৌথ অ্যাকাউন্টে এই টাকা দেওয়া হলেও অধিকাংশ স্কুলে ভুয়া বিল ভাউচার জমা দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করার গুরুতর অভিযোগ ওঠে।

স্লিপ প্রকল্পের বরাদ্দ ও খরচ করানোসংক্রান্ত সরকারি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘অগ্রিম হিসেবে উত্তেলিত স্লিপ গ্রান্ডের অর্থ কোনোরূপ বিলম্ব না করে দ্রুততার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের মাধ্যমে বিদ্যালয়ের ব্যাংক হিসাব নম্বরে স্থানান্তর করতে হবে এবং ৩০ জুনের মধ্যে স্লিপ প্রকল্পের কাজ শেষ করতে হবে। কিন্তু ভুয়া ভাউচার ও প্রত্যায়নপত্র জমা দিয়ে টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। কোনো কাজ করা হয়নি এমন তথ্যও আছে।

মহেশপুরের ১৫ নম্বর কুশাডাঙ্গা সরকারি প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোর্শেদা খাতুনকে স্কুল পরিচালনা কমিটির এক সদস্য টাকার হিসাব চাইলে তিনি মানহানি মামালা করার হুমকি দেন। স্লিপ কমিটির সভাপতি মকছেদ আলী নিজেই এই টাকার খবর জানেন না বলে অভিযোগ করেন। তারা এ বিষয়ে একটি অভিযোগ মহেশপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে জমা দিয়েছেন।

তথ্য নিয়ে জানা গেছে, শোকজ নোটিশ পাওয়ার পর স্কুলের প্রধান শিক্ষকগণ যে জবাব দিচ্ছেন, তার সঙ্গে ভুয়া বিল ভাউচার তৈরি করে সংযুক্ত করছেন। ফলে ওই টাকায় তারা কী কাজ করেছেন, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে না। অনেকেই মনে করছেন, জবাবদিহিতা না থাকায় প্রতি বছরই স্লিপ প্রকল্পের লাখ লাখ টাকা গড়মিল করা হয়।

ঝিনাইদহ জেলা প্রথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শেখ মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘আগে তো জবাবদিহিতা ছিল না। এখন হিসাব নেওয়া হচ্ছে। এটা একটা নজির বলা যায়। কোনো প্রধান শিক্ষক বা কমিটি প্রধান স্লিপের টাকার দালিলিক প্রমাণ দিতে ব্যর্থ হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে ডিডি খুলনাকে চিঠি দেওয়া হবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

ওই শিক্ষা কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘এখনও কোনো স্কুলের প্রধান শিক্ষক বা স্কুল সভাপতির বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com