১৮ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জের কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস।

১৮ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জের কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস।

১৮ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জের কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস।

মোঃ সনজব আলী  ১৯৭১ সালে এই দিনে একসঙ্গে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাজাকারের সহযোগিতায় ১২৭ জনকে হত্যা করেছিল পাকহানাদর বাহিনী। আহত হয়েছিলেন শতাধিক ব্যক্তি।

এত লাশ একসঙ্গে সৎকারের কোনও ব্যবস্থা না থাকায় পাশের নদী দিয়ে লাশ ভাসিয়ে দিয়েছিলেন স্থানীয় নারীরা।

 

 

 

১৮ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জের কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালে এই দিনে একসঙ্গে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাজাকারের সহযোগিতায় ১২৭ জনকে হত্যা করেছিল পাকহানাদর বাহিনী। আহত হয়েছিলেন শতাধিক ব্যক্তি। এত লাশ একসঙ্গে সৎকারের কোনও ব্যবস্থা না থাকায় পাশের নদী দিয়ে লাশ ভাসিয়ে দিয়েছিলেন স্থানীয় নারীরা।

 

একাত্তরের ভয়াবহ স্মৃতির এ দিনটি প্রতি বছর নিরবেই কেটে যায়। প্রশাসন কিংবা মুক্তিযোদ্ধাদের কোনও সংগঠনের পক্ষ থেকে বিশেষ কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয় না। ওই ঘটনায় শহীদ কিংবা যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ঠাঁই হয়নি কোনও তালিকায়। নিহতের স্মরণে ৭ বছরেও বৈধ্যভূমির নির্মান কাজ সম্পন্ন হয়নি।
লাখাই উপজেলার লাখাই ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামটি জেলার শেষ প্রান্তে অবস্থিত। যোগাযোগের তেমন ভালো মাধ্যম নেই। বর্ষায় নৌকার আর শীতকালে পায়ে হেটে চলাচল করতে হয়। গ্রামে শতকরা ৯৫ ভাগ লোকই শিক্ষিত, হিন্দুধর্মাবলী । ১৯৭১ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় রাজাকার সাবেক আওয়ামীলীগের উপজেলা সভাপতি লিয়াকত আলী তার দোসরদের সহযোগিতায় পাকহানাদার বাহিনী ভোর বেলায় হঠাৎ আক্রমণ চালায়। এ সময় গ্রামের শত-শত নারী-পুরুষ স্থানীয় একটি পুকুরের পানিতে ডুব দিয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করেন। শত-শত নারী-পুরুষ আত্মরক্ষা করতে পারলেও দুই শতাধিক গ্রামবাসীকে এক লাইনে দাঁড় করিয়ে ব্রাশফায়ার করে ১২৭ জনকে হত্যা করা হয়।

প্রতি বছর ১৮ সেপ্টেম্বর আসলেই যুদ্ধাহত শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা স্বউদ্যোগে নির্মিত বৈদ্যভূমিতে ফুলদিয়ে দিনটি পালন করে থাকেন। তবে ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ বৈধ্যভূমির কাজও নিজেরাই সম্পন্ন করেছে । স্থানীয় একটি হাইস্কুলের পাশে নিজেদের অর্থায়নেই ১২৭ জনের মধ্যে পরিচয় পাওয়া ৪৫ জনের নামে একটি স্মৃতিস্বম্ভ নির্মাণ করেছেন। দিবসটিতে স্কুল শিক্ষার্থীদের সঙ্গে করে নিহতদের স্বজনরা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সেখানে। তবে স্বাধীনতার ৪৯ বছর পেরিয়ে গেলেও নিহত এই ৪৫ জনের নাম শহীদদের তালিকায় স্থান পায়নি।
যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও যুদ্ধাপরাধ মামলার বাদী হরি দাশ রায় বলেন, ‘রাজাকার আলবদরের সহযোগিতায় আমাদের গ্রামে ১২৭ জনকে হত্যা করেছে আর অনেক লোক আহত হয়েছে। সরকার সুযোগ তৈরি করেছে বলেই আমি মামলা করেছি। আশা করি বিচার হলেই ১২৭ জনের আত্মা শান্তি পাবে।’

একই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা অমলেন্দু লাল রায় বলেন, ‘বর্তমান সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার। কিন্তু বর্তমান সরকারের আমলেও এখানকার যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা কিংবা মুক্তিযোদ্ধার পরিবার কেউই মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নাম নেই। এতে আমরা হতাশ।’

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সন্ধা রানী চক্রবর্তী জানান, ‘একসঙ্গেএতো লাশ সৎকারের ব্যবস্থা না করতে পারায় গ্রামের মহিলারা পাশের নদী দিয়ে লাশের গায়ে কলসি বেঁধে লাশ ভাসিয়ে দিয়েছি। এ কথা মনে হলে আজও গা শিউরে উঠে। আমি মরার আগে এ হত্যাকান্ডের বিচার দেখতে চাই।’ গ্রামের স্কুলছাত্র রামন দাশ বলে, ‘আমার দাদাকে একাত্তরে রাজাকাররা হত্যা করেছিল আমি চাই এ হত্যাকান্ডের সঠিক বিচার। বিচার হলে আমরা শাস্তি পাবো।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com