সংবাদ শিরোনাম :
বালু উত্তোলনে অস্তিত্ব সংকটে নদী : খোয়াই, করাঙ্গী, সুতাং ও ইছামতী হুমকির মুখে পঞ্চগড়ে নৌকাডুবিতে মৃত্যু বেড়ে ৩১ : স্বজনদের আহাজারি শহরে অবৈধভাবে প্যাকেটজাত সরিষার তেল ও নকল বিড়ি মজুদের দায়ে ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ৪২টি চোরাই মোবাইলসহ চোরচক্রের মূলহোতা জগলু নবীগঞ্জে আটক মাধবপুরে বিএনপি নেতা কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ওসিসহ আহত ১০ : আটক ৩ আগামীকাল রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা দখলমুক্তের দাবিতে সাইকেল র‍্যালি ওয়াশিংটন ডিসি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের ইশাতের ছবি ব্যবহার করে প্রতারণা আটক করেছে ভোলা জেলা সিআইডি যৌতকের টাকা নিয়ে গৃহবধুকে নির্যাতন: নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন গৃহবধু গেল ৫ দশকে হবিগঞ্জ থেকে বিলীন অর্ধেকের বেশি নদী : বাকিগুলোও সংকটাপন্ন
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট

হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে বিশুদ্ধ খাবার পানির তব্র সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে প্রতিনিয়ত জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা রোগীসহ স্বজনদের বাইরে থেকে পানি কিনে এনে ব্যবহার করতে হচ্ছে। রোগীসহ স্বজনদের অভিযোগ, হাসপাতাল এলাকায় ৩ থেকে ৪টি টিউবওয়েল থাকলেও সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সবক’টি টিউবওয়েল নষ্ট হয়ে গেছে। যার ফলে বিশুদ্ধ পানির এমন সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়াও একটি টিউবওয়েল ভেঙে মাটিতে পড়ে রয়েছে।

জানা যায়, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ শতাধিক লোক বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিতে আসেন। এদের মধ্যে নারী ও শিশুদের সংখ্যাই বেশি। সেবা নিতে আসা রোগীদের মধ্যে বেশির ভাগই নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত। কোন কোন রোগী প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও অধিকাংশ রোগীকেই ভর্তি থাকতে হয় চিকিৎসার জন্য। এমতাবস্থায় ভর্তি থাকা রোগীরাই বেশি করে বিশুদ্ধ পানির সংকটে পড়ছেন। রোগীরা বলছেন, দিনের পর দিন টিউবওয়েলগুলো নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে কিন্তু এসব যেন দেখার কেউ নেই।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা মনির মিয়া জানান, তিনি তার বাচ্চাকে নিয়ে ৩ দিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। কিন্তু হাসপাতালের ভেতরে কোন বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা না থাকায় প্রতিদিন ৫ থেকে ৬ লিটার পানি কিনে এনে ব্যবহার করতে হচ্ছে তাদের। আর এতে খরচও বেড়ে যাচ্ছে।

হাসিনা খাতুন নামে এক মহিলা জানান, প্রতি লিটার পানি কিনে আনতে হলে ২০ থেকে ২৫ টাকা খরচ হয়। এখন একজন রোগীর যদি প্রতিদিন ৫ লিটার পানি প্রয়োজন হয় তা হলে ১ থেকে দেড়শ পর্যন্ত টাকা খরচ হয়ে যায়। তিনি বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ এ টাকা বাঁচলে ওষুধ কিনা যেত।’

রফিক মিয়া নামের রোগীর এক স্বজন বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণেই বিশুদ্ধ পানি সংকট দেখা দেয়। সবক’টি টিউবওয়েল নষ্ট হয়ে গেলেও তারা তাতে কোন কার্যকরি পদক্ষেপ নিচ্ছে না। যার ফলে শত শত রোগীকে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে হাসপাতাল এলাকা গিয়ে দেখা যায়, রোগী ও তাদের স্বজনরা হাসপাতালের বাইরে থাকা দোকানগুলো থেকে বোতলজাত বিশুদ্ধ পানি কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ হাসপাতালের মসজিদের ভেতর থেকে ওযুখানার পানি বোতল ভর্তি করে নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আমিনুল ইসলাম সরকার জানান, কয়েকটি টিউবওয়েল নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে বিশুদ্ধ পানি সংকট দেখা দিয়েছে। তবে ইতোমধ্যে এ সংকট মোকাবেলায় গণপূর্ত বিভাগের পক্ষ থেকে নতুন করে একটি প্ল্যান নেওয়া হয়েছে। এটি এ বছরের মধ্যেই সম্পূর্ণ হয়ে গেলে বিশুদ্ধ পানির সংকট কেটে যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com