হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে লকডাইন বন্দিতে বিপাকে খেটে খাওয়া মানুষ

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে লকডাইন বন্দিতে বিপাকে খেটে খাওয়া মানুষ

lokaloy24.com

ইকবাল হোসেন তালুকদার,নবীগঞ্জ।।প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে প্রতিদিনই বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা, থেমে নেই মৃত্যুর মিছিলও। তবে কোভিড-১৯ নামের এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে ফিরে আসা মানুষের সংখ্যাও কম নয়। তবে বিশ্বের ২০০ টির দেশে পৌঁছে যাওয়া এই ভাইরাসের প্রতিষেধক না থাকায় প্রতিরোধের উপর জোর দিতে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেই নির্দেশনা মোতাবেক সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ‘লকডাইন’ করে মানুষ ঘরে রেখেছে।
বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিক ভাবে লকডাউন করা না হলেও গত ২৬ মার্চ থেকে কার্যত লকডাউন হয়ে আছে পুরো দেশ। এই অবস্থা থাকবে আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত। এ সময়ের মধ্যে ফার্মেসি আর নিত্য পণ্যর দোকান চাড়া সব কিছু বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মানুষকে ঘরে রাখতে চলছে নানা কার্যক্রম।প্রশাসনের নির্দেশে কোয়ারান্টাইন তাকতে তাকতে বিপাকে পড়েছেন হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার খেটে খাওয়া মানুষ।
সব কিছু বন্ধ হয়ে যাওয়া অন্যদিকে খাবারে চিন্তা সব মিলিয়ে ভালো নেই উপজেলার শ্রমজীবী মানুষেরা করোনাভাইরাসের সকল সতর্কতা জেনেও যারা পেটের দায়ে ঘর থেকে বের হচ্ছেন তারাও কাজ পাচ্ছেন না। আর যারা রিকশা কিংবা অটোরিকশা চালিয়ে সংসার চালান তারাও পাচ্ছেন না যাত্রী। এতে ঘর থেকে বের হলেও রোজগার হচ্ছে না প্রয়োজনীয় অর্থ। এ নিয়ে বিপাকে আছেন বেশিরভাগ মানুষ।
নবীগঞ্জ মধ্যবাজার চা বিক্রেতা রনজিত বলেন,প্রশাসনের নির্দেশে দোকান বন্ধ,দোকান ওই ছিল আমার সংসারের রোজগার আর মাধ্যম কিন্তু দোকান বন্ধ রাখায় কষ্টে যাচ্ছে দিনকাল।
নবীগঞ্জ মধ্যবাজার পান বিক্রেতা রাজু বলেন, প্রতিদিন এখান থেকে পান বিক্রি করে যা আয় হতো তা দিয়ে সংসার চলতো। কিন্তু বর্তমানে মানুষের সমাগম বন্ধ করার জন্য প্রশাসনের নির্দেশে দোকান বন্ধ। এখন আমরা গরীব মানুষ কোথায় যাব। এভাবে কিছুদিন গেলে আমাদের না খেয়ে থাকতে হবে।
অটোরিকশা চালক অরবিন্দু সরকার বলেন, বাড়ি থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। রাস্তাঘাটে মানুষ নেই। রুজি করব কী ভাবে। কিন্তু রোজগার না করলে তো সংসার চলে না। সব মিলেয়ে আমরা অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি।
নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল জানান,কোয়ারান্টাইন থাকায় যারা কাজ করতে পারছে না আমরা নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় সরকারের পক্ষ থেকে আসা ত্রাণ ক্ষুদ ব্যবসায়ী,দিনমজুর তাদের কে দিতেছি।সব জায়গায় দেওয়া হয় নাই ক্রাণ তবে খুব তারাতাড়ি সবাই কে দেওয়া হবে।ক্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com