স্ত্রীকে পাশে বসিয়ে আকাশের সেই গাড়ি চালালেন ডিসি

স্ত্রীকে পাশে বসিয়ে আকাশের সেই গাড়ি চালালেন ডিসি

স্ত্রীকে পাশে বসিয়ে আকাশের সেই গাড়ি চালালেন ডিসি
স্ত্রীকে পাশে বসিয়ে আকাশের সেই গাড়ি চালালেন ডিসি

নারায়ণগঞ্জ- নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লামাপাড়া এলাকার আকাশ আহমেদ ইতালীয় ‘ল্যাম্বোরগিনি’র আদলে একটি গাড়ি বানিয়েছেন। দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে গাড়িটি বানাতে তার খরচ হয়েছে মাত্র সাড়ে ৩ লাখ টাকা। গাড়িটি দেখতে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ ভিড় করছেন।

এদিকে সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টি করা পরিবেশবান্ধব ল্যাম্বোরগিনির আদলে আকাশের তৈরিকৃত সেই গাড়িতে সস্ত্রীক চড়লেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. রাব্বি মিয়া। নিজ কার্যালয়ের সামনে স্ত্রীকে পাশে বসিয়ে নিজেই গাড়িটি চালান তিনি। এ সময় জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তা, গণমাধ্যম কর্মীসহ উৎসুক জনতা ভিড় করেন।

মঙ্গলবার একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলকে সাক্ষাৎকার দেয়ার জন্য আকাশকে ডিসির কার্যালয়ে নিয়ে আসেন গণমাধ্যমকর্মীরা। এ বিষয়ে ডিসিকে অবগত করা হলে তিনি তার স্ত্রীকে নিয়ে নিচে নেমে আসেন এবং আকাশের তৈরি পরিবেশবান্ধব গাড়িটি দেখেন। এ সময় স্ত্রীকে নিয়ে গাড়িতে বসে ডিসি কার্যালয়ের সামনে ও আদালত প্রাঙ্গণে ঘুরে বেড়ান তিনি।

পরে জেলা প্রশাসক বলেন, নারায়ণগঞ্জে এমন প্রতিভাবান ছেলের উদ্ভাবনী ক্ষমতা দেখে সত্যিই অবাক হয়েছি। আমার মনে পড়ছে বাংলাদেশের সড়ক ব্যাবস্থাপনায় থ্রি হুইলার নিয়ে অনেক কথা হয়। পাশাপাশি অটোরিকশা ও ব্যাটারিচালিত যানবাহন বন্ধের জন্য অনেক উদ্যোগ নেওয়া হয়।

তিনি বলেন, আমরা যদি আকাশের ব্যাটারিচালিত গাড়িটিকে সরকারিভাবে পৃষ্ঠপোষকতা দিতে পারি তাহলে সড়কে আমুল পরিবর্তন আসবে বলে আমার বিশ্বাস। তখন দেখা যাবে ব্যাটারিচালিত থ্রি হুইলারের পরিবর্তে এরকম চার চাকার গাড়ি রাস্তায় চলছে।

গাড়িটি বাজারজাত করার জন্য সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা প্রসঙ্গে ডিসি বলেন, আমি সরকারের থেকে পৃষ্ঠপোষকতা এনে দেওয়ার জন্য যা যা প্রয়োজন তা করবো। গাড়িটির ছবিসহ লিখিত প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রী বরাবর পাঠাবো। একইসঙ্গে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও আইসিটি বিভাগে প্রতিবেদন পাঠানো হবে। আমার মনে হয় এই তিনটি স্থানে প্রতিবেদন পাঠানোর পর সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা আসতে পারে।

অটোরিকশা ওয়ার্কশপে আকাশের তৈরি গাড়িটি ঘণ্টায় ৪৫ কিলোমিটার বেগে প্রায় ১০ ঘণ্টা চলতে সক্ষম। গাড়িটি তৈরি প্রসঙ্গে আকাশ বলেন, ছোট বেলা থেকেই নিজের তৈরি গাড়িতে চড়ার শখ ছিল তাঁর। অটোরিকশা নির্মাণের গ্যারেজ থেকে বডি তৈরি করতে করতে দেড় বছর আগে তিনি শুরু করে গাড়ি তৈরির। ক্যালেন্ডারের পাতায় ইতালির বিখ্যাত ল্যাম্বোরগিনির মডেল দেখেই সেটি অনুসরণ করে সামনে এগোতে থাকেন তিনি।

বাবার কাছ থেকে প্রতিদিন ১০০/২০০ করে টাকা নিয়েই অল্প অল্প করে কাজ শুরু করেন আকাশ। ইউটিউবে টিউটোরিয়াল দেখে ও জাহাজ কাটার অভিজ্ঞতা থেকে ইস্পাতের পাত কেটে কেটে গাড়ির বডির শেপ তৈরি করেন। ল্যাম্বোরগিনির আদলে গাড়ির নকশা প্রণয়ন, নির্মাণ, জোড়াতালি সবই নিজের হাতে তৈরি করেন তিনি।

আকাশ আহমেদ বলেন, গাড়ির চাকা আর স্টিয়ারিং হুইলটাই কেবল কিনে আনা হয়েছে। বাকি সব কিছু আমার নিজের হাতে তৈরি। চাকার সাসপেশন, হেডলাইট, ব্যাকলাইট, গিয়ার, এসবও আমার নিজের হাতে তৈরি। যা অনেকের কাছেই বিশ্বাসযোগ্য নয়। প্রায় দেড় বছরের টানা প্রচেষ্টায় আজ সেটি পূর্ণাঙ্গ গাড়িতে পরিণত হয়েছে।

আকাশ জানায়, গাড়িতে প্রায় ৫টি ব্যাটারি লাগানো হয়েছে, এগুলো প্রায় ১০ ঘণ্টা চলতে সক্ষম। আর এই ব্যাটারি পূর্ণ চার্জ হতে সময় লাগবে ৫ ঘণ্টা। এছাড়া ঘণ্টায় ৪৫ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারবে গাড়িটি। এটি তৈরি করতে ব্যয় হয়েছে সাড়ে ৩ লাখ টাকা। তবে গাড়ির বডি কার্বন ফাইবারে নিয়ে আসলে ৩ লাখ টাকাতেও বানানোও যাবে।

তবে গাড়িতে আরও কিছু কাজ বাকি আছে বলে জানায় এই তরুণ। যেমন গাড়ির দরজাগুলোয় সুইচ বসানো। যাতে এগুলো অটো খুলবে ও বন্ধ হয়ে যাবে।

আকাশ বলেন, ‘গাড়ি বানানোর খবর মিডিয়ায় আসার পর থেকেই এখন পর্যন্ত ৩০ জন গাড়ি তৈরি করে দেওয়ার অর্ডার দিয়েছেন। কিন্তু আমি কারও সঙ্গে কোনও প্রকার চুক্তি করিনি। তাদের বলেছি, আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে। কারণ যে গাড়িটি আমি বানিয়েছি, তার চেয়ে আরও ভালো গাড়ি কীভাবে তৈরি করা যায় সেটি নিয়ে চিন্তা করছি। সরকারি সহযোগিতা ও প্রযুক্তিগত সহায়তা পেলে বাংলাদেশেই উন্নতমানের গাড়ি বানানো সম্ভব।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com