সিলেট সিটি নির্বাচনে গ্রেফতার আতঙ্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা

সিলেট সিটি নির্বাচনে গ্রেফতার আতঙ্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা

সিলেট সিটি নির্বাচনে গ্রেফতার আতঙ্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে, বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক তত বাড়ছে। দলটির নেতাকর্মীদের অভিযোগ, দিনে নির্বাচনি প্রচার-প্রচারণায় অংশ নিলেও রাতে তারা বাড়ি ছেড়ে নিজেদের সুবিধামতো জায়গায় চলে যান। গত কয়েক দিন ধরে পুলিশের তল্লাশি ও ধরপাকড় শুরু হওয়ায় তারা গ্রেফতার আতঙ্কে ভুগছেন। এ ব্যাপারে পুলিশের দাবি, কোনও নির্দিষ্ট দলের নয়, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অপরাধীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একাধিক নেতাকর্মী জানান, সিলেট সফরকালে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম স্থানীয় প্রশাসনকে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়ে যান। কিন্তু প্রশাসন সেই নির্দেশনা মেনে কাজ করছে না। তারা বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি তল্লাশি চালাচ্ছে। প্রায়ই বিএনপির নেতাকর্মীদের ধরে নিয়ে যাচ্ছে।

 

বিএনপি নেতাকর্মীরা আরও জানান, দিনে তারা দলীয় প্রার্থীর প্রচারে কাজ করেন। সন্ধ্যা নামলেই তাদের আতঙ্ক পেয়ে বসে। পুলিশি তল্লাশি ও ধরপাকড়ের ভয়ে রাতে তারা নিজেদের বাসায় যেতে পারেন না।

 

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘পুলিশ দলীয় নেতাকর্মীদের বাসা-বাড়িতে প্রতিনিয়ত তল্লাশি চালাচ্ছে। আব্দুর রাজ্জাক ও নাসিম হোসাইনের মতো সিনিয়র নেতাদের ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে। সম্প্রতি জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি সাঈদ ও আমার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে রুম্মান রাজ্জাককে ধরে নিয়ে যায় পুলিশ।’

 

কোনও বিশেষ দলের নেতাকর্মীদের ধরপাকড়ের অভিযোগ অস্বীকার করে শাহপরাণ থানার ওসি আক্তার হোসেন জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আসামি ধরা হচ্ছে। সম্প্রতি আসামি ছিনতাইয়ের চেষ্টা, সরকারি কাজে বাধা দেওয়া ও সরকারি স্থাপনার ক্ষতি করার অভিযোগে বিএনপির বিরুদ্ধে মামলা করেছে সিলেট মহানগর পুলিশ। এতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দুই উপদেষ্টাসহ সিলেট বিএনপি ও ছাত্রদলের ৩৯ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৫০-৬০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

 

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার জ্যোতিষ্ময় সরকার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘কাউকে কোনও ধরনের হুমকি ও ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে না; গ্রেফতারও করা হচ্ছে না। এ ধরনের অভিযোগ সত্য নয়। কেবল সুনির্দিষ্ট মামলার আসামিদের গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হচ্ছে।’

 

সিলেট আঞ্চলিক নির্বাচনি অফিসের তথ্য দানকারী কর্মকর্তা প্রলয় কুমার সাহা বলেন, ‘বিএনপির পক্ষ থেকে আমাদের কাছে মৌখিক ও লিখিতভাবে এ অভিযোগ জানানো হয়েছে। আমরা তা খতিয়ে দেখছি। পুলিশকেও এ অভিযোগ খতিয়ে দেখতে বলেছি।’

 

উল্লেখ্য, সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন আগামী ৩০ জুলাই। এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন মোট ৬ জন প্রার্থী। আর সাধারণ ওয়ার্ডে ১২৭ জন ও সংরক্ষিত ৯টি ওয়ার্ডে ৬২ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। সিটির ২৭ ওয়ার্ডে মোট ১৩৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে। প্রার্থীদের নির্বাচনি প্রচার-প্রচারণা আগামী ২৮ জুলাই রাত ১২টায় শেষ হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com