সিটি নির্বাচনের সময় মেসে থাকা নিয়ে বিপাকে লক্ষাধিক শিক্ষার্থী

সিটি নির্বাচনের সময় মেসে থাকা নিয়ে বিপাকে লক্ষাধিক শিক্ষার্থী

রাজশাহী সিটি।

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচকে ঘিরে অনাকাক্ষিত ঘটনা এড়াতে মেসগুলোতে রেজিস্ট্রার্ড শিক্ষার্থীর বাহিরে বহিরাগতদের রাখার বিষয়ে এক ধরনের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে পুলিশ। এ কারণে অধিকাংশ মালিক তাদের মেস বন্ধের নোটিশ দিয়েছেন। আর যেসব মেস বন্ধের ঘোষণা দেয়নি, সেসব মেসের শিক্ষার্থীরা পুলিশি তল্লাশি নিয়ে আতঙ্কে আছে। এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্লাস-পরীক্ষাও বন্ধ রাখার কোনও সিদ্ধান্ত আসেনি। এতে রাজশাহীতে অবস্থানরত বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় লক্ষাধিক শিক্ষার্থী বিপাকে পড়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজশাহী সিটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ৩০ জুলাই। নির্বাচকে সামনে রেখে পুলিশের পক্ষ থেকে মেসগুলোতে ২৭ জুলাই থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত বহিরাগতদের রাখার বিষয়ে এক ধরনের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। কিন্তু সেই সুযোগ নিয়ে অধিকাংশ মেস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মালিকরা। অনেক মেসে নোটিশও ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কোনও মেসে ২৫ জুলাই থেকে ৩১ জুলাই আবার কোনও মেস ২৭ জুলাই থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে।

 

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, রাজশাহী কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষার্থী প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নগরীর বিভিন্ন মেসে অবস্থান করেন। এর বাইরে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা এরইমধ্যে রাজশাহীর বিভিন্ন মেসে অবস্থান নিয়েছেন। সব মিলিয়ে লক্ষাধিক শিক্ষার্থী বিপাকে পড়তে যাচ্ছেন।

 

সূত্র জানায়, বিএনপি-জামায়াত পন্থী মেস মালিকরা তাদের ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে মেস বন্ধের ঘোষণা করেছেন। কেননা, এই সময় মেসগুলোতে পুলিশি তল্লাশি চালানো হয়। আর যে মেসে পুলিশি তল্লাশি হয়, সে মেসগুলোতে  শিক্ষার্থীরাও থাকতে আগ্রহী না। তাই মেস মালিকরা অগ্রিম মেস বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে।

 

বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নির্বাচন ঘিরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে কোনও ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। যথারীতি ক্লাস-পরীক্ষা চলবে বলে জানা গেছে।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী অভিযোগ করেন, ক্লাস-পরীক্ষা চলাকালীন মেস ছেড়ে কোথায় থাকবো। এসময় অনেক শিক্ষার্থীর পরীক্ষা আছে, তারা কী করবে। এ অবস্থায় বাড়িতে যাওয়া-আসা করতেও অতিরিক্ত টাকা লাগবে। অনেকের বাড়ি আবার কক্সবাজার বা সিলেটে তাদের তো যাতায়াত করতেই দুই-তিন দিন লেগে যায়। দুই দিনের জন্যে বাড়ি গিয়ে আবার আসতে অনেক টাকা খরচ হবে।

 

এর মধ্যে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েরই প্রায় ২৫ হাজার শিক্ষার্থী অনাবাসিক। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন মেসে অবস্থান করেন। অন্যদিকে যেসব মেস বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়নি, সেসব মেসের শিক্ষার্থীরাও এক ধরনের দোটানায় আছেন। এক ধরনের নিরাপত্তা শঙ্কা কাজ করছে তাদের মধ্যেও। কারণ, বিভিন্ন মেসে ও বাসায় তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

 

এ ব্যাপারে এক ছাত্রী বলেন, ‘আজ সকালে আমাদের মেসে ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে। আমি মেসে ছেড়ে মন্নুজান হলে আমার বোনের কাছে যাচ্ছি। কিন্তু অন্য যারা আছে তারা কী করবে?

 

জানতে চাইলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন,‘মেস বন্ধের বিষয়টি আমিও শুনেছি। শিক্ষার্থীরা যদি মেসে না থাকতে পারে, তাহলে তো সমস্যা। এ বিষয়ে আমি উপাচার্য মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলবো।’

 

এ বিষয়ে রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ও সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম বলেন,‘নির্বাচনকালীন মেসগুলোতে রেজিস্ট্রার্ড শিক্ষার্থীর বাইরে যেন কেউ অবস্থান করতে না পারে সেজন্য বিভিন্ন থানা ও পুলিশকে বিষয়গুলো নজরদারিতে রাখতে বলা হয়েছে। মেস বন্ধের বিষয়ে কোনও নির্দেশনা আমাদের নেই।’

 

জানতে চাইলে মেস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,‘মেস মালিকদের বহিরাগত বা অতিথি রাখতে নিষেধ করা হয়েছে। আমারা মেস বন্ধের কোনও ঘোষণা বা সিদ্ধান্ত নেইনি। কিন্তু কিছু মেস মালিক নিজে থেকে বন্ধ করে দিয়েছেন। আবার অনেক মেসের শিক্ষার্থীরা নিজে থেকে চলে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com