সরেজমিনে প্রতিবেদন ডেট লাইন পইল রুনা অপহরণ তদন্তে নেমেছে পুলিশ

সরেজমিনে প্রতিবেদন ডেট লাইন পইল রুনা অপহরণ তদন্তে নেমেছে পুলিশ

সরেজমিনে প্রতিবেদন ডেট লাইন পইল রুনা অপহরণ তদন্তে নেমেছে পুলিশ
সরেজমিনে প্রতিবেদন ডেট লাইন পইল রুনা অপহরণ তদন্তে নেমেছে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার।। পইলে  রুনা অপহরণ   ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। তদন্তে বেঁড় হয়ে আসতে শুরু করেছে মুল ঘটনার তলের বিড়াল।   মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস,আই আবু নাঈম দৃঢ়তার বড়পুতা ও দক্ষিণ পইল গ্রামের মধ্যবর্তী কালভার্ট সংলগ্ন, বাদী মকসুদ আলীর দেয়া এজাহারের ঘটনা স্হল, রুনার বাড়ির পাশাপাশি, স্বাক্ষীগনও তাদের আত্মীয়তার বন্ধনে  বাঁধা তাদেরকে জিঙাসাবাদ শুরু করেছেন । মকসুদের দায়েরকৃত অভিযোগের  পরিপ্রেক্ষিতে জানা যায়,৩ সেপ্টেম্বর বিকাল ৫ টায় বিবাদী এখলাছ মিয়া একটি সিএনজিতে অন্যান্য বিবাদীর সহযোগিতায়, পুর্ব থেকে ওঁৎ পেতে তাকা বিবাদী এখলাছ মিয়া, তার বড় ভাই ইলিয়াছ মিয়া ও পিতা হিরা মিয়া অপহরণ করে সিএনজিতে করে নিয়ে আসে। ঘটনার স্হল রুনা আক্তারের বাড়ির পাশাপাশি হলেও বিবাদীগনের বাড়ি ঘটনার স্হল থেকে অনুমান দু কিলোমাইল দুরত্ব হবে। সচেতন জনসাধারণের প্রশ্নঃ দিনের বেলা জোর -ধ্বস্তাধস্তি করে একজন মেয়েকে পিতাপুত্র গাড়ি তে তুলে নিয়ে যায় এতে কেউ কোন বাঁধা নিষেধ করল না এটা একটি আর্চায্য বেপার। কোন- কোন স্বাক্ষী ঘটনা দেখেন তা মকসুদ আলী তার অভিযোগে বলেননি। এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে মিশ্রপ্রকিয়া সৃষ্টি হয়েছে। কে দেখেছ, এখলাছ মিয়া, তার বড় ভাই ইলিয়াছ মিয়াও পিতা হিরা মিয়া অপহরণ করে রুনাকে নিয়ে আসছে মকসুদ আলী সেই কথা এজাহারে বলেননি, তিনি নিজেও দেখেছেন তাও না। মকসুদ আলী বলেছেন, এখলাছ মিয়া রুনাকে বিয়ে করার জন্য প্রস্তাব পাঠালে তিনিও আত্মীয় -স্বজনরা সেই প্রস্তাব প্রত্যাক্ষন করেছে।বিবাদী এখলাছ কাকে -কাকে  দিয়ে মকসুদের বাড়িতে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছিল তা মকসুদের নিকট ও তার আত্মীয়ের নিকট তা তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত সাপেক্ষে বেঁড় হয়ে আসবে। এদিকে সরেজমিনে গিয়ে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজনকে আমাদের প্রতিনিধি গত ৩ সেপ্টেম্বর বিকালে৷  আটঘরিয়া ও বড়পুতা নামকস্হানে কালভার্টের সামনে কোন সিএনজি, কি জোর করে কোন মেয়েকে গাড়িতে তুলে নেয়া হয়েছে দেখেছেন কি না? এমন প্রশ্নে কেউ কোন সুর্দত্বর দিতে পারেনি। এদিকে একটি বিশ্বাস সূত্রে জানা যায়, ৩ সেপ্টেম্বর রাত অনুমান ১১ টার সময় এখলাছ মিয়া তার চালিত টমটম গাড়ি শায়েস্তানগর একটি গ্যারিজে রেখে বাড়িতে যাওয়ার জন্য পইল রোডেস্হ যাওয়ার পথিমধ্যে এখলাছের পুর্ব পরিচিত লামাপইল দালানহাটির অটোরিকশা চালক উজ্জ্বল মিয়া এখলাছের মোবাইলে ফোন দেয় বহুলা ঈদগাহ সংলগ্ন বাইপাস রোডে যাওয়ার জন্য। তখন অন্য একজন লোক একটি অটোরিকশা নিয়ে এখলাছের কাছে এসে একশত টাকা দিয়ে বলে এই মেয়েটি কে কয়েকটি ছেলে বের দিয়েছে, তাকে নিয়ে যা। এখলাছ রাত অনুমান ১ ঘটিকার সময় রুনা আক্তারকে  তার সাথে করে বাড়িতে নিয়ে যায়। রুনাকে এখলাছের এককা খালিঘরে না নিয়ে, তার মাকে ঘুম থেকে জাগিয়ে রুনাকে মায়ের নিকট ঘুমপাতায়। ৪ সেপ্টেম্বর সকাল অনুমান দশ টায়,  সকলের সামন দিয়ে আদালত নিয়ে এফিডেভিটের  মাধ্যমে দুজন বিয়ের পিরিতে বসে। বিকালে এখলাছ ও রুনা বাড়িতে ফিরে। পইল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে আসলে পশ্চিম পাড়ার শাহ আলম নামের এক যুবক তাদের পথগতিরোধ করে। এনিয়ে এখলাছ ও শাহ আলমের মাঝে ঝগড়া সৃষ্টি হয়। ওই সময় শাহ আলম তার ভাতিজি দাবী করে, ওই সময়ই শাহ আলমের বড় ভাই সামসু মিয়া এসে হাজির হয়ে এখলাছ ও তার ছোট ভাই শাহ আলমকে ঘটনা কি জিগ্যাসাবাদ করে তোদের কি হয়েছে। তখন শাহ আলম রুনাকে নিজের ভাতিজি দাবী করলে, সামসু ও তখন শাহ আলমকে বলে রুনা যদি তোর ভাতিজি হয় তা হলে আমার হত ভাতিজি। দেখিগো তোমার মুখখানা। তখন বোরকার মুখোশ সরালে সামসু মিয়া শাহ আলমকে বলে এই নষ্ট মেয়ে তোর কোন খানের ভাতিজি আমি দি চিনি না। ওই সময় পশ্চিম পাড়ার পইল হাই স্কুলের দশম শ্রেনীর ছাত্র তারেক মিয়াসহ অনেকই উপস্থিত ছিল। তারা অনেকই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস,আই আবু নাঈমকে এ বিষয়গুলো খোলে বলেন। সন্ধ্যার আগ মুহূর্তে এখলাছ নুরী নামে একজন সহজ – সরল হুজুরকে রাস্তা থেকে এনে ধর্ম শরীশরিয়াত মতে কবুলও দোয়া করায়। রুনা উপস্থিত মহিলাসহ যুবকদের সামনে জানায় তার কেউ নেই এমনই বক্তব্য দিয়েছেন অনেকই আমাদের সরেজমিনে যাওয়া প্রতিনিধির নিকট। আরোও জানা যায়, রুনার সাথে একাধিক সম্পর্কের কাহীনি। রুনার মোবাইল কল লিস্ট  পর্যালোচনা করলে বেড়িয়ে আসতে শুরু করবে তলের বিড়াল।  সদর উপজেলা ভুমি অফিসের পিয়ন রজব আলী ( দেওয়ান) রুনার চাচা সদর মডেল থানায় তদন্তকারী কর্মকর্তাও উপস্থিত কয়েকজনের সামনে বলেন,রুনার মাথায় সমস্যা আছে। এ ঘটনাটি কি? বা এর রহস্য এ নিয়ে এলাকায় রসালো আলোচনার ঝড় বইছে। এদিকে রুনাও এখলাছের প্রেম লীলায় নিরপরাধ ইলিয়াছ মিয়া কারাগারে আবদ্ধ আছে। ওই এলাকার শত-শত লোকজন জানান, ইলিয়াছের মতো ভালও ভদ্র একটি লোক আমদের ইউনিয়নে নাই। রুনার পিতা মকসুদের দায়েরকৃত অপহরণের মামলা থেকে রক্ষা পায়নি এখলাছের পিতা বৃদ্ধ হিরা মিয়াও। হিরা মিয়া আটএ্যাটাকের রোগী তিনি সদর আধুনিক হাসপাতালে দুবার ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন।  বর্তমানেও তিনি চাঁদের হাসীর ডাক্তার সোলেমান   এর চিকিৎসায় রয়েছেন। যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে দুঘর্টনা। এ দিকে নির্দোষে কারাগারে তাকা ৬ মাসের দুধের বাচ্চা ও গুরুত্ব অসুস্থ রয়েছে। দ্রত তদন্ত পুর্বক ব্যবস্হায় নির্দোষ ইলিয়াছ মুক্তি পাবে এটা এলাকাবাসীর দাবী।  রুনার কল লিস্টের মাধ্যমেই মুল অপরাধীরা ধরা খাবে।  রুনা আদালতের মাধ্যমে পিতার জিম্মায় চলে গেলেও এখলাছ মিয়া যায় শ্রীঘরে। সূত্রে জানায়, রুনার মা জয়ফুল নেচ্ছা ও মকসুদ আলীর সাথে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছিল। রুনার নানা রেজ্জাক মিয়া ৪ টি বিয়ে করেছে এমনকি কত মহিলার জীবন নষ্ট করে তার কোন হিসাবে নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com