রাজশাহীতে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ১৮ দফা ইশতেহার ঘোষণা

রাজশাহীতে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ১৮ দফা ইশতেহার ঘোষণা

রাজশাহীতে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ১৮ দফা ইশতেহার ঘোষণা

রাজশাহী প্রতিনিধি : করের বোঝা লাঘবসহ রাজশাহীকে আধুনিক নগরী গড়া এবং চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহযোগিতাসহ ১৮ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেছেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) বিকালে নগরীর জিরো পয়েন্ট সংলগ্ন মুনলাইন গার্ডেনের কনফারেন্স রুমে সাংবাদিকদের সামনে তার নির্বাচনি ইশতেহার তুলে ধরেন।

মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, ‘২০১৩ সালে জাতীয় নির্বাচনে বৈধ সরকারের উন্নয়ন ম্যাজিক কাজে লাগেনি। পাঁচ সিটিতেই লজ্জাজনকভাবে হেরেছে। বর্তমান ভোট বিহীন সরকারের মেয়াদ আর মাত্র পাঁচ মাস। সুষ্ঠু ভোট হলে অকল্পনীয় ব্যবধানে ধানের শীষ জিতবে। উন্নয়ন আমরা করবো। কথিত টাকা নিয়ে ভাগতে হবে অন্যদের। এই অবস্থায় পরিস্থিতিতে গণতন্ত্র রক্ষা ও আধুনিক রাজশাহীর স্বপ্ন বাস্তবায়নে মেয়র পদে নির্বাচিত করা হলে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় ও জনকল্যাণে পদক্ষেপসমূহ গ্রহণ করা হবে।’

 

ইশতেহার ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহামুদ টুকু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানর রহমান মিনু, হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, হাবিবুর রহমান, বিএনপি নেতা নিপুন রায় চৌধুরী, রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন, জেলা বিএনপির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন তপু প্রমুখ।

 

ইশতেহারে বলা হয়েছে,  রাজশাহী মহানগরবাসীর করের বোঝা লাঘব ও সহজসাধ্য করার জন্য উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে সরলীকরণ প্রক্রিয়ায় ন্যূনতম কর নির্ধারণ করা হবে। রাজশাহীতে চালু হওয়া গ্যাস সংযোগ কোনও এক অদৃশ্য ষড়যন্ত্রে বন্ধ হয়ে যায়। এই সংযোগ পুণরায় চালু করার জন্য জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে এবং তা আদায় করা হবে। নাগরিকদের মৌলিক অধিকার যেমন চিকিৎসা, বাসস্থান, শিক্ষা বিষয়ে ইতোপূর্বে গৃহীত প্রকল্পের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে যথাযথ উন্নয়ন করা হবে। শিক্ষার্থীরা যাতে শুধু সনদধারী না হয়ে প্রকৃত অর্থে জ্ঞানী, দক্ষ ও মানবিক গুণের অধিকারী হয়ে দেশপ্রেমিক তথা সুনাগরিক হয়ে দেশের মুখ উজ্জ্বল করে সেই লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় মোটিভেশন প্রোগ্রাম চালু করা হবে। রাজশাহী মহানগরে বর্তমানে অবস্থিত আরবান ক্লিনিকসমূহের সংখ্যা বৃদ্ধি ও উন্নয়ন করা হবে। এছাড়াও রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামগ্রিক অব্যবস্থা দূরীকরণে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহায়তায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 

স্বল্প আয়ের গৃহহীন জনগোষ্ঠীর জন্য গৃহীত গৃহ নির্মাণ প্রকল্প চালু রাখা হবে এবং এর কর্মপরিধি আরও বৃদ্ধি করা হবে। রাজশাহী শিক্ষা নগরী হিসেবে পরিচিত। কিন্তু শিক্ষার্থীদের জন্য পর্যাপ্ত উন্নতমানের স্কুল-কলেজ নেই। সরকারি স্কুল ও কলেজের সংখ্যা বৃদ্ধির উদ্যোগ নেওয়া হবে। এছাড়াও সিটি করপোরেশনের অর্থায়ন ও তত্ত্বাবধানে একটি বিশ্ববিদ্যালয়, একটি কলেজ ও স্কুল স্থাপন করা হবে। কৃষি নির্ভর অর্থনীতির উন্নয়নে এ অঞ্চলে একটি পূর্ণাঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়োজন; এর বাস্তবায়নেও যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ছাত্র-বৃত্তি ও পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের জন্য কৃতি-শিক্ষার্থীদের স্বর্ণপদক দেওয়া হবে। শিক্ষার্থীদের সন্ত্রাস ও মাদক থেকে দূরে রাখতে তাদেরকে খেলাধুলার প্রতি আগ্রহী করে তোলার জন্য পর্যাপ্ত খেলার মাঠ ও বিভিন্ন টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হবে। চাকরির ক্ষেত্রে চলমান কোটা আন্দোলনকে সহযোগিতা করা হবে এবং কোটা প্রথা সংস্কার করে মেধাবীদের চাকরির নিয়োগ প্রাপ্তিতে পূর্ণ সহযোগিতা করা হবে। একটি আধুনিক নগরীর উপযোগী রাস্তাঘাট তৈরি, ড্রেনেজ-ব্যবস্থা, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, সুপেয় পানির ব্যবস্থা করার কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। শহরের যানজট নিরসনকল্পে ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়নে সিটি করপোরেশনের নিজস্ব ট্রাফিক-কর্মী বাহিনী গড়ে তোলা হবে। যত্রতত্র গাড়ি পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং বিভিন্ন মার্কেট এলাকায় বহুতল গাড়ি-পার্কিং তৈরি করা হবে। রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক ফুটবল, ক্রিকেট, হকিসহ অন্য টুর্নামেন্টের ভেন্যু স্থাপনের লক্ষে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ ও একটি ইনডোর স্টেডিয়াম স্থাপনসহ মোট ১৮টি দফা ঘোষণা করা হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com