সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
রক্তসঞ্চালনে নামাজের ভূমিকা

রক্তসঞ্চালনে নামাজের ভূমিকা

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

ঈমানের পর নামাজ ইসলামের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। অন্যান্য ইবাদতের মতো নামাজের একমাত্র উদ্দেশ্য আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা। তবে আধুনিক বিজ্ঞানের বহু গবেষণায় প্রমাণিত যে মানুষের শরীরের রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখার ক্ষেত্রে নামাজ গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। সুস্থ থাকতে শরীরবিদরা যেসব অনুশীলন দিয়ে থাকে তার সঙ্গে নামাজের ধারণাগত মিল পাওয়া যায়।

নামাজের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো সিজদা। সিজদা অবস্থায় হৃদয়ের ডান কোষ থেকে ফুসফুসে আর বাম কোষ থেকে মস্তিষ্কে এবং হৃৎপিণ্ডের পেশিতে ‘অরটার’-এর মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে রক্ত সঞ্চালন হয়। সিজদার সময় হৃদয় তার নিয়মিত কার্যক্রমে কিছুটা স্বস্তি পায়, যেভাবে মানুষ ওপর থেকে নিচে নেমে স্বস্তি পায়। সিজদা ব্যতীত অন্য কোনো অবস্থায় হৃদয় এমন স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করে না। কেননা হৃদয়ের নিচু স্তরের অঙ্গগুলো যথা—কিডনি, ডিম্বাশয়, অণ্ডকোষ, লিভার, অন্ত্রসহ অন্যান্য অঙ্গ সিজদা অবস্থায় হৃদয়ের ওপরে চলে যায়।

এ অবস্থায় ওই সব অঙ্গে থাকা দূষিত রক্ত কার্বন ডাই-অক্সাইডের সাহায্যে হৃদয়ের ডান কোষে চলে যায়। সিজদা অবস্থায় একটি ভ্যাকুয়ুম বায়ূ চাপ হয়, যা দ্বারা পা ও শরীরের সব নিচের অঙ্গ থেকে রক্ত হৃদয়ের দিকে যাওয়া শুরু করে। পক্ষান্তরে স্বাভাবিক অবস্থায় পা ও অভ্যন্তরীণ অঙ্গ থেকে হৃৎপিণ্ডে রক্ত ওঠা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তাই একবাক্যে বলা যায়, নামাজের গুরুত্বপূর্ণ অংশ কিয়াম (দাঁড়ানো), রুকু, সিজদা ও কুয়ুদ (বসা) হৃৎপিণ্ড থেকে বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে এবং বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ থেকে হৃৎপিণ্ডে রক্ত প্রবাহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ভেরিকোস ভেইনের ফলে হাত ও পায়ের শিরাগুলো গিঁট পাকানোর মতো হয়ে ফুলে ওঠে। এই ফুলে ওঠা শিরা ত্বকের ঠিক নিচেই দেখা যায়। এ অবস্থায় শিরাগুলো গাঢ় বেগুনি বা নীলাভ রঙের হয়ে ওঠে। এই রোগের অন্যতম প্রধান কারণ হলো ওপরের দিকে না উঠে ধমনিতে রক্তের দীর্ঘক্ষণ অবস্থান। ফলে অরটারের মাধ্যমে রক্ত প্রবাহের যে ভারসাম্য তা নষ্ট হয়ে যায়। দুই সিজদার মধ্যবর্তী ও তাশাহুদে বসার সময় হাঁটু বাঁকানোর ফলে পা ও উরু মিলে যাওয়ায় পায়ের পেশি শক্ত হয়ে চাপ সৃষ্টি হয়। এই চাপের ফলে পায়ে জমে থাকা রক্ত হৃৎপিণ্ডে ওঠে যায়।

মানুষের হাঁটা, দৌড়ানো ও শারীরিক ব্যায়ামের সময় মাংসপেশিগুলোর নড়াচড়ার চাপে রক্ত ওপরের দিকে সঞ্চারিত হয় এবং হৃৎপিণ্ডকে নতুন করে গতিময় করে। তাই এই অঙ্গগুলোকে সেকেন্ডারি এক্সটারনাল হার্ট বলা হয়। তবে শারীরিক ব্যায়ামের মাধ্যমে তৈরি চাপ দুই সিজদার মধ্যবর্তী ও তাশাহুদে বসার ফলে তৈরি চাপের মতো তীব্র নয়—তাও মেডিক্যাল সায়েন্সে প্রমাণিত। এই হিসেবে নামাজের সময় বসাকেও সেকেন্ডারি এক্সটারনাল হার্ট বলতে পারি আমরা।

নামাজের সব অবস্থা যথা—দাঁড়ানো, রুকু, সিজদা ও বসা রক্ত চলাচলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। রুকু ও সিজদা হৃৎপিণ্ড থেকে খাদ্য ও বায়ুসমৃদ্ধ রক্ত শরীরের সব অংশে পৌঁছাতে এবং হৃদয় ও ফুসফুসে কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাধ্যমে সব অঙ্গ থেকে দূষিত রক্ত ফেরাতে সাহায্য করে।

সিজদার সময় মুসল্লিদের অবস্থার মতো মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বুকের কষ্ট, হতাশা ও চাপ দূর করার জন্য বসার মতো। কেননা এই ‘সিজদা’ অবস্থায় মস্তিষ্ক এবং ফুসফুসে অক্সিজেনে মিশ্রিত রক্তের তুলনামূলক তীব্র প্রবাহের ফলে তাদের পরিশ্রান্ত হৃদয়ের চাপ কমাতে সাহায্য করে। ফলে কিছুক্ষণ পর প্রফুল্ল অবস্থায় তাদের মাঠে সক্রিয় হতে দেখা যায়। এ অবস্থায় অল্পক্ষণ থাকার ফলে তাদের হৃদয় সতেজ ও চাপমুক্ত হয়, শরীর শীতল ও ভারমুক্ত হয়। নিরপেক্ষ আধুনিক চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা স্বীকার করবে যে রক্ত সঞ্চালনে, হৃদযন্ত্রের প্রচণ্ড চাপ কমাতে, মস্তিষ্ক, ফুসফুস এবং পঞ্চ ইন্দ্রিয়কে সতেজ রাখতে নামাজ অকল্পনীয় ভূমিকা রাখে।

‘ইজাজুল কোরআন ওয়াস-সুন্নাহ’- ওয়েব পেইজ অবলম্বনে

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com