সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
যে কারণে হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান বন্ধ।

যে কারণে হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান বন্ধ।

যে কারণে হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান বন্ধ।

দেশের সকল পর্যটন স্পট খুলে দেওয়া হয়েছে। সরকারের পূর্বনির্দেশনা অনুযায়ী দেশের পর্যটন স্পটগুলো বৃহস্পতিবার থেকে খুলে দেয়া হলেও খুলেনি হবিগঞ্জের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন স্পট সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান। বিষয়টি নিশ্চিত করেন সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের রেঞ্জ কর্মকর্তা মাহমুদ হোসেন।

 

 

তিনি বলেন, সংবাদপত্রের মাধ্যমে জানতে পেরেছি ১৯ আগস্ট থেকে দেশের সকল পর্যটন স্পট খুলে দেয়া হচ্ছে। যে কারণে আমরাও দর্শনার্থীদের জন্য উদ্যানটি উন্মুক্ত করে দেয়ার প্রস্তুতি নিয়ে রাখি। উদ্যানের চারপাশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। এছাড়া দর্শনার্থীরা যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘুরাফেরা করতে পারেন এরজন্য উদ্যানের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু উদ্যান খুলে দেয়ার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে কোন চিঠি না পাওয়ায় তা খুলে দেয়া হয়নি।

 

মাহমুদ হোসেন বলেন, এ বিষয়ে আমি বিভাগীয় কর্মকর্তার সাথে কথা বলেছি। তিনিও জানিয়েছেন কোন চিঠি পাননি।

 

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের এই রেঞ্জ কর্মকর্তা বলেন, চিঠি না পাওয়ায় আমরা দর্শনার্থী প্রবেশের অনুমতি দিতে পারছি না। চিঠি পেলেই খুলে দেয়া হবে।

 

এর আগে গত গত বছরের ১৯ মার্চ থেকে ১ নভেম্বর এবং চলতি বছরের ১ এপ্রিল ২য় দফায় সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

 

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায় ২০০৫ সালে ৬শ একর পাহাড়ি জমিতে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান গড়ে তোলা হয়। সিলেট বিভাগের এটি অন্যতম একটি জনপ্রিয় ভ্রমণের স্থান হিসেবে পরিচিত। এই উদ্যানে প্রায় ২০০ প্রজাতির পাখি, ৪২ প্রজাতির সরীসৃপ ও স্তন্যপায়ী এবং ছয় প্রজাতির উভচর রয়েছে।

 

এছাড়াও আছে লজ্জাবতী বানর, উল্লুক, চশমা হনুমান, কুলুবানর, মেছোবাঘ, মায়া হরিণসহ নানা প্রজাতির প্রাণী। এগুলো দেখতে ও সবুজ প্রকৃতির টানে প্রতিদিন শত-শত দর্শনার্থী ভিড় করেন এই উদ্যানে। এছাড়াও উদ্যানের উভয় পাশেই রয়েছে দৃষ্টিনন্দন সবুজের সমারোহঘোরা চা-বাগান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com