মেহেদীর রঙ না শুকাতেই যৌতুকের বলি হল আঁখি!

মেহেদীর রঙ না শুকাতেই যৌতুকের বলি হল আঁখি!

মেহেদীর রঙ না শুকাতেই যৌতুকের বলি হল আঁখি!
মেহেদীর রঙ না শুকাতেই যৌতুকের বলি হল আঁখি!

চাঁদপুর প্রতিনিধি : বিয়ে হয়েছে কিছুদিন আগে। এখনও হাত থেকে মুছে যায়নি মেহেদীর রঙ। আর নতুন দম্পতির মধ্যে ভালবাসার খুনসুটি! সে ব্যাপারটি তো হিসেবের মধ্যে থাকার কথা নয়। তবে নতুন দম্পতিদের মধ্যে সব হিসেবকে উল্টে দিয়ে শোকাবহ ঘটনা ঘটেছে চাঁদপুরে। জেলারর ফরিদগঞ্জে উম্মে কুলছুমা আঁখি (২০) নামে এক গৃহবধুর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আঁখির পরিবারের দাবী, যৌতুকের বলি হয়েছে সে। তাকে নির্যাতন পূর্বক হত্যা করে লাশ ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায় আঁখির স্বামী আমানত শাহ। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নের ফনিশাইর গ্রামের বড় সর্দার বাড়ির গোলাম সারওয়ারের মেয়ে উম্মে কুলছুমা আঁখির সাথে বিয়ে হয় শাহরাস্তি উপজেলার উয়ারুক গ্রামের মাইজের বাড়ির মৃত সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে আমানত শাহের সাথে।

আঁখির ভাই শাহাদাত জানায়, বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই যৌতুকের জন্য আঁখির সাথে তার স্বামী ও পরিবারের বিরোধের সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে গত ১ মে (বুধবার) আঁখি তার বাবার বাড়ি ফরিদগঞ্জে চলে আসে। এরপর গত ৪ মে শনিবার তার স্বামী আমানত শাহ আমাদের বাড়িতে আসে। ওই রাতে আঁখি ও তার স্বামীর সাথে ঝগড়া হয়। পরের দিন রোববার (৫ মে) সকালে আঁখির ঝুলন্ত লাশ ঘরের আড়ার সাথে পরিবারের লোকজন দেখতে পায়। স্বামী আমানত শাহ সকাল হওয়ার আগেই পালিয়ে যায়।

তিনি আরো জানান, আমানতশাহ তার বড় ভাবীর সাথে দীর্ঘ দিন পরকীয়ায় জড়িত ছিল। এ নিয়েই তাদের মাঝে কলহ ছিল। এ ঘটনায় তাদের একটি মামলা আদালতে চলমান রয়েছে।

এ ব্যাপারে নিহত আঁখির ভাই শাহাদাত হোসেন বাদী হয়ে রোববার (৫ মে) রাতে স্বামী আমানত শাহ, তার ভাই, ভাবী এবং শাশুড়িসহ ৪জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই জাকারিয়া জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে আসামীদের আটকের চেষ্টা চলছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসলে ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com