মৃত তিমির পেট কাটতেই কি বেরোল ৪০ কেজি!

মৃত তিমির পেট কাটতেই কি বেরোল ৪০ কেজি!

মৃত তিমির পেট কাটতেই কি বেরোল ৪০ কেজি!
মৃত তিমির পেট কাটতেই কি বেরোল ৪০ কেজি!

চিত্র-বিচিত্র ডেস্ক : সম্প্রতি ফিলিপাইন্সের পূর্বাঞ্চলের ডাভালো শহরের উপকূল থেকে একটি মৃত তিমি উদ্ধার হয়েছে। সমুদ্রতটে এই মৃত তিমিটিকে ভেসে আসতে দেখে, মিউজিয়ামের কর্মচারীরা সেটি উদ্ধার করে মিউজিয়মে নিয়ে আসে। মৃত তিমিটির পাকস্থলী থেকে পাওয়া গিয়েছে প্রায় ৮৮ পাউন্ড প্লাস্টিক। যা প্রায় চল্লিশ কেজির সমান।

একটি তিমি মাছের পাকস্থলীতে এত পরিমান প্লাস্টিক এর আগে তারা কখনও দেখা যায়নি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই মৃত তিমিটির পাকস্থলীতে ষোলটি চালের প্লাস্টিকের ব্যাগ এবং বিশাল আকারের প্লাস্টিকের একটি ‘শপিং ব্যাগ’ পাওয়া গিয়েছে। তিমিটির পাকস্থলী থেকে কী কী জিনিস পাওয়া গেছে তার বিস্তারিত তালিকা কয়েকদিনের মধ্যেই জানানো হবে।

ওশ্যান কনজার্ভেন্সি ও ম্যাকিনসে সেন্টার ফর বিজনেস অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রতি বছর সমুদ্রে যে পরিমাণ প্লাস্টিক বর্জ্য জমা হয় তার ষাট শতাংশ আসে এশিয়ান দেশ– চীন, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপিন্স, ভিয়েতনাম ও থাইল্যান্ড থেকে। ফিলিপিন্স-সহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অনেক দেশ থেকেই সমুদ্রে প্রচুর পরিমাণ প্লাস্টিক বর্জ্য ফেলা হয়। বিশ্ব জুড়েই সমুদ্রে প্লাস্টিকের আবর্জনা বাড়ছে।

২০১৫ সালের একটি সমীক্ষা অনুয়ায়ী, সে বছরে উত্তর ও দক্ষিণ অ্যাটলান্টিক মহাসাগর, উত্তর ও দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগর এবং ভারত মহাসাগর থেকে প্রায় আশি লক্ষ মেট্রিক টন প্লাস্টিক উদ্ধার করা হয়েছিল।

গত বছরে থাইল্যান্ডেও একটি তিমির মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল যা প্রায় আশি কেজি পরিমাণ প্লাস্টিক গিলে ফেলার কারণে মারা গিয়েছিল। নভেম্বর মাসে ইন্দোনেশিয়ায় একটি তিমি মাছের পাকস্থলীতে একশো পনেরোটি প্লাস্টিকের কাপ, চারটি প্লাস্টিকের বোতল, পঁচিশটি প্লাস্টিকের ব্যাগ এবং দুই জোড়া প্লাস্টিকের স্যান্ডেল পাওয়া যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com