সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
মাঝে মধ্যে মোবাইল কোর্ট হলেও থামানো যাচ্ছে না অবৈধ কার্যক্রম হবিগঞ্জ জেলায় ফসলি জমি ও বৃক্ষ ধ্বংস হচ্ছে ইটভাটায়

মাঝে মধ্যে মোবাইল কোর্ট হলেও থামানো যাচ্ছে না অবৈধ কার্যক্রম হবিগঞ্জ জেলায় ফসলি জমি ও বৃক্ষ ধ্বংস হচ্ছে ইটভাটায়

স্টাফ রিপোর্টার : হবিগঞ্জ জেরার বিভিন্ন উপজেলায় ফসলি জমি ধ্বংস ও পরিবেশ বিনষ্ঠ করে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে একের পর এক ইটভাটা। এদের অনেকের নেই কোনো বৈধ কাগজপত্র। পরিবেশকে বিপর্যয়ের মুখে ফেলে এসব ইটের ভাটায় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে কাঠ। ফলে উজাড় হয়ে যাচ্ছে পাহাড়ি বনাঞ্চল ও বনাজী, ওষুধিসহ বিভিন্ন মূল্যবান গাছ। পাশাপাশি ইটভাটায় থেকে মাটি ও ইট সরবরাহকালে বড় বড় ট্রাক, দানবরূপি ট্রাক্টর, লরীসহ বিভিন্ন পরিবহণ দিয়ে নিয়ে যাবার সময় রাস্তাঘাট ভেঙ্গে খানাখন্দে পরিণত হচ্ছে আবার ধুলাবালিতে অনেকেই রোগবালাইয়ের শিকার হচ্ছেন।
পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক এসব কর্মকাÐে জড়িতরা বেশিরভাগই প্রভাবশালী হওয়ায় অনেকটা দেখেও না দেখার ভান করছে কর্তৃপক্ষ। পাহাড় এবং ফসলি জমি কাটার ওপর সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা কর্ণপাত করছেন না কোনও ইট ভাটার মালিক। জানা যায়, বাহুবল উপজেলার মিরপুর বাজার, পুটিজুরী, চলিতার আব্দা, নতুন বাজার, হাফিজপুরের সুজাত ব্রিকস ফিল্ড, লস্করপুর, নতুন ব্রিজ, পাইকপাড়া, রতনপুর, বনগাঁও, বৈদ্যের বাজার, পুকড়া, নবীগঞ্জের মিলনগঞ্জ, চুনারুঘাটের বিভিন্নস্থানে প্রায় অর্ধশতাধিক ব্রিকস ফিল্ড রয়েছে।
এর অনেকটাতেই পরিবেশের ছাড়পত্র নেই। লাইসেন্স থাকলেও মেয়াদোত্তীর্ণসহ নানা ত্রæটি রয়েছে। তবুও প্রভাবশালী হওয়ায় গায়ের জোরেই এসব ব্রিকস ফিল্ড চালিয়ে যাচ্ছে। মাঝে মধ্যে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করলে অর্থদÐ করা হয়। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই প্রভাব খাটিয়ে এসব ব্রিকস ফিল্ডের মালিকরা চালু করে কাজকর্ম চালিয়ে যান। অভিযোগ রয়েছে অনেক শ্রমিকরা মালিকদের হাতে লাঞ্চিতও হয়েছেন।
স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্পূর্ণ অবৈধভাবে লোকালয়ে ইটভাটা স্থাপন করা হয়েছে। প্রশাসনকে বারবার এই বিষয়ে অবগত করলে ও কোন কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। বিভিন্ন পাহাড়-ফসলি জমি কেটে প্রকাশ্য দিবালোকে ট্রাক্টরসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে মাটি কেটে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তাছাড়া বেশিরভাগ ইটের ভাটায় ব্যবহার করা হচ্ছে কম উচ্চতার টিনের ছিমনি। ইট ভাটার ধোঁয়ায় আশপাশের পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে।
কয়লা দিয়ে এসব ইটভাটাগুলোতে ইট পোড়ানোর কথা থাকলেও খরচ সাশ্রয়ের জন্য সরকারী নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে নির্ভয়ে প্রকাশ্যেই এসব ইট ভাটায় পোড়ানো হচ্ছে বন থেকে পাচার করে নিয়ে আসা মূল্যবান হচ্ছে শিশু গাছ। অনেকে গোপনে অবৈধভাবে কাঠ মজুদ করে চালিয়ে যাচ্ছে এ সমস্ত কার্যক্রম। এভাবে চলতে থাকলে দ্রæতই পার্শ্ববর্তী বনভূমি ও পরিবেশ ধ্বংস হয়ে যাবে বলে মত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের একজন অধ্যাপক জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, ফসলি জমি এবং পার্শ্ববর্তী পাহাড়ের মাটি এমনকি বন উজাড় করে শিশু গাছ পাচার করে নিয়ে লুকিয়ে এনে সরকারি নিয়মনীতি লঙ্ঘন করে ইট ভাটায় ইট তৈরি হচ্ছে। অনেকেরই নেই কোনো বৈধ লাইসেন্স। ইট ভাটার কাছাকাছি বাচ্চাদের কয়েকটি স্কুল এবং হাই স্কুল এবং কলেজ রয়েছে। বিশেষ করে শিশু শিক্ষার্থীরা এই ইটের ভাটার ধোঁয়ায় মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। এসব ইটের ভাটার কারণে পার্শ্ববর্তী অনেক জমিতেই এখন আর ফসল হয়না। স্থানীয় প্রশাসনকে এ বিষয়ে এগিয়ে আসার আহŸান জানান তিনি।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com