বিদায় মুক্তি কমান্ডার মোহাম্মদ আলী

বিদায় মুক্তি কমান্ডার মোহাম্মদ আলী

বিদায় মুক্তি কমান্ডার মোহাম্মদ আলী
বিদায় মুক্তি কমান্ডার মোহাম্মদ আলী

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হাজারো মুক্তিযোদ্ধার হৃদয়ের স্পন্দন হবিগঞ্জ জেলা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার এড. মোহাম্মদ আলী পাঠান চির নিদ্রায় শায়িত হলেন শহীদ পিতা কবরের পাশে।

আজ রোববার যোহর বাদ মাধবপুর পাইলট উচচ্ বিদ্যালয় মাঠে মুক্তিযোদ্ধা, প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক সহ সর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ তার জানাযায় নামাযে অংশ নেন।

পরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় ৭১’ এর রণাঙ্গনের এই বীর সেনানীকে বিহগুলের করুণ সুরে তার শৈশবের স্মৃতি বিজরিত মাধবপুর পৌর শহরের কৃষ্ণনগর গ্রামের শহীদ পিতা অহিদ হোসেন পাঠানের কবরের পাশে চির নিদ্রায় শায়িত করা হয়। দেশের বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মোহাম্মদ আলী পাঠান গত শনিবার সকালে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

রোববার সকালে তার ১ম নামাজে জানাযা তার প্রিয় কর্মস্থল হবিগঞ্জ জেলা বার লাইব্রেরী ও ২য় নামাজে জানাযা হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়।

পরে বাদ যোহর ৩য় নামাজে জানাযা মাধবপুর পাইলট উচচ্ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। মাধবপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এই বীর সেনানীকে রাষ্ট্রীয় মদার্যা প্রদান করা হয়।

এই অকতোভয় বীর সেনানীর মৃত্যুতে সমগ্র হবিগঞ্জ জেলা জুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার দীর্ঘদিনের রণাঙ্গণের সাথীকে হারানোর সংবাদে অনেকই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী পাঠান ১৯৫০ সালের ৩০শে জুন মাধবপুর উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালে শহীদ পিতা অহিদ হোসেনের হাত ধরে ছাত্র মোহাম্মদ আলী পাঠান সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রামে অংশ নেন। যুদ্ধেই পিতা অহিদ হোসেন শহীদ হন। দেশকে শত্র“ মুক্ত করতে ৩নং সেক্টরে তিনি মুক্তিযুদ্ধ করেন।

তিনি ২০১০ সাল থেকে একটানা কয়েক বছর জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কামন্ডার ছিলেন। তিনি কমান্ডার থাকা অবস্থায় হবিগঞ্জের অবহেলিত মুক্তিযোদ্ধাদের সুখ দুঃখের সাথী ছিলেন। শ্রেষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক হিসেবে দেশের মধ্যে তিনি সুনাম অর্জন করেন। ১৯৭০ সালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের জিএস নির্বাচিত হন। ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত তিনি ১ম ছাত্রলীগের মাধবপুর থানার সভাপতি ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি মাধবপুর থানা স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন। ১৯৭৪ সাল থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি হবিগঞ্জ সেক্টর কমান্ডার ফোরাম ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি ছিলেন।

মাধবপুর সেই সূর্য সন্তান মোহম্মদ আলী পাঠানের জানাজার পূর্ব মুহুর্তে তার প্রতি সম্মান দেখিয়ে বক্তব্য রাখেন নবীগঞ্জ-বাহুবলের সংসদ সদস্য শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কেন্দ্রীয় নেতা ক্যা. অব, কাজী কবির উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক মধু, আওয়ামীলীগ নেতা রহম আলী, মেয়র হিরেন্দ্র লাল সাহা, মুক্তিযোদ্ধা সুকোমল রায়, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সেলিম চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, চেয়ারম্যান ফারুক পাঠান প্রমুখ। তাঁর জানাযায় হবিগঞ্জ জেলার মুক্তিযোদ্ধা সহ আশপাশের কয়েকটি জেলার মুক্তিযোদ্ধা সহ কয়েক হাজার মুসল্লী জানাযায় অংশগ্রহণ করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com