বানিয়াচংয়ে পলো বাওয়া উৎসব

বানিয়াচংয়ে পলো বাওয়া উৎসব

বানিয়াচংয়ে পলো বাওয়া উৎসব

বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য পলো দিয়ে মাছ শিকার (পলো বাওয়া)। কালের পরিক্রমায় শুকিয়ে ভরাট হয়ে যাচ্ছে খাল-বিল আর নদী-নালা। আগের মতো আষাঢ়-শ্রাবণ এলেও নৌকায় পাল তুলে মাঝিদের গান শুনা যায় না। তবে এখনো বাঙালি গ্রামীণ সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যকে লালন করার চেষ্টা করছে গ্রামের মানুষ ।

সোমবার (২৭জানুয়ারি) সকাল সাড়ে এগারটায় বানিয়াচং উপজেলার ১০নং সুবিদপুর ইউনিয়নের আতুকুড়া ‘বড়আন বিলে’ পলো দিয়ে মাছ শিকার (পলো বাওয়া) উৎসব হয়েছে।

এ উৎসবে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে নানা বয়সের কয়েক’শ মানুষ পলো নিয়ে মাছ শিকারে অংশ নেন। বিভিন্ন জাতের মাছ ধরে আনন্দে আছেন সব বয়সের মানুষ। দিনভর বিভিন্ন গ্রাম থেকে আসা ছেলেবুড়ো সকলেই মেতেছিল পলো দিয়ে মাছ ধরার উৎসবে।

ভাটি উপজেলাখ্যাত বানিয়াচংয়ে রয়েছে নদী-নালা, খাল-বিল ও হাওর-বাওর। শীত মৌসুম হওয়ায় শুকিয়ে যাচ্ছে খাল বিলের পানি। এসব শুকনো জলাশয়ে প্রতি বছরের পৌষ মাস থেকে ফালগুণ মাস পর্যন্ত চলে সৌখিন মৎস্য শিকারীদের পলো বাওয়া উৎসব। সময়টা এলেই মাছ শিকারীরা ঐক্যবদ্ধভাবে দল বেঁধে উৎসবমুখর পরিবেশে পলো বাওয়া উৎসবে অংশ নেন। পলো বাওয়া উৎসবের বৈশিষ্ট্যই হলো দল বেঁধে পলো নিয়ে মাছ ধরা।

উৎসবের দিন নিজ নিজ পলো, হাতাজাল, উড়ালজালসহ নানা ধরণের মাছ ধরার জিনিসপত্র নিয়ে মাছ শিকরীরা মিলিত হন এই বড়আন বিলে।

অন্যদিকে এই উৎসবকে ঘিরে সৌখিন মাছ শিকারীরা গড়ে তুলেন বিভিন্ন সমিতি। এসব সমিতির সৌখিন মাছ শিকারীরা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে পলো বাওয়ার দিনক্ষণ নির্ধারণ করে পরে সবাইকে জানিয়ে দেন।

শৈল, গজার, বোয়াল,মাগুর মাছসহ নানা প্রজাতরি মাছ ধরা পড়ে পলো বাওয়া উৎসবে। পলো বাওয়া দেখতে আশেপাশের গ্রামের শতশত নারী পুরুষ ভীড় জমায় বড়আন বিলে।

মাছ শিকরী আব্দুল রহমান বলনে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে নদী-নালা ও খাল-বিলের তলদশে ভরাট হয়ে প্রতিনিয়িত পানি হ্রাস পাচ্ছে। এবং নদী দূষণসহ নানামুখী তৎপরতার কারণে মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্রগুলোর বেশির ভাগই বিনষ্ট হয়ে গেছে। নদী-খাল-বিল বেঁচে থাকলে বেঁবে থাকবে ঐতিহ্যবাহী এই পলো উৎসব।

মাছ শিকারী ইকবাল হোসেন বলেন- দীর্ঘকাল ধরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় আমরা গ্রামবাসী ঐক্যবদ্ধভাবে ওই উৎসবে অংশ নিয়ে থাকি। দিনে দিনে হারিয়ে যাওয়া বাঙালি ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে নদীমাতৃক প্রতিটি এলাকাতে ই যেন এই ঐতিহ্যবাহী পলো বাওয়া উৎসবের আয়োজন করা হয় সেই দাবি জানান তিনি।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জাল সোহেল বলেন- প্রভাভশালী মহলের কেউ কেউ খাল, বিল, নদী-নালা, জলাশয় ভরাট করে ফেলছেন। এতে যেমন পরিবেশের উপর মারাত্মক ঝুঁকি পড়ছে তেমনি হারিয়ে যাচ্ছে দেশিয় প্রজাতির মাছ। মাছ ধরার এই উৎসবকে বাঁচিয়ে রাখতে নদী রক্ষার দাবী জানান পরিবেশ রক্ষা আন্দোলনের এই নেতা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com