সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
বাংলাদেশকে বদলে দেবে শত বছরের ডেল্টা প্ল্যান: ড. শামসুল আলম

বাংলাদেশকে বদলে দেবে শত বছরের ডেল্টা প্ল্যান: ড. শামসুল আলম

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্ক:ড. শামসুল আলম। দীর্ঘ ১২ বছর পরিকল্পনা কমিশনের সিনিয়র সচিবের পদমর্যাদার দায়িত্ব পালন শেষে বর্তমান সরকারের পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ইতোমধ্যে দেশের ৫ম, ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার মত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই প্রফেসর। একুশে পদকপ্রাপ্ত এই পরিকল্পনাবিদের হাত ধরে বাংলাদেশের একশো বছরের ডেল্টা প্ল্যান বা বদ্বীপ পরিকল্পনা রচিত হয়েছে। দেশের ভবিষ্যৎ রূপরেখা, হাল আমলের শিক্ষকদের রাজনীতিসহ নানান ইস্যুতে খোলামেলা কথা হয়েছে দৈনিক ইত্তেফাক অনলাইনের সঙ্গে। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন অনলাইন সাব-এডিটর কে এম মাহ্ফুজুর রহমান মিশু।

 

 করোনাকালকে কিভাবে অর্থপূর্ণ করা যায়?

 

প্রতিমন্ত্রী: প্রথমত, স্বাস্থ্যবিধি পালনে জনগণকে আরও বেশি উদ্বুদ্ধ করতে হবে। দ্বিতীয়ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে যতটা সম্ভব শিল্প-কলকাখানা, কৃষিসহ অন্যান্য উৎপাদন কার্যক্রম চালু রাখা। যত দ্রুত সম্ভব জনগণকে ভ্যাকসিনের আওতায় নিয়ে আসা। যেহেতু বিষয়টি সময় সাপেক্ষ তাই মাস্ক পরিধানের বিকল্প নেই। সরকারের তরফ থেকে এই কার্যক্রম সফলতার সঙ্গে দ্রুত এগিয়ে নিতে জনগণের পক্ষ থেকে সহযোগিতা থাকা দরকার। যারা সমাজকর্মী, রাজনৈতিক দলের নেতা, স্বেচ্ছাসেবী, এনজিওকর্মী সবাইকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সম্মিলিতভাবে এগিয়ে আসতে হবে।

 

পৃথিবীর দুর্যোগপূর্ণ ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ সপ্তম অবস্থানে। প্রাকৃতিক এসব দুর্যোগ মোকাবিলায় সরকারের দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা আছে কি?

 

প্রতিমন্ত্রী: আইপিসিসির প্রতিবেদন অনুসারে পৃথিবীর দশটি দুর্যোগপূর্ণ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ সপ্তম অবস্থানে। দুর্যোগপ্রবণ আমাদের দেশে ভঙ্গুরতার মাত্রা অত্যধিক। বছরে প্রায় সময়ই আমরা বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাসসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগের মুখোমুখি হতে হয়। ক্রমান্বয়ে সারা পৃথিবীতে উষ্ণতা বেড়ে যাচ্ছে। এতে আমাদের দেশের ভঙ্গুরতার মাত্রা আরও বাড়ছে। কাজেই এদিক থেকে প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি টেকসই করা এবং নেদারল্যান্ডসের মতো একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণে আমাদেরকে নির্দেশনা প্রদান করেন। সেই নির্দেশনা মোতাবেকই সারাদেশে খালবিল, নদী, হ্রদ, হাওর রক্ষা ও সুপেয় পানির প্রাপ্যতা ও নদী ভাঙন রোধের লক্ষে নেওয়া হয়েছে বদ্বীপ পরিকল্পনা।

 

 

 

No description available.

 

 

 

থিবীর ইতিহাসে নেদারল্যান্ডসের পরেই দ্বিতীয় দেশ হিসেবে একশো বছরের পরিকল্পনা আপনার হাতে তৈরি হয়েছে। বদ্বীপ বা ডেল্টা এই পরিকল্পনার ব্যাপারটা যদি ব্যাখ্যা করতেন-

 

প্রতিমন্ত্রী: বাংলাদেশ নেদারল্যান্ডসের পরেই একমাত্র দেশ। পৃথিবীর দশটি বদ্বীপ বা অঞ্চল রয়েছে। বদ্বীপ বৈশিষ্ট্যের এই দশটি দেশের মধ্যে নেদারল্যান্ড ছাড়া বাংলাদেশই প্রথম এ ধরনের দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করে। বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা এটি ব্যতিক্রমী কারিগরি ও অর্থনৈতিক পরিকল্পনা। এটি আগামী একশত বছর ধরে আমরা বাস্তবায়ন করতে থাকবো। তবে প্রত্যেক দশ বছর পরপর এটাকে আমরা হালনাগাদ করবো। এই পরিকল্পনায় আমরা প্রাধান্য দিয়েছি, নদনদীগুলোকে পুনরুদ্ধার, এগুলোকে বহমান রাখা, খালবিলগুলো পুনরুদ্ধার করা, জলাবদ্ধতা নিরসন বন্ধ হওয়া হাওরগুলো সংরক্ষণ, পানি প্রবাহকে নিশ্চিতকরণ করা, কলকারখানা থেকে যে দূষিত পানি বের হয় সেটি বন্ধ করে ফসলী জমি নষ্ট না করতে পারে সেই বিষয়টির উপর আমরা গুরুত্বারোপ করেছি। উপকূল অঞ্চলগুলো জলোচ্ছ্বাস থেকে বাঁচার জন্য যে বেড়িবাঁধ তৈরি হয়েছে সেগুলোকে আরও বেশি টেকসইকরণের জন্য বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনায় পরামর্শ রাখা হয়েছে।

সামান্য বৃষ্টিতেই শহর অঞ্চল গুলোতে জলাবদ্ধতা দেখা যায়। রাস্তাঘাটে পানি বেড়ে ৩/৪ ফুট হয়ে যায়। কাজেই প্রত্যেকটি শহরকে জলাবদ্ধতামুক্ত করার জন্য আমরা ড্রেন গুলোকে সচলকরণ, শহরের চারপাশে যে জলপথগুলো আছে সেগুলোকে দূষণমুক্তকরণ। আমরা দেখেছি- চলনবিল এলাকায় অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ নদী হত্যা করে ফেলেছি। এর সঙ্গে সংযুক্ত খালগুলোকে দখল করে বন্ধ করে দিয়েছি। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক।

প্রফেসর থেকে প্রতিমন্ত্রী। দেশের ইতিহাসে এমন ঘটনাই প্রথম। নতুন এই দায়িত্ব প্রাপ্তিকে কিভাবে দেখছেন?

প্রতিমন্ত্রী: অধ্যাপক হিসেবে নিয়োজিত ছিলাম প্রায় ৩৫ বছর। এর মধ্যে ২৯/৩০ বছর সরাসরি শিক্ষকতা আর ১২ বছর পরিকল্পনা কমিশনে। তো ওখান থেকে আমার পেনশন হয়ে যাওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তো আর ছুটি নেওয়ার প্রয়োজন হয় না। তারপর থেকেও পরিকল্পনা কমিশনে আছি। মোট ১২ বছর অতিক্রান্ত হলো। এই দীর্ঘ সময়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি জাতীয় দলিল আমরা তৈরি করেছি। বাংলাদেশ একটি পরিকল্পনা মাফিক দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে একটি নতুন দিগন্তের উদ্ভব হয়েছে ২০০৯ এর পর থেকে। নতুন দিগন্ত এ কারণে বলছি- ২০০২ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত কোনো পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা ছিল না। আমরা পরিকল্পনাবিহীন কাটিয়েছি প্রায় ১০টি বছর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয় বারের মতো ক্ষমতায় আসে ২০০৯ সালে। আবার পরিকল্পনা পদ্ধতিতে ফিরে গেলাম। প্রধানমন্ত্রী শুধু পরিকল্পনা ৫ বছরের গ্রহণ করলেন তাই নয়, বাংলাদেশ ৫০ বছর পর কোথায় থাকবে, আর্থ সামাজিক ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ঠিক করা হলো ২০১০ সালে, ২০১০ থেকে ২০২১ পর্যন্ত। যেখানে বলা হয়েছে- আমরা মধ্য আয়ের দেশ হবো। যেখানে বলা হয়েছে আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবো। যেখানে বলা হয়েছে আমাদের প্রত্যাশিত গড় আয়ু নিয়ে যাবো ৭২ এর উপরে। প্রত্যেক ঘরে বিদ্যুৎ যাবে। স্কুল এনরোলমেন্ট প্রায় ১০০ তে উন্নীত করবো। আমরা প্রবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশের উপরে নিয়ে যাবো ২০১৫ এর মধ্যে। একটা ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা (২০১১-২০১৫) আরেকটি সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রণীত হবে ২০১৬-২০২০ মেয়াদে।

 

 

 

No description available.

আমাদের সৌভাগ্য যে আমরা এ লক্ষ্যগুলো অর্জন করেছি। আমরা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক ক্ষেত্রে জেন্ডার সমতা আনয়ন করবো একথাও বলেছি। তো এভাবে অনেকগুলো সূচক অর্জিত হয়েছে। বেশির ভাগ সূচক অর্জন করে আমরা মাথাপিছু আয়ে ভারত এবং পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছি। এবং এটা সম্ভব হয়েছে সুপরিকল্পনা সামনে থাকার জন্য। একটি সুপরিকল্পনা সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা স্থির করে। সম্পদের বণ্টন এবং বাজেটিং আমরা সেভাবেই করেছি এবং দ্রুত আমরা আর্থসামাজিকভাবে এগিয়ে গিয়েছি। দ্রুত প্রবৃদ্ধির কারণ হলো উপযুক্ত পরিকল্পনা আমাদের হাতে থাকা। উপযুক্ত দূর লক্ষ্য আমাদের সামনে থাকা। এ প্রত্যেকটি গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা প্রণয়নে আমি নেতৃত্ব দিয়েছি। শুধু ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা নয় আমরা প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০১০-২০২১ এবং ভিশন ২০৪১ এর ভিত্তিতে দ্বিতীয় প্রেক্ষিত পরিকল্পনা তৈরি করেছি।

আগামী ৪১ সালের মধ্যে আমাদের দেশ উন্নত দেশ হবে। ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ হবো। আমাদের সুনির্দিষ্ট পথচিত্র তৈরি করে রেখেছি। ক্রমান্বয়ে আমরা একটা উন্নত দেশের দিকে যাবো। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবো। এখন আরও সৌভাগ্য হলো যে পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি সেগুলো বাস্তবায়নে সরাসরি অংশ নেওয়ার সুযোগ হলো প্রতিমন্ত্রী হিসেবে। এটিও আমার মনে হয় একটি বিরল সৌভাগ্য। অধ্যাপনা থেকে পরিকল্পনাবিদ। প্রধানমন্ত্রীকে অশেষ কৃতজ্ঞতা।

 

 

 

No description available.

 

 বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপনাকালে কৃষকের দুঃখ সুখ নিয়ে গবেষণাপত্র প্রণয়ন করেন। কৃষি প্রধান দেশে কৃষকদের ভাগ্যন্নোয়নে এমন বিস্তর কাজ এর আগে কখনো হয়নি। এ ব্যাপারে যদি কিছু বলতেন-

 

 

 

প্রতিমন্ত্রী: আমার মাস্টার্স ডিগ্রির গবেষণাপত্র কৃষকের উৎপাদন কার্যক্রমে দক্ষতা অদক্ষতা দেখেছি। সেখানে কৃষকের উৎপাদন ব্যবস্থা কৃষকের আয় ব্যয় এবং সমস্যা তাদের চাওয়া পাওয়া বুঝবার একটা অপূর্ব সুযোগ হয়েছে এই গবেষণাপত্রের মাধ্যমে। শুধু তাই নয় আমার পিএইচডি গবেষণাও কিন্তু এই কৃষি অর্থনীতি নিয়ে। সেটা সারাদেশে কৃষি পণ্যের দামের ওঠানামার সঙ্গে কৃষকরা কিভাবে সাড়া দেয়? কিভাবে এটা মোকাবিলা করে? কৃষকদের উৎপাদন আচরণ আর বাজার মূল্যে ওঠানামা সংযোগ দেখিয়েছি এই গবেষণায়।

: শ্রেণি কক্ষের পাঠদান থেকে কাজের মাঠের একটা সংযোগ স্থাপন অনন্য ব্যাপার। এমন কাজের পিছনে কি কোনো অনুপ্রেরণা ছিলো?

ইত্তেফাক: শিক্ষা এবং মাঠের প্রাত্যহিক জীবন এবং ব্যবহারিক জীবনের প্রচণ্ড সংযোগ ছিল। তাত্ত্বিক জীবনের সঙ্গে ব্যবহারিক জীবনের একটা সুন্দর সংযোগ আমি আমার গবেষণার মধ্যে স্থাপন করতে পেরেছি। সারা বাংলাদেশে আমি বিভিন্ন সময়ে এই গবেষণাগুলো ছাড়াও অনেক সংস্থার সঙ্গে জড়িত ছিলাম। ‘কেয়ারের’ মার্কেটিং ও ফাও মার্কেটিং স্পেশালিস্ট হিসেবে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের বাজার ব্যবস্থাকে ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ মূল্যায়ন করার সুযোগ পেয়েছিলাম এবং সেগুলো আমার ব্যক্তি জীবনে অভিজ্ঞতার বিশাল ভাণ্ডার। সেজন্য পরিকল্পনা জগতে এসে পরিকল্পনা প্রণয়নে তত্ত্বের সঙ্গে বাস্তবের অনেকটা সমন্বয় করতে পেরেছি।

সাফল্যের রেসিপি কি? হাল আমলের শিক্ষকদের রাজনীতির ব্যাপারে যদি কিছু বলতেন-

 

প্রতিমন্ত্রী: সফলতার রেসিপি একটা হলো সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে সততার সঙ্গে কাজ করে যাওয়া এবং দেশের স্বার্থকে সামনে রাখা। গবেষণার সঙ্গে যদি শিক্ষকরা যুক্ত না থাকেন, জ্ঞানকে যদি সব সময় হালনাগাদ না করেন এবং তত্ত্বকে বাস্তবের সঙ্গে খাপ না খাওয়ান তাহলে তিনি সত্যিকার শিক্ষক হয়ে ওঠেন না। কাজেই একজন শিক্ষক শিক্ষকতার পাশাপাশি একজন ভালো গবেষক হতে হবে। দলভিত্তিক সরাসরি রাজনীতি করা উচিত না। রাজনৈতিক মিটিংয়ে গিয়ে বসে থাকা যাবে না। আংশিক শিক্ষক, আংশিক রাজনীতিক হলে গবেষণার জন্য যে একান্ত সময় দরকার সেটি কিন্তু পাওয়া যাবে না। একই সঙ্গে রাজনৈতিক সংগঠনের সঙ্গে সরাসরি কোনো পদ-পদবী গ্রহণ করাটাও সমীচীন নয়। আমি শিক্ষক। শিক্ষকতায় ছাত্রদের শ্রদ্ধা পেতে হলে, তাদের সম্মান পেতে হলে পূর্ণভাবে একজন আদর্শিক তবে নিরপেক্ষ মানুষ হতে হবে।

 

সরকারের সেবা খাত নিয়ে যদি কিছু বলতেন-

প্রতিমন্ত্রী: আমাদের অর্থনীতির সবচেয়ে বড় খাত হচ্ছে সেবা খাত। কৃষি খাত বড়। অনেক লোক জড়িত। এখন কৃষি খাতের চেয়ে সেবা খাত বড় হয়ে যাচ্ছে। আগে কৃষিতে শ্রমিক বেশি ছিল এখন কৃষি ক্ষেত্রে শ্রমিক কমে গেছে, সেবা খাত বড় হচ্ছে।

: শিক্ষিত বেকারদের জন্য আপনার পরামর্শ কি?

প্রতিমন্ত্রী: সবাইকে তো চাকরি সরকার দিতে পারবে না। এ নিয়ে পরিকল্পনা আছে। শহর ও গ্রামাঞ্চলে এমনভাবে অবকাঠামো গড়ে তোলা যাতে যে কেউ চাইলে উদ্যোক্তা হতে পারে এমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা। শহর ও গ্রামের যোগাযোগ সংযোগ অনেক বেড়েছে, বিদ্যুতায়ন হয়েছে। এক্ষেত্রে সরকার অনেকখানি কাজ করেছে। সবাইকে উদ্যোক্তা হতে হবে। দেশ হতে হবে রপ্তানি প্রধান দেশ।

 

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com