সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
বছরে সরকারের রাজস্ব ক্ষতি ২২০ কোটি টাকা

বছরে সরকারের রাজস্ব ক্ষতি ২২০ কোটি টাকা

http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্ক:ভিওআইপির চোরাচক্র এখন কর্তৃপক্ষের ভুল ধারণার কারণে নজরদারির বাইরে। ওটিটি (ওভার দ্য টপ) বা হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার, মেসেঞ্জার, ইমো, স্কাইপ—এসব ইন্টারনেটভিত্তিক যোগাযোগ প্ল্যাটফর্মের কারণে প্রচলিত পথে আন্তর্জাতিক ভয়েস কল আসা কমে গেছে—এমন প্রচারে সুযোগ নিচ্ছে তারা। এ প্রচারের কারণে খোদ ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ধারণা, প্রযুক্তির দ্রুত উন্নয়নের পথ ধরে প্রচলিত ভিওআইপির কারবার এমনিতেই বন্ধ হয়ে যাবে। এ নিয়ে আর বেশি ভাবার প্রয়োজন নেই। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিও গত পাঁচ অথবা ছয় মাসে কোনো অভিযান চালায়নি। করোনা পরিস্থিতি, লকডাউন—এসব বলে অলস সময় পার করছেন বিষয়টি সম্পর্কে বিটিআরসির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা।

খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, কর্তৃপক্ষের এই ভুল ধারণার সুযোগ নিয়ে ভিওআইপির চোরাচক্র নির্বিঘ্নে তাদের কারবার চালিয়ে যাচ্ছে। সরকার বঞ্চিত হচ্ছে প্রাপ্য রাজস্ব থেকে। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির একজন কর্মকর্তা জানান, ওটিটি ও ভিওআইপির চোরাকারবারের কারণে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ইন্টারন্যাশনাল কল টার্মিনেশন রেট (আইসিটিআর) কমিয়ে প্রতি মিনিট মাত্র ০.০০৬ মার্কিন ডলার বা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৫১ পয়সা করা হয়। কিন্তু তাতেও সুফল পাওয়া যায়নি। এই কম রেটেও বিদেশ থেকে আসা কলের পরিমাণ বাড়েনি। সরকার ভিওআইপির অবৈধ কারবারের কারণে মাসে ১৮ কোটি টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে। বছরে যার পরিমাণ ২২০ কোটি টাকারও ওপরে। এ ছাড়া শুধু রাজস্ব ক্ষতি নয়, বিষয়টি রাষ্ট্রের ও রাষ্ট্রের নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য প্রতিকূল।

বিটিআরসির ১৯১তম সভায় উত্থাপিত কার্যপত্রের হিসাব অনুসারে ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত ইন্টারন্যাশনাল কল টার্মিনেশন রেট (আইসিটিআর) প্রতি মিনিট সর্বনিম্ন তিন সেন্ট ও সর্বোচ্চ পৌনে চার সেন্ট থাকার সময় দেশে প্রতিদিন আন্তর্জাতিক কল আসত গড়ে পাঁচ কোটি ৩১ লাখ মিনিট। ওই সময়ে সরকারের রাজস্ব প্রাপ্য হয় প্রতিদিন গড়ে সাত কোটি ১৭ লাখ টাকা।

এরপর এ খাত থেকে রাজস্ব আয়ে শৃঙ্খলা আনতে এবং ভিওআইপির অবৈধ কারবার বন্ধের লক্ষ্যে ইন্টারন্যাশনাল গেটওয়ে (আইজিডাব্লিউ) অপারেটরদের সংগঠন ‘আইওএফ’-এর প্রস্তাবে ২০১৫ সালে ২৪ জুন থেকে আইসিটিআর কমিয়ে সর্বনিম্ন দেড় সেন্ট করা হয়। আগে সরকার রাজস্ব ভাগ পেত ৫১.৭৫ শতাংশ, সেটাও কমিয়ে ৪০ শতাংশ করা হয়। প্রথম দিকে এর সুফল মেলে। ওই সময় বিদেশ থেকে আসা কলের পরিমাণ দিনে প্রায় ১১ কোটি মিনিটে পৌঁছায়। তবে রাজস্ব ভাগ কমানোর ফলে সরকারের রাজস্বপ্রাপ্তি দিনে সাত কোটি টাকা থেকে ছয় কোটি টাকায় নেমে আসে। এরপর আইওএফ নিজেদের সিদ্ধান্তে বিদেশ থেকে প্রতি মিনিট দুই সেন্ট করে কল আনতে শুরু করলে প্রতিদিন আসা কলের সংখ্যাও সাড়ে ৯ কোটি মিনিটে নেমে আসে। আর সরকারের রাজস্ব পাওনার পরিমাণ দিনে ছয় কোটি টাকায় কমে আসে এবং কল কমে যাওয়ার এ নিম্নগতি অব্যাহত থাকে।

বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে কী পরিমাণ আন্তর্জাতিক কল দেশে আসছে—এ প্রশ্নে বিটিআরসির একজন কর্মকর্তা জানান, গড়ে প্রতিদিন দুই কোটি মিনিটেরও কম আসছে।

আইজিডাব্লিউ অপারেটরস ফোরামসের (আইওএফ) সঙ্গে সশ্লিষ্ট এক সূত্রে জানা যায়, বৈধ পথে প্রতিদিন গড়ে দুই কোটি মিনিট কল আসছে। তবে আরো তিন কোটি মিনিট আসছে ভিওআইপির চোরাচক্রের মাধ্যমে অবৈধ পথে। আইজিডাব্লিউ অপারেটরদের পক্ষ থেকে জোর দিয়েই বলা হচ্ছে, প্রচলিত ভিওআইপি কলের চাহিদা এখনো ব্যাপক। হেয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক, মেসেঞ্জার ইত্যাদির মাধ্যমে কথা বলতে হলে উভয় প্রান্তেই স্মার্ট ফোন ব্যবহার করতে হবে। একই সঙ্গে প্রয়োজনীয় গতির ইন্টারনেট সংযোগও থাকতে হবে। কিন্তু দেশে স্মার্ট ফোনের ব্যবহার এখনো অনেক কম। ইন্টারনেট সব এলাকায় সহজলভ্য নয়।

প্রচলিত ভিওআইপি কলের চাহিদা যে কমেনি তা বিটিআরসি ও র‌্যাবের সর্বশেষ অভিযানই তার প্রমাণ।

চলতি বছর সর্বশেষ গত ৩ ও ৪ ফেব্রুয়ারি বিটিআরসি ও র‌্যাবের অভিযানে রাজধানী ঢাকার নিউ মার্কেট, তুরাগ ও শাহ আলী থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে যেসব ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়, তার মাধ্যমে প্রতিদিন আনুমানিক প্রায় ছয় লাখ মিনিট আন্তর্জাতিক কল অবৈধভাবে দেশে টার্মিনেট করা সম্ভব বলে বিটিআরসির কর্মকর্তা দাবি করেন। এ ছাড়া তাঁরা বলেন, ‘এতে দৈনিক প্রায় তিন লাখ টাকা এবং বছরে প্রায় ১০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া সম্ভব হতো।’

কিন্তু ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের ধারণা ভিন্ন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ওই অভিযানের পর আরো কয়েক মাস পার হয়েছে। পরিস্থিতি দ্রুত পাল্টাচ্ছে। গ্রামের মানুষের কাছেও স্মার্ট ফোন পৌঁছে গেছে। সাধারণ ফিচার ফোনে ভয়েস কলের যুগ শেষ। আইজিডাব্লিউ, ভিএসপি (ভিওআইপি সার্ভিস প্রোভাইডার)—এসবের প্রয়োজনীয়তাও দ্রুত শেষ হয়ে যাবে।

এদিকে আইজিডাব্লিউ অপারেটরস ফোরামস সংশ্লিষ্ট একজন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভিওআইপির অবৈধ কারবার শুধু সরকারের রাজস্ব ফাঁকির কারণ নয়। দেশের নিরাপত্তার জন্যও হুমকি। ভিওআইপির অবৈধ কলের মাধ্যমে হুমকি, চাঁদাবাজিও চলছে। বিদেশে বসে কোনো সন্ত্রাসী দেশে কাউকে এর মাধ্যমে ফোন করলে বোঝার উপায় নেই যে এটা বিদেশ থেকে আসা কল। অবৈধ এ কারবারে ব্যবহার হওয়া কোন অপারেটরের মোবাইল সিমের নম্বর থেকে কল আসছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে টেলিটকের নম্বর থেকেই এসব ফোন আসে। মনে হয় স্থানীয় কল। অবৈধ ব্যবহারের কারণে ওই কল শনাক্ত করা যায় না। রাষ্ট্রের ও রাষ্ট্রের নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য সিম নিবন্ধনের যে ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে, চোরাচক্র সে ব্যবস্থারও বিপক্ষে।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে র‌্যাব ও বিটিআরসির অভিযানে ভিওআইপির অবৈধ কারবারে টেলিটকের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ মিলছে। কিন্তু ওই প্রমাণের ভিত্তিতে তেমন কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। কারা, কোন চক্র টেলিটককে দীর্ঘদিন ধরে অপরাধমূলক কাজে ব্যবহার করে আসছে তা চিহ্নিত হচ্ছে না। কয়েক বছর ধরে ‘শারুন-সাহাব’ সিন্ডিকেটের কথা এ খাতসংশ্লিষ্ট সবার মুখে মুখে। কিন্তু বিটিআরসির তদন্ত এসব মাস্টারমাইন্ডদের কাছ পর্যন্ত পৌঁছায় না।

এদিকে টেলিটকের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযোগ সম্পর্কে এ সরকারি মালিকানাধীন এ মোবাইল ফোন অপারেটরের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সাহাব উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, তিনি ভিওআইপি অবৈধ ব্যবসার বিষয়ে কিছুই জানেন না। শারুন নামেও কাউকে তিনি চেনেন না।লোকালয় ডেস্ক

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com