বঙ্গোপসাগরে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

বঙ্গোপসাগরে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

বঙ্গোপসাগরে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ
বঙ্গোপসাগরে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে বঙ্গোপসাগরে জালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালি ইলিশ। ইলিশে ভরে গেছে উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের হাট-বাজার। নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে কাঙ্ক্ষিত রুপালি ইলিশ ধরা পড়ায় হাসি ফুটেছে জেলে, আড়তদার ও মাছ ব্যবসায়ীদের মুখে। গভীর সমুদ্রে থাকা ইলিশ বোঝাই ট্রলারগুলো ভিড়ছে বাগেরহাটের প্রধান মাছের আড়ত কেবি বাজারে। কেবি বাজারের জেলে, আড়তদার ও ব্যবসায়ীরা পার করছেন ব্যস্ত সময়।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকালে সরেজমিন কেবি বাজারে দেখা যায়, সাগর থেকে ইলিশ বোঝাই করে ভিড়েছে ১০টি ট্রলার। ইলিশভর্তি এসব ট্রলার কেবি বাজারের সামনে দিয়ে বয়ে যাওয়া দাড়াটানা নদীর ঘাটে সারিবদ্ধভাবে নোঙর করে রাখা হয়েছে। এসব ট্রলার থেকে নামানো হচ্ছে ইলিশ। কেউ ইলিশ মাছের ঝুড়ি টানছেন, কেউ প্যাকেট করছেন, আবার কেউ কেউ সেই প্যাকেট দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠাতে তুলে দিচ্ছেন ট্রাকে।

বাগেরহাটের খুচরা মাছবাজার ঘুরে দেখা গেছে, নিষেধাজ্ঞার সময় অনেক দোকান বন্ধ ছিল। আবার তারা দোকান খুলে বসেছেন। ইলিশের পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় মাছের দাম কম। সাড়ে চারশ’ থেকে পাঁচশ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৫৫০ টাকায়। ছয়শ’ থেকে সাড়ে সাতশ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৬৫০ টাকা থেকে ৭০০ টাকায়। এছাড়া সাড়ে আটশ’ থেকে নয়শ’ গ্রামের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৯শ’ থেকে এক হাজার টাকা মধ্যে।

দাড়াটানা নদীর ঘাটে নোঙর করা ট্রলারের জেলে মোতাহার গাজী বলেন, ‘৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা থাকায় পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করতে হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে ভালোই ইলিশ ধরা পড়ছে। তাই জেলেরা অনেক খুশি।’ আরেক জেলে মোতাহার হোসেন জানান, ‘জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাগরে যেতে হয় মাছ ধরতে। যেখানে মোবাইল ফোন নেটওয়ার্কসহ কোনও যোগাযোগের ব্যবস্থা নেই। নিষেধাজ্ঞার পর জালে বেশি মাছ ধরা পড়ছে।’

ইলিশ বিক্রেতা মোমিন মিয়া বলেন, ‘এতদিন বাজারে মাছও ছিল না, ক্রেতাও ছিল না। এখন বাজারে ইলিশের সরবরাহ ভালো। দামও অনেক সস্তা। মানুষ এবার মাছ কিনে খেতে পারবে।’

বাগেরহাট কেবি বাজার মৎস্য আড়তদার সমিতির সভাপতি এসএম আবেদ আলী জানান, দীর্ঘদিনের নিষেধাজ্ঞা থাকায় জেলেরা পরিবার-পরিজন নিয়ে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করেছে। অপেক্ষা শেষে এখন জেলেদের জালে মাছ পড়তে শুরু করছে। মাছের সাইজও মোটামুটি ভালো। তবে নিয়মিত বৃষ্টি হলে আরও ভালো সাইজের বড় বড় ইলিশ ধরা পড়বে বলে তিনি জানান।

বাগেরহাট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মো. খালেদ কনক বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞার সুফল জেলেরা পেতে শুরু করেছেন। সাগরেও মাছ ধরা পড়ছে। আগামীতে জেলায় ইলিশ আরও বেশি পাওয়া যাবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com