সংবাদ শিরোনাম :
দশ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী বাহুবলে বেকারিতে অনুমোদনবিহীন বিএসটিআই লোগো ব্যবহার ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু হবিগঞ্জ এসে পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শীতবস্ত্র হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমেছে ১৭.৯৬ শতাংশ, ফেল বেশি মানবিকে : হবিগঞ্জে পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির  সভা অনুষ্ঠিত  মাধবপুরে নবাগত ইউএনওর মতবিনিময় সভা  মৎস্য কর্মকর্তার ডিজিটাল আইনের মামলায় দুই সাংবাদিকের জামিন মঞ্জুর
ফুসকা কর্মচারী নিজাম হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার

ফুসকা কর্মচারী নিজাম হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের নিউ মুসলিম কোয়ার্টারের আলোচিত কুদরত মঞ্জিলে ফুসকা কর্মচারী নিজাম উদ্দিন হত্যা মামলার অন্যতম আসামি চোরা জামাল (৩৫) কে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ। গত সোমবার সদর থানার একদল পুলিশ সাড়াশি অভিযান চালিয়ে ওই এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। সে ওই এলাকার ছিদ্দিক আলীর পুত্র। পুলিশ জানায়, গত বছরের ১২মার্চ রাতে কুদরত মঞ্জিলে একটি ব্লেকমেইলের ঘটনা নিয়ে নিজামকে হত্যা করে লাশ ফেলে রাখা হয়। এ ঘটনায় নিজামের পিতা মামলা করলে নিউ মুসলিম কোয়ার্টার এলাকার বাসিন্দা মৃত কুদরত আলীর পুত্র আমেরিকা প্রবাসী হানিফ উল্লা (৩৫) ও তার স্ত্রী আমেরিকা প্রবাসী রুমানা আক্তার (৩০) কে ঢাকা শাহজালাল (রঃ) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইমিগ্রেশন পুলিশ গ্রেফতার করে। এ মামলায় চোরা জামালও অন্যতম আসামি। সে দীর্ঘদিন পলাতক ছিলো। ওই দিনই তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়।
প্রসঙ্গত, আমেরিকা প্রবাসী হানিফ উল্লার শহরের নিউ মুসলিম কোয়ার্টার এলাকার বাসায় ভাড়া থাকতো কলেজ রোডের ঢাকা ফুসকা হাউজের শ্রমিক নিজাম উদ্দিন। একই বাসায় বসবাস করতেন মালিক হানিফ উল্লাহ। এ সুবাধে হানিফের স্ত্রীর গোপন ভিডিও ধারণ করে তাকে ব্লেকমেইল করে নিজাম। বিষয়টি স্ত্রী রোমানা তার স্বামীকে জানালে নিজামকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। গত বছরের ১২মার্চ সন্ধ্যার পর নিজামের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় গত ১৫ মার্চ নিজাম উদ্দিনের পিতা ইমাম উদ্দিন বাদি হয়ে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় আমেরিকা প্রবাসী হানিফ উল্লা, তার স্ত্রী আমেরিকা প্রবাসী রুমানা আক্তার, বানিয়াচং উপজেলার বিথঙ্গল গ্রামের যুদ্ধাপরাধী মামলায় কারাগারে থাকা সাবেক চেয়ারম্যান মধু মিয়ার পুত্র হাফিজ ও হাবিব মিয়া এবং জামালের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলার বাদি মারা যান। এদিকে মামলাটি মোটা অংকের টাকা দিয়ে হানিফ উল্লা আপোষ করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com