পানি সংগ্রহ করতে ৩ কিলোমিটার !!

পানি সংগ্রহ করতে ৩ কিলোমিটার !!

পানি সংগ্রহ করতে ৩ কিলোমিটার !!
পানি সংগ্রহ করতে ৩ কিলোমিটার !!

বার্তা ডেস্কঃ রাঙামাটির কাউখালী উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের চেলাছড়া উপরপাড়ার গৃহবধূ সূচনা চাকমার (৩৮) ঘরের দেড় শ গজ দূরেই পাহাড়ি ছড়ায় পানি মিলত। গত বছরের ১৩ জুন পাহাড়ধসে ছড়ার পানির প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। এখন পানি সংগ্রহ করতে যেতে হয় আড়াই থেকে তিন কিলোমিটার দূরে। তাঁর পরিবারের পাঁচ সদস্যের দৈনিক অন্তত ২০ কলসি পানির প্রয়োজন হয়। ন্যূনতম চাহিদার মেটানোর পানি জোগাড় করতেই লেগে যায় ছয় থেকে সাত ঘণ্টা।

কেবল সূচনা চাকমা নন, একই গ্রামের গৃহবধূ নিপা চাকমা ও শান্তি দেবী চাকমার গল্পও একই। তাঁদেরও এভাবেই কষ্ট করে প্রতিদিন পানি সংগ্রহ করতে হয়। রাঙামাটি শহর থেকে ২৬ কিলোমিটার দূরে চেলাছড়া উপরপাড়ার ৪০টি পরিবারই পানির সংকটে ভুগছে। যে চেলাছড়ার নামে পাড়ার নামকরণ করা হয়েছে সেটি গত বছরের ১৩ জুন পাহাড়ধসে ভরাট হয়ে যায়। তবে এরপরও মাটি চাপা পড়া ছড়ায় কুয়া খনন করে পানি সংগ্রহ করত গ্রামবাসী। কিন্তু এখন কুয়া খনন করেও পানি মিলছে না। পাড়ার দুই থেকে আড়াই কিলোমিটার দূরে ছড়ার শেষ প্রান্তে কেবল কিছুটা পানি রয়েছে। সেখান থেকেই এখন পানি সংগ্রহ করছে গ্রামবাসী। শুষ্ক মৌসুম শুরু হওয়ার পর থেকে ওই গ্রামের পানির সংকট তীব্র হয়। ওই এলাকায় চেলাছড়ার পাশাপাশি বাদলছড়ি ছড়া, ঘাগড়াছড়াসহ অন্তত ২৫টি ঝিরি-ঝরনা ভরাট হয়ে গেছে।

সাপছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জেলা সদর উপজেলার সাপছড়ি ইউনিয়নে নাড়াইছড়ি, মোনতলা এলাকায় কুতুকছড়ি ছড়া, সাপছড়ি, ডুলুছড়ি, শুকরছড়ি ও মানিকছড়ির অন্তত ২৫ থেকে ৩০টি ঝিরি-ঝরনা ভরাট হয়ে গেছে। এসব ঝিরির আশপাশে কয়েক শ পরিবার বসবাস করে। তাদের একমাত্র পানির উৎস ওই সব ঝিরি-ঝরনা।

ঘাগড়া ও সাপছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, পাহাড়ধসে কত সংখ্যক ছড়া ও ঝিরি ভরাট হয়েছে সে সম্পর্কে সরকারি বা বেসরকারি কোনো তথ্য নেই। এ বিষয়ে কোনো জরিপও করা হয়নি। তবে দুই ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের হিসেবে ওই এলাকায় অন্তত ৫০টি ঝিরি-ঝরনা ভরাট হয়ে গেছে। এসব ঝিরি ৪ থেকে ১২ ফুট পর্যন্ত পাথর ও বালুর নিচে চাপা পড়েছে। ভরাট হওয়া ছড়া-ঝিরিগুলো এখন শুকিয়ে গেছে। ছড়ার মাঝখানে ১৫ থেকে ২০ ফুট কুয়া কিংবা গর্ত খুঁড়েও পানি পাওয়া যাচ্ছে না।

গত শনিবার সকালে চেলাছড়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, চেলাছড়া গ্রামের গৃহবধূরা কলসি ও পাতিল নিয়ে পানির জন্য ছোটাছুটি করছেন। গ্রামের পাশেই একটি শুকিয়ে যাওয়া ঝিরিতে গর্ত খুঁড়ে পানি সংগ্রহের চেষ্টা করছেন তাঁরা। কিন্তু এতে পর্যাপ্ত পানি পাওয়া যাচ্ছিল না।

সাপছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মৃণাল কান্তি চাকমা বলেন, পাহাড়ধসে সাপছড়ির ২৫টির বেশি ঝিরি-ঝরনা ভরাট হয়ে গেছে। পানি-সংকট তীব্র হয়েছে। গ্রামের বাসিন্দারা খাওয়ার পানির সংকটে ভুগছেন। অন্যদিকে সেচের জন্যও পানি মিলছে না।

রাঙামাটি জেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী অনপুম দে বলেন, পাহাড়ধসের ঘটনায় কাউখালী, সদর ও কাপ্তাই উপজেলার বহু ঝিরি-ঝরনা মাটি চাপা পড়েছে। তবে কত ঝিরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তা নিরূপণ করা যায়নি। ক্ষতিগ্রস্ত ছড়ার আশপাশের বাসিন্দাদের জন্য বাঁধ দিয়ে পাইপের মাধ্যমে পানি সরবরাহের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com