নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখতে উৎসুক জনতার ঢল, মিষ্টি বিতরণ

নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখতে উৎসুক জনতার ঢল, মিষ্টি বিতরণ

নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখতে উৎসুক জনতার ঢল, মিষ্টি বিতরণ
নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখতে উৎসুক জনতার ঢল, মিষ্টি বিতরণ

বরগুনা: চাঞ্চল্যকর রিফাত হত্যার প্রধান আসামি এবং মাদক ব্যবসা, মাদক সেবন ও ছিনতাইসহ নানা অপকর্মে যুক্ত থাকা নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে বন্ধুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার খবরে জেলার বিভিন্ন স্থানে মিষ্টি বিতরণ করেছে উল্লসিত জনতা।

ভোর ৪টার পর পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নয়ন বন্ড নিহত হওয়ার পর তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা সদর হাসপাতালে আনা হয়। সেখানে মরদেহটি দেখার জন্য ঢল নেমেছে সাধারণ মানুষের।

সেই ঢল সামলাতে বেগ পেতে হচ্ছে পুলিশকেও। পরে লাইনে দাঁড় করে কয়েক হাজার সাধারণ মানুষকে নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখার সুযোগ করে দেয় পুলিশ। এ সময় নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখতে আসা সাধারণ মানুষের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

গণমাধ্যমে নয়ন বন্ডের বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পরপরই বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গ ও এর আশপাশ এলাকায় অবস্থান নেয় উৎসুক সাধারণ মানুষ। পরে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনাস্থল থেকে সকাল ৭টার দিকে নয়ন বন্ডের মরদেহ হাসপাতালের মর্গে নিয়ে আসে পুলিশ। সেই থেকে দুপুর ১২টা ২০ মিনিট এই রিপোর্টে লেখা পর্যন্ত নারী-পুরুষসহ কয়েক হাজার মানুষ নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখেছে বলে জানিয়েছে মর্গ প্রাঙ্গণ দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা।

নয়ন বন্ডের মরদেহ দেখতে আসা ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, রিফাত শরীফকে কীভাবে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে তা ভিডিওতে দেখেছি। কিন্তু নয়ন বন্ড কীভাবে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে তাতো দেখতে পারিনি। তাই ওর গুলিবিদ্ধ মরদেহ দেখতে এসেছি।

বরগুনার নারী নেত্রী ও উন্নয়ন কর্মী হোসনে আরা হাসি বলেন, নয়ন বন্ডের মৃত্যুর খবর নিঃসন্দেহে স্বস্তির। এ স্বস্তি শুধু আমার একার নয়, পুরো বরগুনাবাসীর। তবে নয়ন বন্ডকে জীবিত অবস্থায় গ্রেফতার করা সম্ভব হলে ওর বাহিনী সম্পর্কে সব তথ্য পেয়ে পুলিশ বাহিনীটিকে একেবারে নিশ্চিহ্ন করে দিতে পারতো।

এদিকে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ডের নিহতের খবরে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ। তিনি বলেন, নয়ন বন্ডের নিহত হওয়ার খবর শুনে খুব ভালো লাগছে।

দুলাল শরীফ বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এতো দিনের পরিশ্রম সার্থক হয়েছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই, যার নির্দেশে জিরো টলারেন্স ঘোষণার পরই প্রশাসন তৎপর হয়েছে। তারা রাত-দিন কাজ করে আসামিদের ধরেছে। গতরাতে নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে, এতে আমার ছেলের আত্মা যদি একটু শান্তি পায় বলেই কেঁদে ফেলেন তিনি।

এছাড়া স্বামীর ঘাতক নয়ন বন্ডের মৃত্যুর সংবাদ শুনে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করেছেন নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি।

গণমাধ্যমকে আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি বলেন, ঠিক এমন একটা খবরের অপেক্ষায় ছিলাম। হৃদয়ে শান্তি এসেছে। মহান আল্লাহর কাছে অশেষ শুকরিয়া যে, বিচারের জন্য আদালতে দৌড়াতে হলো না। এর পর মিন্নি প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। তিনি দ্রুত সময়ের মধ্যে আমাদের ডাকে সাড়া দিয়েছেন। ওরা ধরা পড়বে কি পড়বে না তা নিয়ে খুব আশংকায় ছিলাম। সুবিচার পাওয়া নিয়ে আতঙ্ক কাজ করছিল মনে। নয়নের নিহতের মধ্য দিয়ে সব শঙ্কা এবং আতঙ্ক দূর হয়েছে। রিফাতের আত্মা শান্তি পেয়েছে।

মূল আসামি নয়ন নিহতের খবরে খুব খুশি হয়েছেন জানিয়ে মিন্নি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আরও আবেদন জানান, নয়ন নিহতের ঘটনায় আমি অনেক খুশি হয়েছি। পাশাপাশি এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের আমি শাস্তি চাই। তারাও যেন কঠোর শাস্তি পায় এই প্রার্থনা করি।

মেয়ের মুখে স্বস্তির ছায়া দেখে গণমাধ্যমকে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল বলেন, শুধু মিন্নিই নয়, আমরা পুরো পরিবার খুশি।বাজারে গিয়ে সবার মুখে সন্ত্রাসী নয়নের নিহতের খবর শুনেই দ্রুত বাসায় এসে মিন্নিকে জানাই। আমার বিধ্বস্ত মেয়েটির মুখে আত্মতৃপ্তির ঝলক দেখতে পাই। প্রশান্তির ছায়া নেমে আসে তার চোখে-মুখে।

দিনদুপুরে জামাতাকে কুপিয়ে হত্যা করার সঙ্গে জড়িত বাকিদেরও যেন এমন শাস্তি হয় সেই কামনা করেন তিনি।

এ হত্যাকাণ্ডের আরেক আসামি রিফাত ফরাজীরও যেন নয়ন বন্ডের মতোই অবস্থা হয় সেই কামনা করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী দ্রুত বিচার পাইয়ে দিয়েছেন। আমরা তার কাছে কৃতজ্ঞ। এখন বাকিদের শাস্তি হলেই রিফাতের আত্মা শান্তি পাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com