সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
নবীগঞ্জে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল দেখতে ভিড়, স্বাস্থ্যঝুঁকি

নবীগঞ্জে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল দেখতে ভিড়, স্বাস্থ্যঝুঁকি

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে আয়োজন করা হয়েছিল ফুটবল টুর্নামেন্ট। ১৬ দলের অংশগ্রহণে প্রায় অর্ধমাস ধরে চলা টুর্নামেন্টের ফাইনাল ছিল শুক্রবার। এই খেলা দেখতে ভিড় করেছিল আশপাশের হাজারো মানুষ। তবে শেষ পর্যন্ত খেলা হলেও পুরস্কার বিতরণের আগে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয় আয়োজন।

শুক্রবার বিকেলে নবীগঞ্জের বড় ভাকৈর পূর্ব ইউনিয়নের হলিমপুর মাঠে এ টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার আয়োজন করা হয়েছিল। ‘সোনার নৌকা ও সোনার বৈঠা’ পুরস্কারের এ টুর্নামেন্টের আয়োজক ছিলেন বড় ভাকৈর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান মো. মেহের আলী মালদার। ফাইনাল শেষে বিজয়ী দলের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়ার কথা ছিল মেহের আলীর। যদিও তিনি টুর্নামেন্টের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছিল স্থানীয় কিছু বাচ্চা। আমি খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে খেলা বন্ধ করে দিয়েছি।’

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের ইউপি সদস্য কাজল মিয়া, ফারুক আহমদ, আরেক ইউপি সদস্যসহ কয়েকজন মিলে ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করেন। এতে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মেহের আলী পৃষ্ঠপোষকতা করেন। টুর্নামেন্টে রামপুর গ্রামের ১৬ দল অংশ নেয়। আজ বিকেলে টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা হয়। এ সময় খেলা দেখতে মাঠের চারপাশে হাজার হাজার মানুষের সমাগম হয়। করোনা প্রতিরোধে জনসমাগম এড়িয়ে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে বলা হলেও খেলা দেখতে আসা দর্শকদের বেশির ভাগের মুখে মাস্কও ছিল না।

বড় ভাকৈর ইউপির চেয়ারম্যান মো. আশিক মিয়া বলেন, রামপুর গ্রামের দুজন ইউপি সদস্যকে নিষেধ করা হয়েছিল টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে। তারপরও তাঁরা টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছেন। তবে ইউপি সদস্য কাজল মিয়া বলেন, ‘টুর্নামেন্ট আয়োজনের সঙ্গে আমি জড়িত নই। টুর্নামেন্ট স্থানীয় কিছু বাচ্চা আয়োজন করেছে।’

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, কোনো অনুমতি না নিয়ে ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছিল। স্থানীয় মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। এ ছাড়া এমন পরিস্থিতিতে টুর্নামেন্ট আয়োজকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান বলেন, করোনার মধ্যে ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছিল। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে খেলা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com