দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়ায় তীব্র যানজট, দুর্ভোগ চরমে

দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়ায় তীব্র যানজট, দুর্ভোগ চরমে

নিজস্ব প্রতিবেদক: পদ্মা নদীতে ফেরি সার্ভিস ব্যাহত হওয়ায় দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া নৌপথে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রী ও পশু ব্যবসায়ীরা। রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া এবং মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে প্রয়োজন অনুযায়ী ফেরি বাড়ানো হলেও নদীর তীব্র স্রোত ও কোরবানির পশুবাহী গাড়ি প্রবেশ করায় দৌলতদিয়া ঘাটে গাড়ির লম্বা লাইন তৈরি হচ্ছে।

 

পশুবাহী গাড়ি ও যাত্রীবাহী পরিবহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকতে হচ্ছে যাত্রীবাহী পরিবহনগুলোকে। বৃহস্পতিবার বিকালে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় মহাসড়কের প্রায় চার কিলোমিটার লম্বা গাড়ির লাইন তৈরি হয়।

গরম আবহাওয়ার মধ্যে অনেক সময় ধরে যানজটে আটকে পড়া পশুদের স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়তে দেখা যায় ব্যবসায়ীদের। ফেরি কর্তৃপক্ষের দাবি, ঈদকে সামনে রেখে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ, নাব্যতা সংকট এবং নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে যানজট বেড়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় জানায়, দেশের গুরুত্বপূর্ণ নৌপথ হওয়ায় প্রতিদিন এই নৌপথ দিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় ২১টি জেলার গাড়ি পারাপার হয়। শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌপথে নাব্যতা সংকট দেখা দিলে ওই রুটের অধিকাংশ গাড়ি এই নৌপথ দিয়ে পার হওয়ায় ঘাটে বাড়তি চাপ সৃষ্টি হয়।

সেই সাথে ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে রাজধানীসহ বিভিন্ন অঞ্চলে কোরবানির পশুবাহি গাড়ি ছুটতে শুরু করেছে। এসব গাড়ি কয়েক দিন ধরে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় বাড়তি চাপের সৃষ্টি করছে। এই নৌপথে ছোট-বড় মিলে মোট ১৬টির মতো ফেরি চললেও তিনদিন ধরে সর্বমোট ২১টি ফেরি চলাচল শুরু করে।

এরমধ্যে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিলে ‘চন্দ্র মল্লিকা’ নামক একটি ইউটিলিটি ফেরিকে পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে রাখা হয়েছে। বর্তমানে ২০টি ফেরি স্বাভাবিকভাবে চলছে। তারপরও গাড়ির চাপ কমছে না।

কর্তৃপক্ষ বলছে, ফেরি সংখ্যা বাড়ানো হলেও পদ্মা এবং যমুনা নদীতে তীব্র স্রোত দেখা দিয়েছে। স্রোতের কারণে ফেরিগুলো ঘাট ছেড়ে প্রায় তিন কিলোমিটার উজান হয়ে ঘুরে চলাচল করছে। এতে একদিকে সময় লাগছে প্রায় দ্বিগুণ।

অপরদিকে ফেরি ট্রিপ সংখ্যা অনেক কমে গেছে। আগে ২৪ ঘন্টায় একপাশ থেকে ১৯০ থেকে ২০০টি করে ট্রিপ মারতো একেকটি ফেরি। বর্তমানে তা কমে হয়েছে ১৫০ থেকে ১৬০টি।

এছাড়া দৌলতদিয়ার ছয়টি ঘাটের মধ্যে এক মাসের বেশি সময় ধরে বিআইডব্লিউটিসি একটি উদ্ধারকারী টাগ জাহাজ দুই নম্বর ঘাটে অবস্থান করায় ওই ঘাটটি ব্যবহার করতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। বাকি পাঁচটি ঘাট দিয়ে ফেরিতে যানবাহন ওঠানামা করছে।

মাগুরা থেকে আসা গাজীপুরগামী একটি পণ্যের ট্রাক চালক মাসুদ শেখ অভিযোগের সুরে বলেন, ‘কোরবানির পশুবাহি গাড়ি এবং যাত্রীবাহী গাড়িগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করায় আমাদের মতো সাধারণ পণ্যের গাড়িকে এভাবে রাস্তায় অপেক্ষা করতে হচ্ছে। তবে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী দালালের মাধ্যমে কেউ বাড়তি টাকা দিয়ে টিকিট কাটতে পারলে সে আগে ভাগে পার হয়ে যাচ্ছে।’

এদিকে বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম জানান, বর্তমানে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ফেরি বাড়ানো হয়েছে। শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌপথে বড় ফেরি চলাচলে সমস্যা হলে প্রয়োজনে এই নৌপথে আরো বড় ফেরি বাড়ানো হবে। তবে বর্তমানে ২১টি ফেরি রয়েছে। সবকটি ফেরি সচল থাকলে ঘাটে কাউকে বেশি সময় অপেক্ষা করতে হবে না বলে দাবি করেন এই কর্মকর্তা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com