ঠাকুরগাঁওয়ে কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে বেশি দামে সার বিক্রি

ঠাকুরগাঁওয়ে কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে বেশি দামে সার বিক্রি

মোঃ মজিবর রহমান শেখঃ ঠাকুরগাঁও জেলায় কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে ডিলাররা সাধারণ চাষিদের কাছে বেশি দামে রাসায়নিক সার বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ক্যাশ মেমোর মাধ্যমে চাষিদের কাছে সার বিক্রির নিয়ম থাকলেও তা মানছেন না ডিলাররা। অদৃশ্য কারণে সরকারের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা বেশি দরে বিক্রি হলেও ব্যবস্থা নিচ্ছে না সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
কৃষি বিভাগ ও বিএডিসি সূত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও জেলার বাফার নিবন্ধিত ৬৩ জন ডিলার প্রতিটি ইউনিয়নে ইউরিয়া সার বিক্রি করবেন। অন্যদিকে, বিএডিসির ২১১ জন ডিলার শুধু নন-ইউরিয়া সার (টিএসপি, ডিএপি, এমওপি) বিক্রি করবেন। কৃষি বিভাগের চাহিদা অনুযায়ী সারের সরবরাহ নিশ্চিত করবে বাফা ও বিএডিসি। তবে বিএডিসির ২১১ জন ডিলারের মধ্যেই বাফার ৬৩ জন ডিলার অন্তর্ভুক্ত। তারাই সব প্রকার সারের বরাদ্দ পান। বাকিরা শুধু নন-ইউরিয়া সারের বরাদ্দ পান। উত্তরের ধান ও সবজি উৎপাদনের জেলা হিসেবে পরিচিত ঠাকুরগাঁও। ধান ও সবজি উৎপাদনে প্রয়োজনীয় রাসায়নিক সার অধিক দামে কেনার কারণে উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে অভিযোগ চাষিদের। তারা জানান, সার কেনার সময় ক্যাশ মেমো চাইলে ডিলাররা বলেন সার নেই। আর বেশি দামে কিনলে পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়। এভাবে ডিলাররা বিভিন্ন ব্যবসায়ীর নামে শত শত বস্তা ক্যাশ মেমো করছেন। আর চাষিদের কাছে মেমো ছাড়া বেশি দামে বিক্রি করছেন। জানা গেছে, সরকারিভাবে এক বস্তা (৫০ কেজি) ট্রিপল সুপার ফসফেট (টিএসপি) ডিলার পর্যায়ে সার এক হাজার এবং চাষি পর্যায়ে এক হাজার ১০০ টাকা মূল্য নির্ধারণ করা হলেও চাষিদের কাছে বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৪০০ থেকে এক হাজার ৪৫০ টাকায়। একইভাবে ডিএপি সার ডিলার পর্যায়ে ৭০০ টাকা আর চাষি পর্যায়ে ৮০০ টাকা নির্ধারণ করা হলেও বিক্রি হচ্ছে ৮২০-৮৫০ টাকা। এ ছাড়া ইউরিয়া ডিলার পর্যায়ে ৭০০ টাকা আর চাষি পর্যায়ে ৮০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে চাষিদের কাছে বিক্রি হচ্ছে ৮৩০-৮৬০ টাকা। একইভাবে মিউরেট অব পটাশও (এমওপি) বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে চাষিদের কাছে। বিএডিসির একাধিক ডিলার বলেন, বিএডিসির সাধারণ ডিলাররা প্রতি মাসে নন-ইউরিয়া সারের বরাদ্দ পান দুই থেকে তিন টন আর বাফারসহ বিএডিসির ডিলাররা মাসে বরাদ্দ পান ৪০-৬০ টন। তাই সারের বাজার তাদের হাতে। ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলার হরিহরপুর এলাকার চাষি বেলাল হোসেন বলেন, শিবগঞ্জ ও পল্লী বিদ্যুৎ, ভাউলারহাট, রোড বাজারে বিএডিসির ডিলার, বাফারসহ কয়েকটি দোকানে সার কিনতে গিয়েছিলাম। তারা বস্তায় সরকারের দামের চেয়ে ৩০০-৪০০ টাকা বেশি দাম নিলেও ক্যাশ মেমো দিচ্ছে না। ঠাকুরগাঁও জেলার
সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের কৃষক হামিদুর রহমান বলেন, সার নিয়ে কর্মকর্তাদের মাঠ পর্যায়ে তদারকি নেই। ডিলাররা নিজেদের সুবিধার্থে সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন।
বিএডিসি ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোমিনুল ইসলাম ভাসানী বলেন, সার ডিলারদের কোনো সিন্ডিকেট নেই। তবে সমিতি আছে। নিয়ম অনুযায়ী ডিলাররা সার উত্তোলন করে সরকারি দরেই বিক্রি করছেন। তবে চাহিদার চেয়ে টিএসপি ও এমওপি সারের সরবরাহ কম। সে জন্য কেউ বেশি নিতে পারে। যারা বেশি নিচ্ছেন, তারা অন্যায় করছেন। ঠাকুরগাঁও বাফারের ইনচার্জ আসাদুজ্জামান খান বলেন, জুলাই মাসে ৬৩ জন ডিলার বরাদ্দের চার হাজার ৫০০ টন সার উত্তোলন করছেন। সারের কোনো কমতি নেই।
ঠাকুরগাঁও বিএডিসির (সার) সহকারী পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, ২১১ জন ডিলারের অনুকূলে জুলাই মাসে টিএসপি সারের বরাদ্দ এক হাজার ৯৬, এমওপি এক হাজার ৮৬ টন, ডিএপি এক হাজার ৬১৯ টন। পর্যাপ্ত সার রয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো ডিলার সার না পেয়ে ফেরত যাননি। ঠাকুরগাঁও
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবু হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়ে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তাদের তদারকি জোরদার করা হয়েছে। কোনো ডিলারের বিরুদ্ধে বেশি দামে সার বিক্রির অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার লাইসেন্স বাতিল করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com