চুনারুঘাটে চা বাগান বাংলোতে ডাকাতের হানা, ম্যানেজারসহ ৩ জনকে কুপিয়ে জখম

চুনারুঘাটে চা বাগান বাংলোতে ডাকাতের হানা, ম্যানেজারসহ ৩ জনকে কুপিয়ে জখম

চুনারুঘাটে চা বাগান বাংলোতে ডাকাতের হানা, ম্যানেজারসহ ৩ জনকে কুপিয়ে জখম
চুনারুঘাটে চা বাগান বাংলোতে ডাকাতের হানা, ম্যানেজারসহ ৩ জনকে কুপিয়ে জখম

নিজস্ব প্রতিনিধি, হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার লালচাঁন্দ চা বাগান ডাক বাংলোতে হানা দিয়েছে একদল ডাকাত। এ সময় বাংলোর ম্যানেজারসহ তিনজনকে কুপিয়ে জখম করে ডাকাতরা। আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার ভোররাতে এ ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পর থেকে চা বাগান এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পরেছে।

জানা যায়, রোববার ভোররাতে লাল চাঁন্দ চা বাগান বড় বাংলোতে হানা দেয় ১০/১২ জনের একটি ডাকাত দল। এ সময় ডাকাতরা প্রথমে বাংলোর মুল গেট ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। পরে বাংলোর ম্যানেজার মোফাজ্জল হোসেনের কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে অস্ত্র ঠেকিয়ে টাকা পয়সা ও সোনা গহনা চায়। বাংলোতে টাকা পয়সা ও সোনা গহনা নেই বলে জানাতেই ডাকাতরা তাদের উপর হামলা চালায়। এ সময় ডাকাতরা ম্যানেজার মোফাজ্জলকে কুপিয়ে জখম করে। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তার স্ত্রী ও মেয়েকে কুপিয়ে জখম করে ডাকাতরা। পরে টেলিফোনে খবর পেয়ে মোফাজ্জল হোসেনের এক বন্ধু ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং তাদেরকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেন।

আহতরা হলেন- লাল চাঁন্দ চা বাগান ডাক বাংলোর ম্যানেজার মোফাজ্জল হোসেন (৫৫), তার স্ত্রী আফরোজা বেগম লিপি (৪৮) ও কলেজ পড়ুয়া মেয়ে মালিয়া হোসেন লিপি (১৮)।

এ ব্যাপারে ডাক বাংলোর ম্যানেজার মোফাজ্জল হোসেন বলেন- ‘ডকাতরা প্রথমে প্রথমে আমার মেয়েকে জিম্মি করে আমাদের রুমের কাছে নিয়ে যায়। হঠাৎ আমার মেয়ের চিৎকার শুনে ঘুম থেকে উঠে দরজা খোলে দেখি ১০/১২ জন ডাকাত আমার মেয়ের পেছনে দাড়িয়ে আছে। তাদের সকলের হাতেই দা ছিলো। এছাড়া হাফ প্যান্ট ও গোল গলার টি শার্ট পড়নে ছিলো।’

তিনি বলেন- ‘বাংলোতে কোন ধরণে টাকা পয়না বা সোনা গহনা থাকে না। আর এগুলো দিতে পারিনি বলে ডাকাতরা আমাদের উপর হামলা চালায়। কিন্তু কোন রকমে আমরা ঘরে প্রবেশ করে দরজা বন্ধ করে প্রাণে রক্ষা পাই। এ ব্যাপারে আমি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন- ‘প্রায়ই বিভিন্ন চা বাগানের ডাক বাংলোতে অপ্রিতিকর ঘটনা ঘটে। এছাড়া চা বাগান এলাকায় বিভিন্ন সময় পথচারিরা ডাকাতির বা ছিনতাইকারীর কবলে পরে। অথচ পুলিশ প্রশাসন তেমন কোন ভুমিকা পালন করে না।’

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাজমুল হক বলেন- ‘চুনারুঘাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এসেছে। এ ব্যাপারে এখনও মামলা দায়ের করা হয়নি, তবে প্রস্তুতি চলছে। ’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com