সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
গ্রেনেড হামলা সম্পর্কে বেগম জিয়া আগেই জানতেন: প্রধানমন্ত্রী

গ্রেনেড হামলা সম্পর্কে বেগম জিয়া আগেই জানতেন: প্রধানমন্ত্রী

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

 

লোকালয় ডেস্ক:প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়া ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা সম্পর্কে আগেই অবহিত ছিলেন। আলামত ধ্বংস, খুনিদের পালাতে সহায়তা করা এবং বিচারকে অন্য খাতে প্রবাহিত করার যে অপচেষ্টা তাতেই এটি স্পষ্ট প্রতীয়মান হয়।

গতকাল শনিবার সকালে গ্রেনেড হামলার ১৭তম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনাসভায় সভাপতির ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২৩, বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মূল অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার জন্য তত্কালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার এবং তাদের পৃষ্ঠপোষকতাকে অভিযুক্ত করে শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া এটা হতে পারে না।

গ্রেনেড হামলা সম্পর্কে বেগম জিয়া আগেই জানতেন :প্রধানমন্ত্রীপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন —পিআইডি

তিনি বলেন, ঐ দিন রাত ১১টার দিকে চার জনকে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি বিমানে করে বেগম খালেদা জিয়ার সরকার দেশ থেকে বাইরে পাঠিয়ে দেয়। তাদের মধ্যে তাজউদ্দিন ছিল, একজন কারারক্ষী এবং শোনা যায় কর্নেল রশিদ এবং ডালিম সে সময় ঢাকায় এসেছিল এবং খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়ার তত্ত্বাবধানে ছিল। ডিজিএফআই, এনএসআইসহ গোয়েন্দা সংস্থা ও পুলিশ সবাই এর সঙ্গে জড়িত ছিল। কাজেই, তারাই এদের রক্ষা করে এবং দেশ থেকে বাইরে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়। কারণ, যখন তারা জানল যে আমি মরি নাই, বেঁচে আছি, তখন তারা দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একজন কারারক্ষী এর সঙ্গে জড়িত ছিল। জেলখানার ভেতর গ্রেনেড পাওয়া গেল (২১ আগস্ট হামলায় ব্যবহূত গ্রেনেডের মতো আর্জেস গ্রেনেড)। এরা অনেকগুলো ক্রিমিনাল জোগাড় করেছিল তাদের মধ্যে কিছু জেলখানা থেকে বের করে নিয়ে এসেছিল। কিন্তু, প্রত্যেকের হাতে যে গ্রেনেডগুলো ছিল সবাই সেগুলো মারতেও পারেনি। রমনা হোটেলের সামনের গলিতে এবং কয়েকটি জায়গায় সেই গ্রেনেড পরিত্যক্ত অবস্থায় পাওয়া যায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আক্রমণকারীদের রক্ষা করার জন্য সেদিন ভয়াবহতার মধ্যেই পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ার গ্যাস ছুড়েছে। সব আলামত সিটি করপোরেশনের গাড়ি দিয়ে ধুয়ে নষ্ট করা হয়েছে। একটা গ্রেনেড অবিস্ফোরিত ছিল, সেটি সংরক্ষণের কথা বলায় একজন অফিসারকে ধমকানো হয়। পরে তাকে নির্যাতনও করা হয়েছে। সরকারের সহযোগিতা না থাকলে তো এমন হতে পারে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর হামলা হলো। সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশ ডাকলাম। মুক্তাঙ্গনে সভা হওয়ার কথা ছিল, অনুমতি দেয়নি। আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম আওয়ামী লীগ অফিসের সামনেই করব। পোস্টার করা হলো, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিলাম আমরা। কিন্তু তারা (সরকার) মধ্যরাতে মুক্তাঙ্গনে করার অনুমতি দিল। তখনই সন্দেহ হলো, এত রাতে অনুমতি দিল কেন?

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যদিও এর আগেই খালেদা জিয়া বক্তৃতা দিয়ে তার নাম ধরেই বলেছে, প্রধানমন্ত্রী তো দূরের কথা বিরোধী দলের নেতাও কোনো দিন আমি হতে পারব না। এর আগে কোটালীপাড়ায় ৭৬ কেজি ওজনের বোমা পুঁতে আমাকে হত্যা প্রচেষ্টার আগেও খালেদা জিয়া বলেছিলেন, একশ বছরেও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পারবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা যখন জাতীয় সংসদে গিয়ে বিষয়টি তুলতে চেষ্টা করলাম তখন কিছুতেই এ ব্যাপারে কথা বলতে দেবে না। খালেদা জিয়া নিজেই দাঁড়িয়ে বললেন, ওনাকে আবার কে মারবে। উনি তো ভ্যানিটি ব্যাগে করে নিজেই গ্রেনেড নিয়ে সেখানে গেছেন এবং নিজেই গ্রেনেড মেরেছেন। এটা খালেদা জিয়ার নিজের ভাষ্য।

বিএনপি-জামায়াতের সহযোগিতায় ২১ আগস্ট হামলা: প্রধানমন্ত্রী

তিনি বলেন, ‘আমি বাবার পথ ধরেই এ দেশের মানুষের জন্য কাজ করছি। গ্রেনেড, বোমা, বুলেট দিয়ে বারবার হত্যার চেষ্টা হয়েছে। আল্লাহর রহমতে নেতাকর্মীরা আমাকে বাঁচিয়েছেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির এই অত্যাচারটা শুরু হয়েছিল ২০০১ সালের ১ অক্টোবর থেকে। এমনকি জুলাই মাসে আমার ক্ষমতা হস্তান্তরের পর থেকেই এক অদৃশ্য শক্তির বলে তাদের দুর্বৃত্তায়ন শুরু হয়। সামরিক-অসামরিক আমাদের অনেক কর্মকর্তাকে ওএসডি করা, চাকরিচ্যুত করা থেকে শুরু করে হত্যা, গুম, নারীদের ওপর পাশবিক অত্যাচারসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর অকথ্য অত্যাচার-নির্যাতন শুরু করে। তারা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর মতোই নির্যাতন শুরু করেছিল।’

সেদিনের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রেনেড বিস্ফোরিত হওয়ার শব্দ শোনার সঙ্গে সঙ্গে আমাকে হানিফ ভাইসহ (সাবেক মেয়র মোহাম্মদ হানিফ) কয়েক জন ঘিরে ফেলেন। আমি দেখলাম, আমার গায়ে শুধু রক্ত আর রক্ত। অর্থাত্, ঐ যে স্প্লিন্টারগুলো সব এসে আঘাত করছে হানিফ ভাইয়ের মাথায় ও গায়ে। যেহেতু সে ধরে রেখেছে, তার রক্তে আমার শরীর ভেসে যাচ্ছে। তিনটি গ্রেনেড ফোটার পর কয়েক সেকেন্ড বিরতি দিয়ে আবার। মনে হচ্ছে যেন এর শেষ নেই, কেয়ামতের মতো। চারদিকে ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন, কিছুই দেখা যাচ্ছিল না। জানি না, আল্লাহ কীভাবে হাতে তুলে আমাকে বাঁচালেন। আমার গায়ে একটাও স্প্লিন্টার লাগেনি। কিন্তু আওয়াজে ডান দিকের কানে আর শুনতে পাচ্ছিলাম না।’

 

তিনি আরো বলেন, ‘যখন আমি গাড়িতে উঠতে যাব, দরজাটা খুলে মাহবুব দাঁড়ানো (২১ আগস্ট শহিদ, তাঁর দেহরক্ষী), তখনই গুলি এলো এবং সেই গুলিতে মাহবুব মারা গেল। আরো কয়েকটি গুলি এসে গাড়িতেও লাগল (বুলেটপ্রুফ গাড়ি)।’

ঐ দিনের কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেখানে এই ধরনের ঘটনা ঘটলে সাধারণত পুলিশ এগিয়ে আসে সাহায্য করতে, যারা আহত বা তাদেরকে রক্ষা করতে। এইখানে দেখা গেল উলটো। বরং আমাদের নেতাকর্মী দূরে যারা ছিল, তারা যখন ছুটে আসছে, তাদের আসতে দেওয়া হচ্ছে না, বরং টিয়ার গ্যাস মারা হচ্ছে, লাঠিচার্জ করছে পুলিশ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তার মানেটা কী? যারা আক্রমণকারী এদেরকে রক্ষা করা, এদেরকে রেসকিউ করার জন্যই এই টিয়ার গ্যাস মারা, লাঠিচার্জ করা।’ তিনি বলেন, ‘সব থেকে দুর্ভাগ্যের বিষয়, বিএনপিমনা ডাক্তারদের কেউ সেদিন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ছিল না। আর বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে কোনো আহতকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। আমাদের ডাক্তার রোকেয়া আইভি রহমানসহ প্রায় ৭০ জনকে নিজে একা অ্যানেসথেসিয়া দিয়েছে।’ গ্রেনেড হামলায় যারা মারা গিয়েছিলেন, তাদের লাশ প্রথমে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে তাদের পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছিল না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সেখানে ঘিরে থাকলে কর্তৃপক্ষ ভোররাতে লাশ দিতে বাধ্য হয়।

গ্রেনেড হামলায় আহত মা ও ছেলের মাথা গোঁজার ঠাঁই মেলেনি

 

তিনি বলেন, ‘গ্রেনেড হামলার ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে জজ মিয়া নামের দরিদ্র একজনকে গ্রেফতার দেখিয়ে কাহিনি তৈরি করে। অথচ তার আর্জেস গ্রেনেড সংগ্রহ করা বা গ্রেনেড মারার মতো, লোক সংগ্রহ করার মতো কোনো ধরনের সামর্থ্যই ছিল না। পাশাপাশি, ওই সময় মগবাজার আওয়ামী লীগ নেতা মোখলেসকে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করাসহ আওয়ামী লীগের কর্মীদের গ্রেফতার করে তাদের দিয়ে স্বীকারোক্তি আদায়ের পরিকল্পনা হয়েছিল যে, আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দলেই এই হামলার ঘটনা ঘটেছে।’ আলোচনাসভায় দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের প্রারম্ভিক ভাষণ দেন। দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদও বক্তৃতা করেন। সভায় আরো বক্তৃতা করেন দলের সভাপতিমণ্ডলির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা ও বিএমএর মহাসচিব ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তরের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, দক্ষিণের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মান্নাফী প্রমুখ। দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ গণভবন থেকে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com