গ্যাসের দাম বাড়ায় জনগণ লাভবান হবে: কৃষিমন্ত্রী

গ্যাসের দাম বাড়ায় জনগণ লাভবান হবে: কৃষিমন্ত্রী

গ্যাসের দাম বাড়ায় জনগণ লাভবান হবে: কৃষিমন্ত্রী
গ্যাসের দাম বাড়ায় জনগণ লাভবান হবে: কৃষিমন্ত্রী

লোকালয় ডেস্ক- গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন একাধিক সাংসদ। অধিবেশন চলাকালে সংসদে কোনো আলোচনা ছাড়া দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বৈধ হয়েছে কি না, সে প্রশ্নও উঠেছে সংসদে।

তবে গ্যাসের দাম বাড়ায় দেশের মানুষ পরোক্ষভাবে লাভবান হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

রবিবার জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) এমপি শিরীন আখতারের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী এ কথা বলেন। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদের পক্ষে প্রশ্নের জবাব দেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, “গ্যাসের দাম বেশ কয়েকবার বেড়েছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়াও হয়েছে। আমি স্বীকার করি যে, গ্যাসের দাম বাড়ানোর সরকারি এ সিদ্ধান্তের ফলে সাধারণ মানুষ কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে করে কিছু কিছু মানুষ প্রত্যক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও পরোক্ষভাবে আমরা সবাই লাভবান হবো। সার্বিক অর্থনীতির উপরে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। কাজেই সকল দিক বিচার বিবেচনা করে সরকার দাম বাড়িয়েছে।”

কৃষিমন্ত্রী আরো বলেন, “নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য হয়তো দাম বাড়ানো হয়েছে, কিন্তু বিভিন্ন ধরনের ইতিবাচক প্রভাব যেমন শিল্প, কারখানা ও মিলগুলো স্থাপনের কথা বিবেচনা করা উচিত।”

“বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য গ্যাস বা কয়লা বা ডিজেল প্রয়োজন। ‘এই খাতে সরকারকে বিপুল পরিমাণ ভর্তুকি দিতে হয়। সরকার যদি সবসময় ভর্তুকি দিতেই থাকে তাহলে অন্যান্য সেক্টরের উন্নয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে”, যোগ করেন তিনি।

এছাড়াও সম্পূরক প্রশ্নে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সাংসদ ফখরুল ইমাম জানতে জানতে চান, সংসদ চলাকালে সংসদকে না জানিয়ে গ্যাসের দাম বাড়ানো বৈধ হয়েছে কি না? একই সঙ্গে তিনি জানতে চান, বিদ্যুৎ ব্যবহারে ই–টিআইএন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। মন্ত্রী নিজেই এর বিরোধিতা করেছিলেন। এটা করে কী লাভ হলো?

জবাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, টিআইএন বিষয়ে তাঁর বিস্তারিত জানা নেই। এ বিষয়ে সংসদ সদস্য নোটিশ দিলে সঠিক উত্তর পাবেন। আর গ্যাসের বিষয়ে তিনি আগেই বলেছেন।

অনির্ধারতি আলোচনায় অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, গ্যাসের দাম বাড়িয়ে সংসদ, আদালত ও জনগণকে চরম অবমাননা করা হয়েছে। তিনি গ্যাসের দাম নিয়ে জাতীয় সংসদে আলোচনার সুযোগ দেওয়ার দাবি জানান।

রাশেদ খান মেনন বলেন, গ্যাসের দাম বাড়ার ফলে গৃহস্থালি, শিল্প, পরিবহন অর্থাৎ অর্থনীতির সামগ্রিক ক্ষেত্রে এর একটা প্রতিক্রিয়া হবেই। জনগণের মধ্যে প্রতিক্রিয়া আছে। জনগণের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা আছে।

গ্যাসের দাম বাড়ানোর সমালোচনা করে মেনন বলেন, ‘আমি নিজেও হতাশ। এই কারণে যে, বাজেট বক্তৃতায় মাননীয় বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর সাফল্যের প্রশংসা করে আমি বলেছিলাম, মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে অন্তত সংসদে আলোচনা করুন, যাতে সকল সংসদ সদস্য অংশগ্রহণ করতে পারেন। কিন্তু মাননীয় স্পিকার, আমরা দেখলাম বাজেট অনুমোদেনর চার ঘণ্টার মাথায় বিইআরসি ঘোষণা দিয়ে দিল। এটা সংসদের প্রতি চরম অবমাননা, সংসদকে এড়িয়ে যাওয়া। আপনি স্পিকার, আপনি সংসদের অভিভাবক, আপনি বিষয়টিকে নিশ্চয় সেভাবে দেখবেন।’

মেনন বলেন, ‘খোলামেলা আলোচনা করে সিদ্ধন্ত নিক। সিদ্ধান্ত সরকার নেবে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু জনগণের কথা শোনর দায়িত্ব সরকারের। সংসদের কথা মানার দায়িত্ব সরকারের। শুধু তা–ই নয়, বিইআরসি গণশুনানি করেছিল। তা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা হয়েছে। সেই মামলার বাইরে গিয়ে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। সুতরাং সেটাও অবৈধ, বেআইনি এবং কোর্টকে অবমাননা। তারা সংসদকে অবমানা করছে, কোর্টকে অবমাননা করছে এবং সর্বোপরি জনগণকে অবমানা করছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com