‘গুপ্তধন’ থাকা সেই বাড়ি কিনতে চুক্তি হয়েছিল পাকিস্তানে

‘গুপ্তধন’ থাকা সেই বাড়ি কিনতে চুক্তি হয়েছিল পাকিস্তানে

‘গুপ্তধন’ থাকা সেই বাড়ি কিনতে চুক্তি হয়েছিল পাকিস্তানে ।

অনলাইন ডেস্ক : মিরপুরেগুপ্তধন’ থাকা সেই বাড়িটি কিনতে টেকনাফের বাসিন্দা সৈয়দ অালমের সঙ্গে পাকিস্তানে চুক্তি করেছিলেন মাটির নিচে গুপ্তধন পুতে রেখে যাওয়া দিলশাদের ছেলে ইব্রাহীম। এ কারণে সেই দিলশাদ পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে এসেছিলেন৷

 

ওই বাড়ি কিনতে ব্যর্থ হয়ে ফেরার পর তার ছেলে ইব্রাহীমও পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে এসেছিলেন। কিন্তু তিনিও ব্যর্থ হলে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল সৈয়দ অালমকে। পাকিস্তানে বসবাস করা টেকনাফের সৈয়দ অালম ও সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা ‘গুপ্তধনের’ প্রথম সন্ধানদাতা তৈয়বের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

পাকিস্তানে বসবাস করা টেকনাফের সৈয়দ অালম প্রিয়.কমকে বলেন, ‘অামি অনেক দিন থেকেই পাকিস্তানে থাকি। আমার স্ত্রী-সন্তানরা সবাই সেখানে থাকে। পাকিস্তানের ইব্রাহীম নামের যে লোক অামাকে ওই গুপ্তধনের কথা বলেছিল তার বাবা পাকিস্তান বিমানে চাকরি করত। যুদ্ধের সময় তিনি ওই সোনাদানা মাটিতে পুতে রেখে পাকিস্তান চলে গেছেন।’

 

আসার পর ওই বাড়ির মালিক দিলশাদকে মারধর করে তাড়িয়ে দেন বলে জানান সৈয়দ আলাম। তিনি বলেন, ‘যুদ্ধের কয়েক বছর পরে ওনি মিরপুরের সেই বাড়িটায় এসেছিলেন। কিন্তু তখন ওই বাড়ির যে মালিক ছিল সে তাকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়। এরপর তার ছেলে ইব্রাহীমও বাংলাদেশে এসে ওই বাড়িটা কেনার জন্য অনেক চেষ্টা করেছিলেন। বাড়িটা কিনে নিয়ে সেখান থেকে গুপ্তধনগুলো তুলে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন ইব্রাহীম। কিন্ত অনেক দিন থাকার পরে বাড়িটা কিনতে না পেরে ওনি অাবার পাকিস্তান চলে যান।’

 

পরে তাকে দায়িত্ব দেওয়ার বিষয়টি জানান সৈয়দ আলম। তিনি বলেন, ‘কয়েক বছর অাগে অামি পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ অাসার সময় ইব্রাহীম আমাকে বলে অামি যদি ওই বাড়িটা কিনতে পারি তবে যে সোনাগুলো বাড়ি থেকে পাওয়া যাবে তার অর্ধেক আমাকে দেবে আর ওই বাড়িটাও অামাকে দিবে। এই জন্য ইব্রাহীম আমাকে বেশ কিছু টাকাও দিয়েছিলেন।’

 

সৈয়দ আলম বলেন, ‘অামি দেশে এসে বিষয়টা অামার বন্ধু তৈয়বকে বলি। তৈয়ব অার অামি মিলে তিন বছর ধরে ঢাকায় অনেক চেষ্টা করেছি এই গুপ্তধনগুলো পাওয়ার জন্য।’

 

বাড়ি ভাড়ার করার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সৈয়দ অালম বলেন, ‘অামি ওই বাড়ির একট রুম ভাড়াও নিয়েছিলাম। ভাড়া নিয়ে সেই রুমে তিন মাস ওই বাড়িতে থেকে সবগুলো ঘর ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করেছি৷ কিন্ত ওই বাড়ির মালিক বাড়িটা বিক্রি করতে চায় নাই। পরে অামি বছর তিনেক অাগে বাড়ির বর্তমান মালিক মনিরুলকে বলি যে তার বাড়ির নিচে সোনা পোতা অাছে। যদি পারেন তবে তুলে নিয়েন। এরপর আমি চলে যাই। অার ওই বাড়িটা কিনতে না পারার কারণে পাকিস্তানের ইব্রাহীম আমার কাছে থেকে কাজটা ফেরত নেয়। বলে অন্য কাউকে দিয়ে সে বাড়িটা কেনাবে।’

 

সৈয়দ আলাম জানান, তার বন্ধুর কথামতো কয়েক দিন আগে সে আবার ঢাকায় গিয়ে ওই বাড়ির মালিকের দেখা না পাইয়া, কেয়ারটেকারকে বলে যে, বাড়ির নিচে গুপ্তধন অাছে সেটা যেন তিনি তুলে নেন।

 

এর মধ্যে বন্ধু তৈয়ব বিষয়টা পুলিশকে জানিয়ে দেয় বলে জানান সৈয়দ অালম। তিনি বলেন, ‘টিভিতে দেখি এতোকিছুু হয়ে গেছে।’

 

এতদিন পর কেন অাবার ঢাকায় এসে বিষয়টা জানালেন। এ প্রশ্নের উত্তরে সৈয়দ আলম বলেন, ‘অামি চাইছি জিনিসটা অামার দেশের, তাই অামার দেশের কোনো মানুষই পাইয়া উপকৃত হোক। এই জন্যই অাবার তাদের জানাতে গেছিলাম।’

 

এই বিষয়ে গুপ্তধনের প্রথম সন্ধানদাতা আবু তৈয়ব প্রিয়.কমকে বলেন, ‘অামি এই ঘটনার মূল নায়ক না, অামার ওপরেও নায়ক অাছে। অামি থানায় জিডি করার পরে চলে অাসি নাই, অামাকে থানায় তিনদিন রাখা হইছিল।’

থানায় রাখার বিষয়ে আবু তৈয়ব বলেন, ‘১০ তারিখ জিডি করার পর ১১, ১২ তারিখ অামাকে থানায় রাখা হয়। তারা অামাকে অাটকিয়ে রাখে নাই, কাস্টডিতে রাখে নাই, শুধু বসিয়ে রেখেছিল। নাস্তা, ভাত সবই দিয়েছে আর রাতে ডিউটি অফিসারের রুমে ঘুমাইছি। অসম্মান করে নাই, তবে নজরদারিতে রাখা হইছিল। পরে ১৩ তারিখ অামার এক পরিচিত জনের মাধ্যমে তার জিম্মাদারে অামাকে ছাড়া হয়েছে। থানা থেকে বলা হইছে, যেদিন দরকার হবে সেদিন ডাকা হবে।’

তৈয়ব অারও বলেন, ‘তারা ওই বাড়ি খনন করল, অামাকে ডাকেও নাই, জানায়ও নাই। তারা বাড়িওয়ালার জিডির জন্য বাড়ি খনন করতে গেছে। এদের তো প্রয়োজন ছিল অামাকে ডাকার। অামি জিডি করলাম ১০ তারিখ অার বাড়িওয়ালা করল ১৪ তারিখ সেটা নিয়েই তারা অগ্রসর হলো। অামি তো ভাই সরকারকে দিতে গেছি, নিতে যাই নাই। অামি একজন সরল সোজা মানুষ। অামি ওই বাড়িতে কখনো ঢোকার চেষ্টা করি নাই। সরাসরি থানায় গেছি।’

তৈয়র বলেন, ‘অামার বন্ধু সৈয়দ অালম অারও সাত বছর অাগে অামাকে এই গুপ্তধনের কথা জানায়। সে পাকিস্তানে থাকে সেখান থেকে এই খবর শুনে এসে অামাকে জানায়। এরপর অামি এ পর্যন্ত ওই গুপ্তধনের খোঁজ নিতে প্রায় ২০/৩০ লক্ষ টাকা খরচ করছি। অামার জায়গাজমি সব শেষ, অামার তেলের দোকান ছিল সব শেষ করছি এই গুপ্তধনের জন্য। অামাকে বাসা থেকে বের করে দিচ্ছে, আমি এত টাকা কই খরচ করছি সেই কারণেই। ওই সম্পদের লোভটা অামার ভেতরে ঢুকে এই কয় বছরে অামার ঢাকায় যাওয়া অাসা করতে খোঁজ নিতে নিতে সব টাকা শেষ।’

‘দোকানপাট সব শেষ করে এখন রাস্তায় অামি। সম্পদগুলো উত্তোলনের জন্য অামি কিন্তু অাগাই নাই, শুধু ওই বাড়ি তার ছিল কি না। সেটা এরপর কে কে কিনেছে, বাড়ির কোনো সংস্কার করা হইছে নাকি এসব কিছু তদারকি করতেই অামার এত টাকা খরচ হইছে’, বলে যোগ করেন তৈয়ব।

তৈয়বের জানান, সৈয়দ আলমও ঢাকায় তার সঙ্গে আসা-যাওয়া করেছেন। তিনি বলেন, ‘অামার সঙ্গে অামার বন্ধু সৈয়দ অালমও এই কয়েক বছর ধরে ঢাকায় অাসা-যাওয়া করেছে। সে তো অামার গ্রামের ছেলে। আমরা এক সাথে ওয়ান থেকে সিক্স পর্যন্ত লেখাপড়া করেছি। সে অামার ল্যাংটাকালের বন্ধু। সে পাকিস্তানে থাকে অাবার বাংলাদেশেও থাকে। তার বউ-বাচ্চা সবাই পাকিস্তানেই থাকে।’

‘এতদিন একসঙ্গে সব কিছু করার পরে সৈয়দ অালম অামাকে বাদ দিয়ে যখন একা একাই বাড়ির মালিকের সঙ্গে গোপনে অাঁতাত করে সোনা উঠাতে যায় তখনি অামি থানায় যাই, যে অামি যখন পাব না তবে এটা সরকারের কাছেই যাক’, যোগ করেন তৈয়ব।

অামাকে পুলিশ ফোন করে ঢাকায় যাইতে বলছে। অাজ রাতে অামি ঢাকায় যাচ্ছি। অামার কাছে ঢাকায় যাওনের ওই গাড়ি ভাড়াটুকুও এখন নাই, এমন অবস্থায় অাছি।

সেখানে যে গুপ্তধন অাছে এটা নিশ্চিত হলেন কীভাবে জানতে চাইলে তৈয়ব বলেন, ‘অামি সাত বছর ধরে সব খোঁজ নিয়ে জানতে পারছি যে, অাছে। যেটা অাছে তা দুইমনের মতো হবেই।’

কোনো রাজনীতির সঙ্গে জড়িত অাছেন কি না জানতে চাইলে তৈয়ব বলেন, ‘অামি টেকনাফ সদর যুবলীগের সভাপতি ছিলাম পাঁচ বছর। সাধারণ সম্পাদক ছিলাম ১০ বছর। বর্তমানে উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি।’

অপরদিকে রাজধানীর মিরপুর এলাকার বাড়ির নিচে ‘গুপ্তধন’ আছে এমন সন্দেহে চালানো অভিযান অাপাতত বন্ধ করেছে প্রশাসন। বিশেষজ্ঞদের পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাদের দেওয়া মতামতে ভিত্তিতেই আবারও অভিযান শুরু করা হবে বলে সাংবাদিকদের জানান ঢাকা জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ।

তাজওয়ার বলেন, ‘এই বাড়িটির ঘরের নিচে গুপ্তধন আছে কি না বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে আবারও খনন কাজ শুরু করা হবে। এই স্থানটি বিশেষজ্ঞদের দ্বারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে চিঠি দিয়ে জানানো হবে। মাটির নিচে গুপ্তধন আছে বিশেষজ্ঞরা বিষয়টি নিশ্চিত করলেই আবারও উদ্ধার কাজ শুরু করা হবে। সে পর্যন্ত বাড়িটিকে পুলিশের হেফাজতে রাখা হবে।’

বাড়ির বর্তমান মালিক মনিরুল ইসলামের কাছে বাড়িটি কেউ আপনার কাছে কিনতে চেয়েছিল কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাড়িটি আমার কাছে কেউ কিনতে চায়নি।’

পুনরায় জানতে চাওয়া হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাতে চাননি ওই বাড়ির মালিক মনিরুল ইসলাম।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com