সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে আ’লীগের সভাপতি জাহির, সম্পাদক আলমগীর মিস ওয়ার্ল্ডে বাংলাদেশ ও ভারতের দুই সুন্দরীর লড়াই নাগরিকত্ব বিল ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ অবস্থানকে দুর্বল করবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিনামূল্যে কুষ্ঠরোগের ওষুধ সরবরাহের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর টাকা দিয়ে প্রেমিক কিনছে চীনা মেয়েরা কাপড় কেচে রাতারাতি বিখ্যাত শিম্পাজি (ভিডিও) রোহিঙ্গা গণহত্যার উল্লেখই করলেন না সু চি বিচারপতির ছেলের বিরুদ্ধে সুমনের রিট শুনবেন না হাইকোর্ট সংখ্যালঘু নির্যাতনের রেকর্ড করেছিল বিএনপি: হবিগঞ্জে সম্মেলনে সেতুমন্ত্রী সরকারি নিষেধাজ্ঞা ভেঙে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় কাটার ধুম!
কাশ্মীরে মৃতের জন্য শোকও করা যাচ্ছে না!

কাশ্মীরে মৃতের জন্য শোকও করা যাচ্ছে না!

কাশ্মীরে মৃতের জন্য শোকও করা যাচ্ছে না!
কাশ্মীরে মৃতের জন্য শোকও করা যাচ্ছে না!

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতীয় সান্ধ্য আইনে রুদ্ধ হয়ে পড়া কাশ্মীরে মৃতের জন্য শোকপ্রকাশেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। শ্রীনগরে ইরফান আহমাদ ভাটের বাবা যখন হঠাৎ করে মারা যান তখন তাঁর দুঃখও সামরিক অচলাবস্থার মধ্যে হারিয়ে গেছে।

যোগাযোগ বন্ধ থাকায় পরিবার সদস্যরা যেমন মৃতের জানাজায় অংশ নিতে পারেননি, তেমনি তিনি যে মারা গেছেন, তা বহু লোককে জানানো সম্ভব হয়নি।

গত এক সপ্তাহ ধরে শ্রীনগরে ইন্টারনেট ও ফোন অকার্যকর। শহরটির ১৫ লাখ লোক ঘর থেকেই বের হতে পারছেন না।
নয়াদিল্লির হিন্দু জাতীয়তাবাদী সরকার সোমবার মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলটির সাংবিধানিক স্বায়ত্তশাসেনর মর্যাদা কেড়ে নিয়েছে। সেখানে লাখ লাখ সেনা মোতায়েন করে কাশ্মীরে যোগাযোগ অচল করে রেখেছে। কাজেই বিধিনিষেধ এতটাই কঠোর যে ইরফান আহমেদ তার পরিবারের কেবল চার সদস্যকে বাবার মৃত্যুর খবর দিতে পেরেছেন।

ইরফান আহমাদ ভাট বলেন, আমার সবচেয়ে বড় কষ্ট হচ্ছে যে আমার বাবার ঘনিষ্ঠ স্বজনরা কবরে নেয়ার আগে তার মুখটা শেষ বারের মতো দেখতে পারেননি। এমনকি তার জানাজায়ও আসতে পারেননি।

তিনি বলেন, পরিবারের সদস্যদের জানাতে গেলে জানাজার সময় চলে যাবে। কারণ আমি জানি না, এই অবরুদ্ধ অবস্থায় কতটা সময়ের মধ্যে সবার কাছে এই খবর পৌঁছাতে পারবো।

কাশ্মীরিরা শোক করেই আসছেন। গত তিন দশকের বিদ্রোহে অঞ্চলটিতে হাজার হাজার লোক নিহত হয়েছেন। কাজেই তারা শোকে অভ্যস্ত। কিন্তু জানাজা ও দাফনের মৌলিক কাজগুলো করতে না পারার মধ্য দিয়ে সেখানকার চলমান অচলাবস্থার বাস্তবচিত্রই ফুটে উঠেছে।

লোকজন কেবল একা কিংবা দুজন একসঙ্গে হাঁটতে পারছেন। শ্রীনগরের ওল্ড টাউনের ফাতেহখাদালে মৃতের বাড়িতে বসে আছেন মঞ্জুর আহমেদ। তিনি বলেন, যে রাতে তিনি মারা গেছেন, সে রাতে কয়েক মাইল হেঁটে তার দুজন স্বজনকে খবর দিতে পেরেছি। এটা খুবই আতঙ্কজনক।

ভাটের মামা মোহাম্মদ সিদ্দিক বলেন, কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন কাশ্মীরিরা।

ইরফান আহমেদের স্বজন ওমর ভাট বলেন, যখন কেউ মৃতের খবর দিয়েছে, তখন খুবই আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। শেষ রাতে কেউ একজন দরজার কড়া নাড়ছেন বলে শুনতে পেলাম। আমার নাম ধরে ডাকছিল। আমি খুবই আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। ভাবছিলাম, পুলিশ আমাকে তুলে নিয়ে যেতে এসেছে। পড়ে দেখি পুলিশ না, আমার একজন স্বজন মৃত্যুর খবর নিয়ে এসেছেন।

তাদের বাড়ির পাশেই বুলেটনিরোধক জ্যাকেট পরে রেজর তারের কুণ্ডলীর কাছে দাঁড়িয়ে রয়েছে সেনারা। তিনি বলেন, আমরা এখন কি করতে পারি? পুরো এলাকা এখন রেজর তার দিয়ে ঘেরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com