ওয়াসার পানি ফুটিয়ে বছরে অপচয় ৩৩২ কোটি টাকা

ওয়াসার পানি ফুটিয়ে বছরে অপচয় ৩৩২ কোটি টাকা

ওয়াসার পানি ফুটিয়ে বছরে অপচয় ৩৩২ কোটি টাকা
ওয়াসার পানি ফুটিয়ে বছরে অপচয় ৩৩২ কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা ওয়াসার সরবরাহকৃত পানির নিন্মমানের কারণে ৯১ শতাংশ সেবাগ্রহীতা পানি ফুটিয়ে পান করেন। যে কারণে বছরে ঢাকা মহানগরীতে প্রায় ৩৩২ কোটি ৩৭ লক্ষ ৫৮ হাজার ৬২০ টাকার সমপরিমাণ জ্বালানির অপচয় হচ্ছে বলে উল্লেখ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

সংস্থাটির জরিপে অংশ নেওয়া সেবাগ্রহীতাদের ৫১.৫% সরবরাহকৃত পানি অপরিষ্কার এবং ৪১.৪% সরবরাহকৃত পানি দুর্গন্ধযুক্ত এবং সেবাগ্রহীতাদের পরিবারের ২৪.৬% সদস্য কোন না কোন পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য দিয়েছেন।

‘ঢাকা ওয়াসা: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক’ এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে আজ রাজধানীর ধানমন্ডিতে  টিআইবি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা ওয়াসার সেবাসংক্রান্ত নানা তথ্য তুলে ধরে এই সুপারিশ করে সংস্থাটি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টিআইবি’র ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারপারসন অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, উপদেষ্টা- নির্বাহী ব্যবস্থাপনা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের এবং গবেষণা ও পলিসি বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ রফিকুল হাসান।

সার্বিকভাবে পানি ও পয়নিষ্কাশন সেবার নিন্মমানের কারণে এক তৃতীয়াংশেরও বেশি সেবাগ্রহীতার অসন্তুষ্টির প্রেক্ষিতে গভীর উদ্বেগ জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে অধিকতর কার্যকর ও সেবাধর্মী হিসেবে গড়ে তুলতে ১৩ দফা সুপারিশ দিয়েছে টিআইবি।

গবেষণায় দেখা যায়, পূর্বের তুলনায় ঢাকা ওয়াসার উল্লেখযোগ্য ইতিবাচক অর্জন ও উদ্যোগ রয়েছে। যেমন: সিস্টেম লস কমিয়ে আনা; রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি; ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিলের তথ্য জানা এবং মোবাইল ফোন ও ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে বিল পরিশোধ ব্যবস্থার পাশাপাশি পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল বিলিং সিস্টেম চালু করা; সার্বক্ষণিক অভিযোগ গ্রহণে হটলাইন স্থাপন; কমিউনিটি প্রোগ্রাম ও কনজ্যুমার রিলেশন বিভাগ গঠন; ৮০টি ওয়াটার এটিএম বুথের মাধ্যমে খুচরা পানি সরবরাহ ব্যবস্থা চালু করা; ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরতা কমাতে ও জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রকল্প গ্রহণ ইত্যাদি। তবে প্রতিষ্ঠানটির নানা কার্যক্রম পরিচালনায় এখনো স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার ঘাটতির পাশাপাশি অনিয়ম ও দুর্নীতি বিদ্যমান। অভ্যন্তরীণ জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে ওয়াসা বোর্ডের কার্যকর পদক্ষেপেও ঘাটতি রয়েছে।

গবেষণায় দেখা যায়, টেকসই ও পরিবেশবান্ধব পানির উৎপাদন ব্যবস্থায় ঘাটতির কারণে গত ১০ বছরে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনে পাম্পের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে ৪৮২টি থেকে ৯০০টি হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে ভূউপরিস্থ পানি ও ভূগর্ভস্থ পানির অনুপাত ৭০:৩০ করার লক্ষ্য থাকলেও বর্তমানে তা ২২:৭৮। এখনো ভূগর্ভস্থ পানির উপর ৭৮% নির্ভরতা রয়েছে। অতিরিক্ত উত্তোলনের ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর প্রতিবছর ২ থেকে ৩ মিটার নিচে নেমে যাচ্ছে। অপরদিকে চাহিদা অনুযায়ী পানি সরবরাহে ঘাটতি থাকায় সেবাগ্রহীতাদের ৪৪.৮% চাহিদা অনুযায়ী পানি পান না। জরিপে অংশ নেওয়া ২০.৬% সেবাগ্রহীতা সারাবছর এবং ৯৪% সেবাগ্রহীতা গ্রীষ্মকালে পানি ঘাটতির সমস্যার কথা জানিয়েছেন। ওয়াসার পানি সরবরাহ ও বিলিং ব্যবস্থায় ন্যায্যতার ঘাটতি যেমন রয়েছে তেমনি পানির মান নিয়েও রয়েছে নানা অভিযোগ।

গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, পয়নিষ্কাশন সেবায় সক্ষমতা ও কার্যকর পদক্ষেপের ঘাটতির কারণে প্রতিদিন ১৩ লক্ষ ৫০ হাজার ঘনমিটার অপরিশোধিত পয়বর্জ্য বিভিন্ন খাল হয়ে পার্শবর্তী নদীগুলোতে পতিত হয়। ১৯৯০ সালের পর ঢাকা ওয়াসা নতুন কোন পয়লাইন তৈরী করে নি। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটির ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট আছে মাত্র একটি, যেটিও আবার সক্ষমতার মাত্র তিন ভাগের এক ভাগ ব্যবহার করে। এছাড়া ঢাকা ওয়াসার নিয়োগ, পদায়ন ও বদলি, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রশিক্ষণসহ ক্রয় প্রক্রিয়া, প্রকল্প বাস্তবায়ন, মিটার রিডিং নেওয়া এবং সর্বোপরি গ্রাহক সেবায় ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি বিদ্যমান।

সংবাদ সম্মেলনে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘উদ্বেগের বিষয় হলো, ওয়াসা তার ভিশন-মিশন অনুযায়ী এখনো পানির চাহিদা পূরণে সুপেয়, নিরাপদ, টেকসই ও পরিবেশবান্ধব পানির উৎপাদন ও সরবরাহ এবং পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সন্তোষজনক অগ্রগতি অর্জন করতে পারেনি। ফলে ওয়াসার কাছ থেকে ঢাকাবাসীর প্রত্যাশিত সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে এখনো অনেক ঘাটতি বিদ্যমান। আমরা মনে করি, আমাদের এই সুপারিশ বাস্তবায়ন হলে ঢাকা ওয়াসার সুশাসন ও শুদ্ধাচারের ক্ষেত্রে অনেক উন্নতি হবে।

অন্যদিকে অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল বলেন, ‘প্রতিবেদনে যে কথাগুলো উপস্থাপন করা হয়েছে আমাদের প্রত্যেকের জীবনেই এ অভিজ্ঞতাগুলো রয়েছে। আমরা কখনো অত্যন্ত অযৌক্তিকভাবে পানির অভাব বোধ করেছি আবার কখনো বাড়ি থেকে বের হয়ে পয়নিষ্কাশনের সমস্যায় পড়েছি। যে সুপারিশগুলো করা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যদি সেগুলো কার্যকর করতে পারে তাহলে সমস্যাগুলি সমাধানের একটা উপায় বের হয়ে আসবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com