এবারও অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট খেলার সুযোগ পাচ্ছে না বাংলাদেশ

এবারও অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট খেলার সুযোগ পাচ্ছে না বাংলাদেশ

পুরো বদলে গেল বাংলাদেশের অস্ট্রেলিয়া সফর।

খেলা ডেস্ক: ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই সিরিজের পরিবর্তে ২০২০ সালে বাংলাদেশের সঙ্গে একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ আয়োজন করতে চায় তারা। বিসিবিও তাতে রাজি হয়েছে বলে বলা হয়েছে বিবৃতিতে ।

অস্ট্রেলিয়াতে টেস্ট খেলার সুযোগ আপাতত মিলছে না বাংলাদেশের। অন্তত ২০২০ পর্যন্ত এ আশা ত্যাগই করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। এ বছরের আগস্ট-সেপ্টেম্বরে দুটি টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলতে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অস্ট্রেলিয়া সফরের কথা ছিল।

আজ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই সিরিজের পরিবর্তে ২০২০ সালে বাংলাদেশের সঙ্গে একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ আয়োজন করতে চায় তারা। বিবৃতিতে এ প্রস্তাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) একমত হওয়ার কথা বলা হলেও এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো প্রস্তাব পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বিসিবি।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার বিবৃতিতে বলা হয়, আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রামে এ বছরের আগস্টে বাংলাদেশের অস্ট্রেলিয়া সফরের জন্য যে সময়সূচি বরাদ্দ করা ছিল, সেটা বিসিবি ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার ভিত্তিতে তা স্থগিত করা হয়েছে। দুই দেশই একমত হয়েছে, সফরটা ২০২০ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে হওয়াটাই ভালো।

বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী অবশ্য প্রথম আলোকে বলেছেন, ‘এ ব্যাপারে কোনো আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছ থেকে বিসিবি পায়নি।’

ঠিক কী কারণে সূচিতে এত বড় পরিবর্তন, তা ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া খোলাসা করে বলেনি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, কারণটা অর্থনৈতিক। আগস্টে উত্তর অস্ট্রেলিয়ার ডারউইন ও কেয়ার্নস শহরে টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজটি আয়োজনের কথা ছিল। অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশকে ডাকেই তাদের ক্রিকেটের ‘অফ সিজনে’। অস্ট্রেলিয়ার মূল ভূখণ্ডে যখন শীত থাকে। ডারউইনের আবহাওয়াও ট্রপিক্যাল বা গ্রীষ্মপ্রধান। অস্ট্রেলিয়ার মূল ক্রিকেট খেলিয়ে অঞ্চলগুলোয় তাই যখন শীতকালীন অফ সিজন চলে, তখন বিকল্প হিসেবে সবচেয়ে ভালো জায়গা হলো এর উত্তরাঞ্চল।

বাংলাদেশকে খেলানো হয় এসব অপ্রচলিত ভেন্যুতে। তবে ডারউইন ও কেয়ার্নসে ক্রিকেট ততটা জনপ্রিয় নয়। এসব জায়গায় অতীতেও খুব বেশি দর্শককে ক্রিকেট টানেনি। এখানে টেস্ট ক্রিকেট আয়োজন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার জন্য আর্থিকভাবে কোনো প্রণোদনা এনে দেয় না। আর অস্ট্রেলিয়াও তাদের ব্যস্ত সূচির ফাঁকে মূল ভেন্যুগুলোতেও বাংলাদেশকে এখনো জায়গা দেওয়ার যোগ্য হয়তো ভাবেনি। অন্তত ক্রিকেট সূচি ও ভেন্যুগুলো দেখলে এমনটাই মনে হয়।

টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে প্রথমবারের মতো টেস্ট খেলতে যায় বাংলাদেশ। সেটাই অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের শেষ টেস্ট খেলাও। সেবারও সিরিজটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল ডারউইন ও কেয়ার্নস শহরে। ২০০৮ সালে দ্বিতীয়বারের মতো অস্ট্রেলিয়া সফর করে বাংলাদেশ। সেবার টেস্টের বদলে বাংলাদেশ খেলেছিল একটি তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। ভেন্যু ডারউইন ও কেয়ার্নসই।

২০১৫ সালে প্রস্তাবিত বাংলাদেশ সফর নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে স্থগিত করেছিল অস্ট্রেলিয়া। সেই সফরটি হয় গত বছর আগস্টে। ঢাকার প্রথম টেস্টটা অস্ট্রেলিয়া হেরে যায় ২০ রানে। চট্টগ্রামের দ্বিতীয় টেস্টে জয় পায় তারাই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com