ইফতারে চিকন মচমচে রেশমি জিলাপি

ইফতারে চিকন মচমচে রেশমি জিলাপি

ইফতারে চিকন মচমচে রেশমি জিলাপি
ইফতারে চিকন মচমচে রেশমি জিলাপি

লোকালয় ডেস্কঃ মচমচ করে ভাঙবে। তারপর মুখের ভেতরটা ভরে তুলবে মিষ্টি শিরায়। আকারে ছোট ও গড়নে চিকন বলে এর নাম দেওয়া হয়েছে রেশমি জিলাপি। শিরা কম ও মচমচে বলে এই জিলাপি সবার পছন্দ। ইফতারি তো বটেই, ঢাকাবাসী সারা বছর রেশমি জিলাপি খায়।

স্বাভাবিক আকৃতির সাধারণ জিলাপি ও শাহি জিলাপি যারা তৈরি করে, সে রকম জায়গাতেও এখন রেশমি জিলাপি পাওয়া যায়। সাধারণ কারিগরেরা বলবেন, ভাণ্ডের ছিদ্রটা ছোট করে তেলে ছাড়লেই জিলাপি চিকন হয়ে যায়। ঘটনা কিন্তু তা নয়। রেশমি জিলাপির কারিগরি একটু ভিন্ন। সাধারণ জিলাপিতে দেওয়া হয় ময়দা, কর্নফ্লাওয়ার, ঘন টক দই, বেকিং পাউডার, ঘি, সয়াবিন তেল, চিনি, পানি, জাফরান, গোলাপজল, এলাচগুঁড়ো, খাবার রং ইত্যাদি। রেশমি জিলাপির জন্য লাগে পোলাওয়ের চালের গুঁড়া। আর ঘি যদি হয় খাঁটি, তাহলে ঘ্রাণে ম-ম করবে।

মীনা সুইটসের কারিগর জীবন দেবনাথ জানান, অন্য জিলাপির থেকে রেশমি জিলাপি বানাতে সময় বেশি লাগে, বিক্রিও বেশি হয়। দাম প্রতি কেজি ৩৫০ টাকা। রেশমি জিলাপির দাম বেশি কেন? জানতে চাইলে মীনা সুইটসের ব্যবস্থাপক মো. গাউস আলী মোল্লা বলেন, ‘রেশমি জিলাপিতে পোলাওয়ের চাল এবং নিজেদের গাওয়া ঘি ব্যবহার করি। এতে খরচ একটু বেশি হয়।’ রেশমি জিলাপি ছাড়াও তিন ধরনের জিলাপি পাওয়া যায় সেখানে। দাম ২৫০ টাকা। ফুলের মতো দেখতে ‘অমৃতি’ নামের একধরনের জিলাপি মিলবে ৩০০ টাকা কেজিতে।

ঢাকায় সব থেকে জনপ্রিয় জয়পুর সুইটসের রেশমি জিলাপি। ২০০৭ সালে তারাই প্রথম এই রেশমি জিলাপি তৈরি করে। রোজার সময় দীর্ঘ সারি ধরে ধানমন্ডির বিক্রয়কেন্দ্র থেকে জয়পুরের রেশমি জিলাপি কিনতে হয়। রোজার সময় বিক্রি প্রায় পাঁচ গুণ। দাম সারা বছরের মতোই, ৩০০ টাকা কেজি। ঢাকার বিভিন্ন জায়গার ক্রেতাদের সুবিধার্থে মোহাম্মদপুর, তেজগাঁও ও উত্তরায় নতুন তিনটি শাখা খুলেছে তারা।

জয়পুর সুইটসের স্বত্বাধিকারীদের একজন বলেন, ‘সবাই মচমচে জিলাপি খোঁজে। স্বাভাবিক আকৃতির জিলাপিকে মচমচে করাটা কঠিন। রেশমি জিলাপিতে ময়দার সঙ্গে পোলাওয়ের চালের গুঁড়া যুক্ত করা হয়। জিলাপিতে বৈচিত্র্য আনা ও মচমচে রাখার জন্য আমরাই প্রথম রেশমি জিলাপি তৈরি করি। জনগণ সেটাকে গ্রহণ করেছেন।’ জয়পুর সুইটসের জিলাপির জন্য ঘি আনা হয় জয়পুরহাট ও শাহজাদপুরে নিজেদের কারখানা থেকে। রেশমি জিলাপি তৈরির জন্য তাঁদের রয়েছে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কারিগর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com