আর্জেন্টিনার গোলরক্ষককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

আর্জেন্টিনার গোলরক্ষককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

নিহত ফাকুন্দো এস্পিনদোলা।

খেলাধুলা ডেস্ক : আর্জেন্টাইন ফুটবলের বাজে সময় কিছুতেই কাটছে না। বিশ্বকাপে মেসি-ডি মারিয়াদের বিপর্যয়, কোচ হোর্হে সাম্পাওলিকে রাখা না রাখা নিয়ে ফেডারেশনের দোটানা – সব মিলিয়ে টালমাটাল দেশটির ফুটবল অঙ্গন। এরইমধ্যে বিষাদের সংবাদ নিয়ে এলো এক আর্জেন্টাইন ফুটবলারের হত্যার খবর।

 

সতীর্থ আরেক ফুটবলারের হাতেই প্রাণ হারাতে হলো দেশটির উঠতি বয়সী গোলরক্ষক ফাকুন্দো এস্পিনদোলাকে। তাকে খুন করার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে সতীর্থ নাহুয়েল ওভিয়েদো এবং ওভিয়েদোর এক বন্ধুকে।

 

স্থানীয় সময় রোববার ভোর রাতে আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স আয়ার্সের হার্লিংহাম এলাকায় এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সেখানকার একটি পানশালার সামনে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন আলমাগ্রোর গোলরক্ষক এস্পিনদোলা। যিনি একটা সময় রিভারপ্লেট যুব দলেও খেলেছেন। আর্জেন্টিনার ‘বি’ দলকেও প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি।

 

ছুরি দিয়ে এস্পিনদোলার গলা কেটে দেন ওভিয়েদো ।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, ঝামেলার মধ্যে এক ব্যক্তি পকেট থেকে ছুরি বের করে এস্পিনদোলার গলা কেটে দেন। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার।

ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর নাহুয়েল ওভিয়েদো ও তার বন্ধুকে আটক করা হয়। ওভিয়েদো স্যান তেলমোর ফুটবলার, তার বন্ধু প্যারাগুয়ের নাগরিক।

এস্পিনদোলাকে হত্যার পর দু’জনে একটি সাদা গাড়িতে পালাচ্ছিলেন। পুলিশ তাদের ধাওয়া করে আটক করে। ওই গাড়িতে রক্তের দাগ দেখতে পায় পুলিশ। পরে কিছু দূরে গিয়ে হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্রের খোঁজও পায় তারা।

তবে, ঠিক কী কারণে দু’জনের ঝামেলা বেধেছিল, তা অবশ্য এখনও জানা যায়নি।

 

অভিযুক্ত নাহুয়েল ওভিয়েদো। তাকে গ্রেপ্তার করেছে বুয়েন্স আয়ার্স পুলিশ।

অভিযুক্ত ওভিয়েদো এর আগেও নানা ঝামেলায় জড়িয়েছিলেন। ২৮ বছর বয়সি এই ফুটবলার ২০১১ সালে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেপ্তার হন। সে সময় ৩ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হলেও তাকে জেলে যেতে হয় নি।

কিন্তু এবার ওভিয়েদোর বিরুদ্ধে সতীর্থকে হত্যার যে অভিযোগ উঠলো, তা প্রমাণিত হলে বড় ধরনের শাস্তিই ভোগ করতে হবে তাকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com