৩০ বছর বয়সেই লম্পট তারেক হাবিবের ৫ বিয়ে, বাদ যায়নি বয়স্ক নারীও!

৩০ বছর বয়সেই লম্পট তারেক হাবিবের ৫ বিয়ে, বাদ যায়নি বয়স্ক নারীও!

তারেক হাবিব। বয়স আনুমানিক (৩০)। তাতে কি? এই বয়সেই বিয়ে করছেন একাধিক। এর মধ্যে প্রকাশ্যে এসেছে ৫টির কথা। তবে তিনি সংসার গড়ার জন্য একটি বিয়েও করেননি। স্ত্রী ও তার পরিবারকে ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে অন্যবিয়েগুলো করেছেন। lokaloy24.comবিয়ে করতে যেন তার কোন প্রকার পুঁজি লাগেনা। ১ম স্ত্রী ও তার পরিবারের কাছ থেকে নেয়া যৌতুকে টাকা নিয়ে ২য় বিয়ে, একভাবে ৩য় বিয়ে, এরপরে ৪র্থ এবং ৫ম বিয়ে। আর সবগুলোই করেন শুধুমাত্র অর্থের লোভে। জানা গেছে ৫ স্ত্রীর পরিবারের নিকট থেকে তিনি কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন।
খবর নিয়ে জানা গেছে তারেক হাবিব যে বিয়ে পাগল তাই শুধু নয়। তার বাবার তেমন একটা সহায় সম্পত্তি না থাকায় মানুষের সাহায্য নিয়ে চলাফেরা করতেন। তারেকের বাবার বিরুদ্ধেও রয়েছে বিভিন্ন অভিযোগ। তিনি বিদ্যুৎ এর টান্সফরমার চুরির দায়ে কারা হাজতে ছিলেন অনেকদিন।
এই তারেক হাবিব যেখানেই সুন্দরী যুবতীর মেয়ের সন্ধান পান, তাকেই তিনি বিয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেন।
তার একাধিক বিয়ের কাবিননামা যাচাই করে দেখা গেছে তিনি ১ম বিয়ে করেছেন ২০১৭ সালের ২৬ নভেম্বর। ৭ লাখ টাকা কাবিন দিয়ে শায়েস্তাগঞ্জ পৌর এলাকার দক্ষিণ বড়চর গ্রামের রইছ আলীর কন্যা মোছাঃ নাজু বেগমকে। তারেক দাবি করতেন নাজু ছিল তার প্রেমিকা। কিন্তু এটি ছিল তার মিথ্যা দাবি। অনেকদিন ধরে ওই মেয়েকে তিনি উত্যক্ত করতেন। শেষমেষ দেখা করতে গিয়ে নাজুর আত্মীয়দের হাতে আটক হয়ে বিয়ে করতে বাধ্য হন নাজু বেগমকে। কিছুদিন সংসার করার পর বেরিয়ে আসে তার আসল চেহারা। বাউন্ডুলে, বেকার, অভাবী তারেক যৌতুকের টাকার জন্য নাজুর উপর অত্যাচার শুরু করেন।
২০১৮ সালের ২২ ও ২৫ সেপ্টেম্বর ৫ লাখ টাকা যৌতুকের দাবি করব নাজুকে মারপিট করেন। এ ঘটনায় হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে তারেক হাবিব, তার ভাই ইকবাল হোসেন রুমন, পিতা-হাবিবুর রহমান হবিব, মাতা-রেহেনা আক্তারকে আসামি করে মামলা করে নাজু। এ মামলায় তারা জামিনে আছে বলে জানা গেছে।
এরপর ভালোবেসে ১৪-০৭-২০১৯ তারিখে ৪ লাখ টাকা কাবিন দিয়ে হবিগঞ্জ নোটারী পাবলিকে এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ে করেন তার থেকেও ৩ বছরের বড় শায়েস্তাগঞ্জের বাগুনিপাড়ার আব্দুল মালেকের কন্যা শরিফা আক্তার শশিকে।
১৫-১১-২০১৮ইং তারিখে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে বাহুবল উপজেলার চন্দ্রনিয়া গ্রামের আইয়ুব আলীর কন্যা জনি আক্তারকে ৩ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে করেন। বাহুবলের চন্দ্রনিয়া গ্রামের জনি সহকারি পুলিশ সুপার বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেন। যা নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেল এসপি তদন্ত করছেন।
গত ২৯ সেপ্টেম্বর সদর উপজেলার রাঙের গাঁও গ্রামের খালেক মিয়ার কন্যা আয়েশা খাতুনকে বিয়ে করেন। তাকেও তিনি ৩ লাখ টাকা কাবিন দিয়ে বিয়ে করেন। পরে আয়েশা বাদি হয়ে হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ আদালতে এ মামলা করেন। মামলায় আসামিরা হল, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১০নং লস্করপুর ইউনিয়নের হাতিরথান গ্রামের হবিব মিয়ার পুত্র তারেক মিয়া (৩০) ও তার পিতা হবিব মিয়াসহ চারজন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ২৫/০৪/২০১৯ইং তারিখে তারেক মিয়ার সাথে আয়েশা খাতুনের ইসলামি শরীয়াত মতে ও ৩ লাখ টাকা রেজিস্ট্রারী কাবিনমুলে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তারেক ও তার পরিবার আয়েশার উপর যৌতুকের জন্য নিপীড়ন, নির্যাতন শুরু করে। আয়েশা নির্যাতন সহ্য করে সংসার করে। বিয়ের সময় আয়েশার দরিদ্র পিতা তারেককে উপঢৌকন হিসেবে আসবাবপত্র বাবদ ১ লাখ ৬০ হাজার টাকার মালামাল দেন। তারপরও তাদের পাষাণ হৃদয়ে আয়েশার জন্য মায়া হয়নি।
গত ৪ সেপ্টেম্বর তারেকসহ উল্লেখিত আসামিরা পুনরায় আয়েশার নিকট যৌতুক বাবদ ৩ লাখ টাকা চায়। আয়েশা এতে অপরাগতা প্রকাশ করলে তাকে মারপিট করে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেয়া হয়। তাদের আঘাতের কারণে আয়েশা জখমপ্রাপ্ত হয়। হাসপাতালে চিকিৎসা নেয় আয়েশা।
আয়েশা জানায়, তারেক হাবিব বিয়ে পাগল। সে আরও চার স্ত্রীর কথা গোপন রেখে আমাকে প্রতারণার মাধ্যমে বিয়ে করেছে। তার প্রথম স্ত্রী শায়েস্তাগঞ্জের নাজু আক্তার, ২য় স্ত্রী বাগুনিপাড়া গ্রামের শরিফা আক্তার শশী, ৩য় স্ত্রী বাহুবল উপজেলার চন্দ্রনিয়া গ্রামের জনি আক্তারসহ অপর একজন স্ত্রী রয়েছে।
তবে ৩ জনের বিয়ের কাগজপত্র আয়েশার কাছে রয়েছে।
বিচারক সুদীপ্ত দাস শুনানী শেষে মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্তপ‚র্বক প্রতিবেদন দেয়ার জন্য উপজেলা সমাজসেবা অফিসার তার বিপক্ষে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন।
এছাড়া তারেক হাবিবকে সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, প্রতারক আখ্যা দিয়ে একাধিকবার রেজুলেশন করে জেলা প্রশাসক বরাবরে একাধিক অভিযোগ দায়ের করেন গ্রামবাসী। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
এছাড়া চলতি বছরের ৪ এপ্রিল লাখাই উপজেলার পূর্ব সিংহগ্রামের রমজান আলীর কন্যা শারমিন জাহানকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে জোরপূর্বক অপহরণ ও ছিনতাইয়ের মুখে পড়েন। এ সময় তিনি সদর সার্কেলকে ফোনে জানালে কোর্ট ইন্সপেক্টরের মধ্যস্থতায় তাকে উদ্ধার করা হয়।
এ ঘটনায় তারেক হাবিবসহ দুইজনের বিরুদ্ধে সদর থানায় অভিযোগ দেন। এসআই অভিজিৎ ভৌমিক শহরের পুরান পৌরসভা এলাকায় গিয়ে তদন্ত করে ওসি মাসুক আলীকে সত্য বলে অবগত করেন। কিন্তু ওসি রহস্যজনক কারণে মামলা রেকর্ড করছেন না।
একই দিন মারামারির একটি মামলায় এসআই রহিমসহ একদল পুলিশ আদালত চত্তরের বাইরে অবস্থান নেয় তারেক হাবিবকে ধরতে। এ সময় বাদি উপস্থিত থাকাস্বত্তেও এসআই রহিম রহস্যজনক কারণে মোবাইল বন্ধ করে চলে যান। সেদিন তাকে গ্রেফতার না করলেও মাদক বিক্রেতা কলিগকে থানা থেকে ছাড়াতে গিয়ে চুনারুঘাটে আটক হয় তারেক।
উল্লেখ্য তারেক হাবিব ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হবার পরও সদর থানায় ঘুরে বেরিয়েছে। ওসি মাসুক আলীর সাথে দেখা করে কথা বলেছে, সাংবাদিকতার প্রভাব দেখিয়ে বক্তব্য নিয়েছে। তারেক হাবিবের বিরুদ্ধে পত্রিকায় আদালত থেকে পলাতক আসামির বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। সচেতন মহলের পক্ষ থেকে ওসিকে অবগত করা হয়েছে। কিন্তু গায়ে মাখেন নি ওসি। তাই এতদিন ব্যবস্থাও নেননি। তারেক হাবিবকে দেখে মনে হতো থানা তার শশুরবাড়ি!

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com