সৌম্য-লিটনের এখনই সময় দেখিয়ে দেওয়ার: তামিম

সৌম্য-লিটনের এখনই সময় দেখিয়ে দেওয়ার: তামিম

সৌম্য-লিটনের এখনই সময় দেখিয়ে দেওয়ার: তামিম
সৌম্য-লিটনের এখনই সময় দেখিয়ে দেওয়ার: তামিম

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সৌম্য সরকার ও লিটন দাস আগামী ১০-১৫ বছর বাংলাদেশের হয়ে খেলার সামর্থ্য রাখেন বলে বিশ্বাস করেন তামিম ইকবাল। তারা দুজন কী করতে পারেন, তা বিশ্বকে দেখিয়ে দেওয়ার এখনই সেরা সময় বলে মনে করেন বাঁহাতি ওপেনার।

তামিমের যোগ্য উদ্বোধনী সঙ্গীর অভাবে অনেক দিন থেকেই ভুগছে বাংলাদেশ। তামিম এক প্রান্তে ভরসা দিচ্ছেন এক দশকেরও বেশি সময় ধরে। কিন্তু অন্য প্রান্তের তার সঙ্গী পরিবর্তন হয়েছে নিয়মিতই। বিষয়টা তামিমের ওপর মানসিকভাবে কতটা প্রভাব ফেলে?

আজ মিরপুরে তামিম বললেন, ‘নির্দিষ্ট ম্যাচে তো এমন কোনো সমস্যা করে না। কিন্তু যখনই আপনার একজন নিয়মিত ওপেনিং সঙ্গী থাকবে, তখন যেটা হয়, আমরা দুজনই আমাদের খেলাটাকে ভালো বুঝতে পারি আর কী। অনেক সময় হয়তো বা এমন থাকে যে, আমার টাইমিং ভালো হচ্ছে না। হয়তো আমি মারছি, কিন্তু ফিল্ডারের কাছে চলে যাচ্ছে। তখন তাকে সুযোগটা নিতে হয়। একইভাবে ওর সাথে যদি এই জিনসটা হয়, তবে আমার সুযোগ নিতে হয়। কিন্তু কেউ যদি স্থায়ী না হয়, তখন তাকে এটা বলা ঠিক হবে না যে, “ভাই, তুমি সুযোগ নাও”। কারণ, ওদেরও একটা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়।’

আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপে তামিমের উদ্বোধনী সঙ্গী হিসেবে যাচ্ছেন সৌম্য আর লিটন। এই দুজনকে নিয়ে যথেষ্ট আশাবাদী তামিম, ‘আমি নিশ্চিত, লিটন ও সৌম্য যথেষ্ট সুযোগ পাবে। ওরা কী করতে পারে, তা বিশ্বকে দেখিয়ে দেওয়ার এটাই সঠিক সময়।’

ব্যাটিংয়ের সময় উদ্বোধনী সঙ্গীর বোঝাপড়াটা খুব গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন তামিম। বিশ্বের গ্রেট সব উদ্বোধনী জুটির উদাহরণ দিয়ে তামিম বললেন, ‘আপনি যখন একটা মানুষের সাথে যেকোনো কিছুতে, যেকোনো পেশায় – আপনার পেশাতেই চিন্তা করেন না কেন, আপনি যদি একজন সহকর্মীর সাথে ২০ বছর ধরে কাজ করেন, তাহলে সে আপনার পছন্দ-অপছন্দের ব্যাপারগুলো জানবে। সব পেশাতেই ব্যাপারটা একইরকম।

‘যারা বিশ্বের গ্রেটেস্ট ওপেনিং পার্টনারস, হেইডেন-গিলক্রিস্ট, গাঙ্গুলী-শচীন, শেবাগ-শচীন, এদের মধ্যে দেখবেন একটা বোঝাপড়া থাকতো। আপনি যখন ওদের খেলা ম্যাচগুলো দেখবেন, আপনি মনে করবেন যে তারা ওখানে মজা করছে, তারা জানে অন্যরা কী চায়। এরকম সুযোগ দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের এখনো হয় নাই। তবে আমি নিশ্চিত যে, যে দুজন বিশ্বকাপে যাচ্ছে, তারা বাংলাদেশের হয়ে আগামী ১০-১৫ বছর খেলার সামর্থ্য রাখে। ভালো একটা পারফরম্যান্স দেখানোর এটাই সেরা সময় বলে আমি মনে করি।’

আগের দিন বিকেএসপিতে প্রিমিয়ার লিগের শেষ ম্যাচে প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন সৌম্য। বাঁহাতি ওপেনার আগের ম্যাচে করেছিলেন সেঞ্চুরি। টানা দুই সেঞ্চুরি বিশ্বকাপের আগে তার আত্মবিশ্বাস বাড়াবে বলে মনে করেন তামিম। তার ডাবল সেঞ্চুরিকে দেখছেন বড় অর্জন হিসেবে, ‘এটা দারুণ অর্জন, বাংলাদেশি কেউ এই প্রথম ২০০ রান করেছে। যদিও আমরা খেলব একেবারেই ভিন্ন একটা কন্ডিশনে, ভিন্ন বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে, তবুও রান করাটা সব সময়ই ইতিবাচক। এটা আত্মবিশ্বাস যোগায়। সে কোথায় রান করেছে এটা মুখ্য বিষয় নয়, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে যে সে রান করেছে।’

‘ও যদি শেষ দুই ম্যাচে দুইটা সেঞ্চুরি না করে ১০ আর ৫ করে ট্যুরে যেত, ওর মাথার মধ্যে এক পার্সেন্ট হলেও একটা চাপ থাকত। কিন্তু ও এখন জানে, ও রান করেছে। যখন আপনি রান করেন, তখন আপনি এটা জানেন যে কীভাবে রান করতে হয়। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যখন কারো ফর্ম খারাপ যায়, তখন সে ওইটা ভুলে যায় যে কীভাবে রান করতে হবে। তাই এটা তার জন্য খুব ইতিবাচক যে সে আয়ারল্যান্ডে যাবার আগে দুটো বড় ইনিংস খেলেছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com