সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
সুসম্পর্কের মধ্যে হঠাৎ শাস্তির খড়্গ

সুসম্পর্কের মধ্যে হঠাৎ শাস্তির খড়্গ

http://lokaloy24.com

২০২১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিববর্ষ উদযাপন ছিল প্রতিবেশীসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক আরো জোরদারের একটা ভালো সুযোগ। বাংলাদেশ সে লক্ষ্যে কিছু উদ্যোগও নিয়েছিল। গত মার্চ মাসে সারা বিশ্বের শুভেচ্ছা বার্তার পাশাপাশি ভারত, শ্রীলঙ্কা, নেপাল, মালদ্বীপ ও ভুটানের শীর্ষ নেতাদের সশরীরে ঢাকায় উপস্থিতি বাড়তি মাত্রা যোগ করেছিল কূটনৈতিক সম্পর্কে।

কিন্তু বছরের শেষ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র সম্মেলনে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ না জানানো এবং এর পরপরই র‌্যাবের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের জন্য বড় কূটনৈতিক অস্বস্তি হয়ে হাজির হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকদের কেউ কেউ বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সুসম্পর্কের মধ্যেও এমন নিষেধাজ্ঞার জন্য যুক্তরাষ্ট্র-চীন ভূরাজনৈতিক প্রতিযোগিতাকে দায়ী করেছেন। তবে অনেকে বলেছেন, ভূরাজনীতিই একমাত্র কারণ নয়। গণতন্ত্র ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বেশ কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশের কাছে উদ্বেগ জানিয়ে আসছে। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগ জানানোর তথ্য ওই দেশটির বার্ষিক প্রতিবেদন ও বিজ্ঞপ্তিগুলোতে উঠে এসেছিল।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্রগুলো জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বৈরী সম্পর্ক বাংলাদেশ চায় না। তাই সরকার আগামী বছর যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে নিয়মিত বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের কাঠামোগুলোতে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি তোলার পরিকল্পনা করছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কূটনীতিতে বাংলাদেশ যথেষ্ট শক্তিশালী অবস্থানে আছে। আমরা কারো লেজুড় নই। সবার সঙ্গে আমাদের ভালো সম্পর্ক আছে।’

প্রতিবেশী ভারত থেকে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে সফর হয়েছে চলতি বছর। ২০২১ সাল বাংলাদেশ-ভারত কূটনৈতিক সম্পর্ক ও মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণ জয়ন্তীর বছর। দুই দেশ মিলে ঢাকা ও নয়াদিল্লির বাইরে বিশ্বের ১৮টি দেশে মৈত্রী দিবস পালন করেছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেছেন, আগামী ৫০ বছরের সহযোগিতার দিকে এখন দৃষ্টি দিচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারত। ভবিষ্যতে দুই দেশের মধ্যে আরো যোগাযোগ বৃদ্ধি, নতুন নতুন খাতে সহযোগিতা দেখা যাবে। সীমান্তে হত্যা নিয়ে বাংলাদেশের উদ্বেগের বিষয়ে ভারত অবগত। সীমান্তকে আরো শান্তিপূর্ণ করতে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে আলোচনা, যোগাযোগ চলছে। তিস্তাসহ অভিন্ন নদ-নদীগুলোর পানিবণ্টনে এ বছর কোনো চুক্তি সই না হলেও ছয়টি নদীর পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে কাজ চলছে। ভবিষ্যতে অগ্রগতি হতে পারে।

চীনের সঙ্গে সম্পর্ক ও সহযোগিতায় অগগ্রগতি হয়েছে ২০২১ সালে। ভারত তার অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে বিদেশে টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় বড় সংকটে পড়েছিল বাংলাদেশ। সে সময় চীন এগিয়ে এসেছে। চীনের সঙ্গে যৌথভাবে টিকা উৎপাদনেরও পরিকল্পনা করছে সরকার।

বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসেবে টিকা এসেছে ভারত, চীন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, কানাডা, দক্ষিণ কোরিয়া, সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড, সুইডেনসহ অন্যান্য দেশ থেকে। বাংলাদেশও জরুরি প্রয়োজনের সময় ভারতসহ অন্যান্য দেশে কভিড মোকাবেলায় সহায়তা সামগ্রী পাঠিয়েছে।

বছর শেষে বাংলাদেশিদের জন্য খুলেছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার। সরকারের উদ্যোগে অন্য শ্রমবাজারগুলোতেও কর্মী যাওয়া অব্যাহত ছিল।

প্রতিবেশী মিয়ানমারে গত ফেব্রুয়ারি মাসে সামরিক বাহিনীর অভ্যুত্থানের পর রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের আলোচনা থমকে গেছে। নোয়াখালীর ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের দেখভাল করতে জাতিসংঘ গত অক্টোবর মাসে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করেছে।

ভূরাজনৈতিক প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের সম্ভাব্য ভূমিকাও বছরের বিভিন্ন সময় আলোচনায় এসেছে। গত এপ্রিল মাসে চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল উই ফেংঘে ঢাকা সফরকালে দক্ষিণ এশিয়ায় বাইরের দেশগুলোর সামরিক জোট গড়ার উদ্যোগের বিরোধিতা করেন। এরপর ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিংও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, জাপান ও অস্ট্রেলিয়ার সামরিক জোট কোয়াডে বাংলাদেশ যোগ দিলে এ দেশের সঙ্গে চীনের সম্পর্ক উল্লেখযোগ্য মাত্রায় খারাপ হবে। যদিও বাংলাদেশ এ ধরনের আগ্রহ দেখায়নি, প্রস্তাবও পায়নি।

বাংলাদেশের কাছে সামরিক সরঞ্জাম ও প্রযুক্তির বিষয়ে ইউরোপীয় দেশগুলোর আগ্রহও প্রকাশ পেয়েছে গত কয়েক বছরে। বিশেষ করে গত নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর ফ্রান্স সফরে এ বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে। ফ্রান্স সফরেই প্রধানমন্ত্রী শান্তিপূর্ণ, নিরাপদ, অংশগ্রহণমূলক ‘ইন্দো-প্যাসিফিক’ নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান নেওয়ার বিষয়টি স্পষ্ট করেছেন। কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, বাংলাদেশ কোনো সামরিক জোটে নেই। কিন্তু অর্থনৈতিক ও শান্তিপূর্ণ সমৃদ্ধির সব উদ্যোগের সঙ্গেই আছে, থাকবে বাংলাদেশ।

কভিড মহামারি পরিস্থিতি উন্নতির পর গত নভেম্বর মাসে ঢাকায় ‘ইন্ডিয়ান ওশ্যান রিম অ্যাসোসিয়েশনের (আইওআরএ) মন্ত্রিপর্যায়ের বৈঠক ও ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে ‘বিশ্ব শান্তি সম্মেলন’ আয়োজন করে ঢাকা। সেখানে বিশ্লেষকদের আলোচনায় এসেছে, বড় দুই শক্তির জাঁতির মধ্যে পড়েছে বাংলাদেশ।     কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, বাংলাদেশ যখন স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) থেকে বেরিয়ে আসছে তখন সারা বিশ্বের বিশেষ দৃষ্টি আছে বাংলাদেশের ওপর। এলডিসি থেকে উত্তরণের পর বাংলাদেশকে বাণিজ্য সুবিধাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাড়তি যোগ্যতার কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্র গণতন্ত্র সম্মেলনে না ডাকায় বাইডেন প্রশাসন বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতিকে কিভাবে দেখছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। র‌্যাব এবং এর সাবেক ও বর্তমান শীর্ষ কর্মকর্তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা প্রসঙ্গে মার্কিন নীতি গবেষণা প্রতিষ্ঠান উইলসন সেন্টারের দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক বিশ্লেষক মাইকেল কুগেলম্যান কালের কণ্ঠকে বলেন, নিষেধাজ্ঞায় সবচেয়ে বড় ক্ষতি হয়েছে বাংলাদেশের ভাবমূর্তির। বছরের শেষ পর্যায়ে এসে কিছুটা কূটনৈতিক চাপের মুখে বাংলাদেশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com