মানুষের যে গুণ থাকা অপরিহার্য

মানুষের যে গুণ থাকা অপরিহার্য

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

মানুষ হিসেবে প্রত্যেকের ভেতর কিছু আবশ্যকীয় গুণ থাকা প্রয়োজন। যখনই মানুষের মধ্যে এসব গুণের সন্নিবেশ ঘটবে তখন সে এরই মাধ্যমে ইহকাল ও পরকাল উভয় জগতের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে। আল্লাহ পাক তার সম্মান ও ইজ্জতকে বহু গুণে বৃদ্ধি করে দেবেন। সে সম্মানিত মানুষে পরিণত হবে; অন্যথায় বিপদ থেকে কেউ তাকে বাঁচাতে পারবে না। তাই আল্লাহ পাক পবিত্র আল কুরআনের সূরা আল আসরে সেই আবশ্যকীয় গুণগুলোর কথা তুলে ধরেছেন। এগুলো যদি মানুষ অর্জন করতে পারে, তা হলে তার কোনো ভয় নেই। থাকবে না কোনো সংশয়। মুক্তি তার অনিবার্য। যে প্রতিশ্রুতি আল্লাহ তায়ালা নিজেই দিয়েছেন।
ঈমান : ঈমান শুধু একটি বিশ^াসের নাম নয়, বরং মানুষের জন্য একটি আদর্শও বটে। মানুষ নিজের মধ্যে যখন এই আদর্শ দৃঢ়ভাবে ধারণ করে তখন তার জীবনের সামগ্রিক ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন আসে। সে বিশ^াস করে আল্লাহ এক। তাঁর কোনো শরিক নেই। জাতে ও সিফাতে তিনি অদ্বিতীয়। সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। জীবনের সব ক্ষেত্রে সে এই আদর্শ অনুসারে কাজ করে। আল্লাহর পক্ষ থেকে যে হুকুম-আহকাম ও বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে এগুলোকে সে ইবাদত বলে মেনে নেয়। সর্ব ক্ষেত্রে তাকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার বিশ^াস সে রাখে। সে অনুযায়ী কাজ করে।
নেক আমল : ঈমান ছাড়া আল্লাহর কাছে মানুষের কোনো নেক আমলই গৃহীত হয় না। ঈমান হলো আল্লাহর অনুগত বান্দার হওয়ার প্রথম ধাপ। এটি ধরেই তাকে দ্বীনের পথে পরিপূর্ণভাবে দাখিল হতে হবে। এর বিপরীতে গিয়ে মানুষ যদি মুক্তির অন্য কোনো রাস্তা খোঁজে তা কখনোই সম্ভব নয়। কেউ ঈমান আনেনি অথচ ভালো কাজ করছে, এর সামাজিক মূল্য রয়েছে। এ জন্য আল্লাহ তাকে তার ন্যায্য পাওনা থেকে মাহরুম করবেন না। কারণ আল্লাহ হচ্ছেন আহকামুল হাকিমিন।
কিন্তু আল্লাহর তরফ থেকে একজন ঈমানদার যে ধরনের পুরস্কার লাভ করতে পারবে, সে এর দাবি কখনোই করতে পারবে না। কারণ সে ঈমান আনেনি। তাই তার ভালো কাজগুলো আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য হয়নি। ঈমানের সাথে যখন নেক আমল যোগ হয় তখন বান্দার পুণ্যের পাল্লা আরো ভারী হয়ে যায়। ভালো কাজ সবাই কমবেশি করে। কিন্তু যাদের ঈমান নেই, তাদের সেসব সৎকর্ম পরকালে কোনো উপকারে আসবে না। হয়তো সৎকর্মের কারণে দুনিয়ার জীবনে কিছুটা লাভবান হতে পারে। এ জন্যই সবার আগে ঈমান আনার কথা বলা হয়েছে। যদি মানুষের ঈমান থাকে আর এই ঈমানের সাথে সৎকর্ম যোগ হয়, এর মাধ্যমে যে দুনিয়াতে লাভবান হবে। অন্য দিকে পরকালীন জীবনে রয়েছে অফুরন্ত আরাম-আয়েশ, বহু নাজ-নিয়ামত। তাই আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যেসব কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন আর যেগুলো থেকে ফিরে থাকতে বলেছেন, সবই তাঁর হুকুম ও ইবাদত মেনে করে জীবন পরিচালনা করতে হবে। তা হলেই জীবন সার্থক। সাফল্য সুনিশ্চিত।
সৎপথে আহ্বান : ঈমানদার সবসময় উদার মনের অধিকারী হয়। তার চিন্তার প্রশস্ততাও অনেক ব্যাপক। সে কখনো নিজে সফলতা ও কল্যাণ লাভের পর আত্মকেন্দ্রিক হয়ে উঠতে পারে না। এ কারণে সমাজের মানুষ অন্যায় করবে আর সে বসে বসে দেখবে তেমনটি হতে পারে না। তাই সে প্রতিবাদমুখর থাকে। ঈমানই তার চেতনাকে জাগিয়ে দেয়। মানুষকে সৎকাজের নসিহত করে। নিজেও ভালো কাজ করে। বিপথগামী, দ্বীন সম্পর্কে যারা বেখবর তাদের কল্যাণময় জীবন বিধানের প্রতি আহ্বান করা ঈমানদারদের নৈতিক দায়িত্ব। কারণ তাদেরকে পাঠানো হয়েছে মানুষের কল্যাণের জন্য। আর এ কারণেই অপরাপর জাতির ওপর মুসলমানদের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা করা হয়েছে। পবিত্র আল কুরআনে আল্লাহ পাক বলেছেন, ‘তোমরা হলে সর্বোত্তম জাতি। যাদেরকে মানুষের জন্য বের করা হয়েছে। তোমরা ভালো কাজের আদেশ করবে। আর মন্দ কাজ থেকে মানুষকে ফিরিয়ে রাখবে।’ (সূরা আল ইমরান, আয়াত ১১০)
ধৈর্যের উপদেশ : সৎপথে মানুষকে আহ্বান করতে গেলে বাধাবিপত্তি আসবে। আর তা অনিবার্য। নবী-রাসূলগণ ছিলেন নিষ্পাপ। যার সাক্ষ্য আল্লাহ তায়ালা নিজেই দিয়েছেন। অথচ এই নবী-রাসূলরা যখন নিজ সম্প্রদায়ের কাছে দ্বীনের দাওয়াত দিয়েছেন তারা বিভিন্নভাবে জুলুম-নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এমন কোনো নবীর ইতিহাস জানা নেই, যারা কোনো না কোনোভাবে বাধার সম্মুখীন হননি। সুতরাং এই পথে যারাই কাজ করবেন তাদের ওপর বিপদ, বালা-মুসিবত আসবে। আর এগুলো মেনেই সামনের দিকে এগিয়ে চলতে হবে। দ্বীনী দাওয়াতের এই বিপদের মুহূর্তে একে অপরকে ধৈর্য ধারণের উপদেশ দিতে হবে। মনোবল জোগাতে হবে; যাতে সে কোনো অবস্থাতেই ধৈর্যহারা না হয়। পূর্ণ ঈমান ও সবরের সাথে দ্বীনের ওপর অবিচল থাকে। কারণ এই ধৈর্য মুমিনের জন্য একটি পরীক্ষা। আল্লাহ তায়ালা তা প্রিয় বান্দাকে বিভিন্নভাবে পরীক্ষা করে থাকেন। তিনি দেখেন, বান্দা ধৈর্যের পরীক্ষায় কতটা উত্তীর্ণ হতে পারে। এ জন্য এক মুসলমান আরেক মুসলমানকে এ সঙ্কটময় মুহূর্তে ধৈর্য ধারণের উপদেশ দেবে; যাতে সে এই মর্যাদাপূর্ণ পরীক্ষায় পাস করে জান্নাতের উচ্চ মাকামে আসীন হতে পারে। এসব গুণ যে মানুষের মাঝে থাকবে সে মানুষ কখনো ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com