মাথাপিছু আয়ে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ

মাথাপিছু আয়ে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ

http://lokaloy24.com

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান বলেছেন, গত কয়েক দশকে বাংলাদেশের ব্যাপক উন্নয়ন হলেও অনেক ক্ষেত্রে অপশাসনও বেড়েছে। সুশাসনকে পাশ কাটানো হয়েছে। এসব কারণে রানা প্লাজা, তাজরীন ট্র্যাজেডির মতো ঘটনা ঘটেছে। তিনি স্বাধীনতার পর দেশের উন্নয়নে বেসরকারি সংস্থার ভূমিকার প্রশংসা করেন। এসব উন্নয়ন সংস্থাকে তিনি ‘সামাজিক উদ্যোক্তা’ অভিহিত করে বলেন, এসব এনজিও গ্রামীণ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। গ্রামীণ ব্যাংক পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণকারী সংস্থা। আর ব্র্যাক বিশ্বের সবচেয়ে বড় এনজিও। এগুলো বাংলাদেশের এনজিও খাতের সাফল্য নির্দেশ করে। রেহমান সোবহান গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে বিআইডিএসের ৫০তম বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ‘উন্নয়ন সম্মেলনে’ বক্তৃতা করছিলেন। সম্মেলন চলবে তিন দিন।

এতে ‘বাংলাদেশ ইন কমপারেটিভ র্পাসপেকটিভ’ প্রতিবেদন তুলে ধরেন সংস্থাটির মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন। আরও অন্যান্য বিষয়ে প্রথম দিনে ১০টি গবেষণাপত্র উপস্থাপন করা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়- আর্থসামাজিক উন্নয়নে পাকিস্তান ও ভারতকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ। গত ৩০ বছরের হিসাবে এমন অর্জন। তবে পোশাকশিল্পের অগ্রগতি, দারিদ্র্য নিরসন, কর্মক্ষেত্রে নারীর অগ্রগতি এবং দ্রুত নগরায়ণের ফলস্বরূপ এ সাফল্য। সেই সঙ্গে বেসরকারি উদ্যোক্তার বিকাশ দেশকে এগিয়ে নিয়েছে। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে এনজিওগুলোর ক্ষুদ্র ঋণ ও সামাজিক কার্যক্রম। তবে অর্থনীতিতে তৈরি হওয়া নানারকম ঝুঁকির বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান। বক্তব্য দেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, পরিকল্পনা কমিশনের সাবেক ডেপুটি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম। এ ছাড়া বিভিন্ন অধিবেশনে বক্তব্য দেন সিপিডি চেয়ারম্যান ড. রেহমান সোবহান, বিশ্বব্যাংক ঢাকা অফিসের সাবেক লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন, আলস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. এস আর ওসমানি প্রমুখ। অধ্যাপক নুরুল ইসলাম বলেন, গত ৫০ বছরে দেশে দারিদ্র্য ব্যাপক কমেছে। মানুষের মধ্যে বৈষম্যও বেড়েছে। বৈষম্য বেড়ে গেলে কর ফাঁকি দিয়ে বিদেশে টাকা পাচারও বেড়ে যায়। যেসব দেশের করহার কম সেসব দেশেই টাকা চলে যায়। ক্রমবর্ধমান বৈষম্য এখন রাজনৈতিক সমস্যা। স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত রেমিট্যান্স ও রপ্তানি অর্থনীতিতে বড় অবদান রেখেছে। রেমিট্যান্স গ্রামীণ অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন এনেছে। তিনি অর্থনৈতিক পরিকল্পনা করতে গবেষণার ওপর জোর দেন। প্রতিবেদনে ড. বিনায়ক সেন বলেন, ভারতের তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, কেরালা যেভাবে এগিয়ে গেছে উত্তর প্রদেশ ও বিহার সেভাবে এগোয়নি। এখানে ব্যাপক আঞ্চলিক বৈষম্য বিরাজমান। এটা যেন ভারতের মধ্যে অন্য ভারত। আবার পাকিস্তানের ইসলামাবাদে যে উন্নয়ন হয়েছে সেভাবে অন্য রাজ্যগুলোয় হয়নি। যেমন পিছিয়ে আছে বেলুচিস্তান। কিন্তু বাংলাদেশে এমন বৈষম্য নেই। দেশ স্বাধীনের আগে যেমন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে বৈষম্য ছিল এখন সে রকম নেই। তবে কুড়িগ্রামের দারিদ্র্য আর নারায়ণগঞ্জের দারিদ্র্য এক নয়। এটা হয়েছে এলাকার কারণে। যেমন নদী ভাঙা, উপকূলীয়, হাওর ও পাহাড়ি অঞ্চলে যেভাবে উন্নয়ন হওয়ার কথা সেভাবে হয়নি। অবস্থান এবং প্রাকৃতিক কারণেই এটা করাটাও কঠিন। প্রতিবেদনে দেখা গেছে- মাথাপিছু আয়ে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ। ভারতের কাছাকাছি গেছে। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ২ দশমিক ৫৪ শতাংশ হারে বাড়ত অথচ এখন (২০১০ সালের হিসাব) এটা ৫ দশমিক ০৩ শতাংশ হারে বাড়ছে। ১৯৯০ সালে ভারতের মাথাপিছু আয় ৩ দশমিক ২৬ হারে বাড়ত এখন কমে ১ দশমিক ১৪ হার হয়েছে। একইভাবে ’৯০-এর দশকে পাকিস্তানের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির হার ছিল ১ দশমিক ৬৯ শতাংশ এটা এখন আরও কমে শূন্য দশমিক ৮৬ হয়েছে। অথচ মাথাপিছু আয়ে ’৯০-এর দশকে পাকিস্তানের চেয়ে ৪৫ শতাংশ পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। এখন পাকিস্তানের চেয়ে মাথাপিছু আয়ে ১০ শতাংশ এগিয়ে বাংলাদেশ। এ ছাড়া উৎপাদন খাতে ভারত ও পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ’৯০-এর দশকে এ খাতে বাংলাদেশের অগ্রগতি ছিল ১৩ দশমিক ২৪ শতাংশ যা এখন হয়েছে ১৮ দশমিক ৯৩ শতাংশ। অথচ উৎপাদন খাতে প্রতিনিয়ত পিছিয়ে যাচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান। ভারত ও পাকিস্তানকে বাংলাদেশ পেছনে ফেলার অন্যতম কারণ কর্মসংস্থানে নারীর উপস্থিতি বাড়া। ’৯০-এর দশকে বাংলাদেশে কর্মসংস্থানে নারী উপস্থিতির হার ছিল ২৪ দশমিক ৬৫ শতাংশ অথচ এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬ দশমিক ৩৭ শতাংশ। একই সময়ে ভারতে নারী উপস্থিতি ছিল ৩০ দশমিক ২৭ শতাংশ অথচ এখন কমে দাঁড়িয়েছে ২০ দশমিক ৭৯ শতাংশ। অন্যদিকে ’৯০-এর দশকে পাকিস্তানে কর্মক্ষেত্রে নারী উপস্থিতি ছিল ১৪ দশমিক ৪ শতাংশ এখন হয়েছে দাঁড়িয়েছে ২২ দশমিক ৬৩ শতাংশে। তবু বাংলাদেশের সমান হতে পারেনি। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘গ্রামীণ সড়ক উন্নয়ন, কমিউনিটি ক্লিনিক, হাওর উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন, দারিদ্র্য জনগোষ্ঠীর উন্নয়নসংক্রান্ত প্রকল্পে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী আমায় পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছেন। এসব কারণে বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে।’ ড. মসিউর রহমান বলেন, জাতির জনকের কন্যার হাত ধরে তাঁর নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাছে। বাংলাদেশের আজকের উন্নয়ন বঙ্গবন্ধুর সুদূরপ্রসারী চিন্তার ফসল। স্বাধীনতার পরপরই তিনি পরিকল্পনা কমিশন গঠন করে দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথ খুঁজেছেন। সে সুফল এখন পাওয়া যাচ্ছে। রেহমান সোবহান আরও বলেন, পোশাক খাতের হাত ধরে বাংলাদেশ অনেক অগ্রগতি অর্জন করেছে। বেসরকারি উদ্যোক্তারা এ ক্ষেত্রে সফল ভূমিকা পালন করেছেন। গত ৪০ বছরে ওষুধ, চামড়া, শিপবিল্ডিং, সিরামিকসহ বিভিন্ন শিল্পের বিকাশ ঘটেছে। রপ্তানি ক্ষেত্রে বহুমুখীকরণ করতে হবে। গ্রামীণ ব্যাংক, ব্র্যাকসহ এনজিওগুলো ক্ষুদ্র ঋণ দিয়ে উদ্যোক্তা তৈরিতে সহায়তা করেছে। সেই সঙ্গে সামাজিক ক্ষেত্রেও ভূমিকা রেখেছে। তবে আমাদের অন্যতম চ্যালেঞ্জ জলবায়ু পরিবর্তন, প্রযুক্তির উন্নয়ন ক্ষেত্রে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব মোকাবিলা করা। ড. জাহিদ হোসেন তাঁর গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করে বলেন, করোনা মহামারী বাংলাদেশের অর্থনীতিকে পিছিয়ে দিয়েছে। বিনিয়োগ ও বাণিজ্য প্রবৃদ্ধি করোনার আগের তুলনায় কমেছে। অব্যাহতভাবে চলতি হিসাবে ঘাটতি আছে। তার পরও রিজার্ভ বাড়ছে। তবে আইএমএফের মতে রিজার্ভের হিসাবে গরমিল রয়েছে। বৈদেশিক ঋণ বিষয়ে তেমন ঝুঁকি নেই তবে ঋণ নিয়ে ভোগবিলাসে ব্যয় করা যাবে না। উৎপাদনশীল খাতে ব্যয় করতে হবে। ভ্যাকসিন সরবরাহে বাজেট সহায়তা কমছে। এ ছাড়া বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট মেগা প্রকল্পগুলোর ব্যয় বাড়ছে। এরাও ঝুঁকি তৈরি করছে। এ ছাড়া রাজনৈতিক প্রভাবে অর্থনীতিতে সম্ভাব্য উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তবে জিডিপি প্রবৃদ্ধি করোনা মহামারী থেকে পুনরুদ্ধার হচ্ছে অভ্যন্তরীণ ভোগের কারণে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com