মঙ্গল গ্রহেও আছে পিরামিড!

মঙ্গল গ্রহেও আছে পিরামিড!
মঙ্গল গ্রহেও আছে পিরামিড!

লোকালয় ডেস্কঃ মঙ্গল গ্রহ নিয়ে কয়েক বছর ধরেই বেশ কৌতূহল দেখা যাচ্ছে মানুষের মাঝে। সম্প্রতি মঙ্গলের একটি ছবি নিয়ে শুরু হয়েছে তুলকালাম। দাবি করা হচ্ছে, মহাকাশযান মার্স রিকনেসাঁস অরবিটারের (এমআরও) তোলা একটি ছবিতে মঙ্গলে একটি পিরামিড দেখা যাচ্ছে। এই পিরামিড এলিয়েনদের তৈরি কিনা, তা নিয়ে চলছে জল্পনা কল্পনা।

মজার ব্যাপার হলো, ওই ছবিটি তোলা হয়েছিল ১০ বছর আগে।  অনলাইনে এক ‘এলিয়েন-শিকারি’ স্কট সি. ওয়ারিং ওই ছবিটি দেখে মন্তব্য করেন, তিনি মঙ্গলের ওই ‘পিরামিডে’ একদিক মসৃণ এবং অন্য দুইদিক ক্ষয়ে যাওয়া বলে লক্ষ্য করেন। তিনি দাবি করেন, এই পিরামিড এলিয়েনদের তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।  হয়তো এলিয়েনরা ওই জায়গায় বসতি তৈরির চেষ্টা করছিল।  এমনকি তিনি এটাও বিশ্বাস করেন, ওই একই ধরনের এলিয়েনরা হয়তো পৃথিবীর পিরামিডগুলোকেও তৈরি করেছিল।

কিন্তু এই দাবি অনেক কারণেই হাসির পাত্র হয়ে ওঠে।  পৃথিবীর সব পিরামিড এলিয়েনের তৈরি তা মনে করাটা খুবই হাস্যকর।  পৃথিবীর অন্যান্য বড় বড় প্রাচীন স্থাপত্য রয়েছে যেমন রোমান কলোসিয়াম, সেইন্ট পিটার’স ব্যাসিলিকা, এমনকি এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিং। এগুলো এলিয়েনরা তৈরি করেছে, এমনটা বলা যেমন হাস্যকর, তেমনই পিরামিড এলিয়েনরা তৈরি করে গেছে এটা মনে করাও খুবই হাস্যকর। আর তাছাড়া পিরামিড মানুষ কীভাবে তৈরি করেছিল সেটাও জানা গেছে গবেষণা থেকে। তাই পিরামিড মানেই এলিয়েন, এটা ভাবার কোনো অবকাশ নেই।

এর পাশাপাশি, মঙ্গলের ওই ছবিতে যা দেখা যাচ্ছে তা আদতে পিরামিড বলেও ধরা যায় না।  ওই ছবিটার মাপজোখ হিসেব করলে দেখা যায় ত্রিকোণ কাঠামোটি ৪০ বাই ৩০ মিটার। সেটা মিশরের গিজার সবচেয়ে ছোট পিরামিডটির চেয়েও ছোট।  এছাড়া ওই পিরামিডটি একটি গভীর খাদের ভেতরে অবস্থিত। তাতে একসময় পানি ছিল বলে বিশ্বাস করা হয়। তাহলে কী এলিয়েনরা পানির নিচে এই পিরামিড তৈরি করেছিল? না, আসলে এটি পানির স্রোত ও বাতাসের ধাক্কায় তৈরি একটি প্রাকৃতিক পাথুরে কাঠামো। তা দেখে উৎসাহিত হওয়ার তেমন কিছু নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com