সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে মিরাজ জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে আরটিপিসিআর ল্যাব বসানোর অনুমোদন ৭ প্রতিষ্ঠানকে
ভুয়া দুই চিকিৎসককে জরিমানা

ভুয়া দুই চিকিৎসককে জরিমানা

ফরিদপুর প্রতিনিধি: চিকিৎসাশাস্ত্রে কোনো ডিগ্রি না থাকলেও তাঁরা রোগী দেখছিলেন। রোগীকে ওষুধপথ্য লিখে দিচ্ছিলেন। ওই চিকিৎসালয়ে পৌঁছে এমন দৃশ্যই দেখতে পান ভ্রাম্যমাণ আদালত। তবে কোনো সিলমোহর ও ঠিকানা ছাড়া চালাকি করে সাদা কাগজে ওষুধের নাম লেখার কারণে শুধু জরিমানা আদায় করে তাঁদের ছেড়ে দিতে বাধ্য হলেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে ফরিদপুর শহরের টেপাখোলা এলাকায় উরবি মেডিকেল হল নামের একটি চিকিৎসালয়ে এ অভিযান চালানো হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত দুই ভুয়া চিকিৎসককে আটক করে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছেন। এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী হাকিম ও ফরিদপুর সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. পারভেজ মল্লিক।

ওই দুই ভুয়া চিকিৎসক হলেন ফরিদপুর শহরের কমলাপুর মহল্লার বাসিন্দা মো. খাইরুজ্জামান মোল্লা ওরফে মামুন (৪৩) ও টেপাখোলা মহল্লার বাসিন্দা সত্যরঞ্জন বিশ্বাস (৬৬)।

র‍্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে টেপাখোলা এলাকার উরবি মেডিকেল হলে অভিযান চালানো হয়। চিকিৎসাশাস্ত্রে ওই দুই ব্যক্তির কোনো ডিগ্রি নেই। নিজেদের চিকিৎসক হিসেবে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ধরনের জটিল রোগের চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন তাঁরা। র‍্যাবের একটি দল দুই ভুয়া চিকিৎসককে আটক করে। পরে নির্বাহী হাকিম মো. পারভেজ মল্লিক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাঁদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে মোট ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

নির্বাহী হাকিম পারভেজ মল্লিক প্রথম আলোকে বলেন, ২০০৯ সালের ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৫২ ধারা মোতাবেক প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে মোট ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। শুধু জরিমানা করে ছেড়ে দেওয়া হলো কেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, রোগীকে সাদা কাগজে ওষুধের নাম লিখে দিচ্ছিলেন তাঁরা। রোগীর ব্যবস্থাপত্রে চিকিৎসকের নাম ও ডিগ্রির বিষয়ে কোনো তথ্য ছিল না। কোনো সিলও ছিল না। প্রমাণ করা কঠিন হতো বলে তাঁদের গ্রেপ্তার করা যায়নি। তাঁদের মৌখিকভাবে সতর্ক ও জরিমানা করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com