ভাস্কর্য পতাকা একাত্তর

ভাস্কর্য পতাকা একাত্তর

ভাস্কর্য পতাকা একাত্তর
ভাস্কর্য পতাকা একাত্তর

শিক্ষাঙ্গন ডেস্কঃ মুষ্টিবদ্ধ ছয়টি হাতের চারটি ধরে রেখেছে পতাকাদণ্ড। সেটির মাথায় যে পতাকাটি উড়ছে তা মুক্তিযুদ্ধের সময়কার; বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত ঐতিহাসিক পতাকা। তবে রংহীন। এটিই পতাকা একাত্তর ভাস্কর্য।

ভাস্কর্যটি মুন্সিগঞ্জ শহরের দক্ষিণ কোটগাঁও এলাকার লিচুতলায়। ২ মার্চ জাতীয় পতাকা দিবস উদ্‌যাপনের দিনটিতেই উদ্বোধন করা হয়েছে এটি। উদ্বোধনের দিন নানা কর্মসূচি পালন করে মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসন। সব মুক্তিযোদ্ধা, বিশিষ্টজন ও সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।

৫ মার্চ বিকেল বেলাটাও ছিল রৌদ্রোজ্জ্বল। সেদিন পড়ন্ত বিকেলে ভাস্কর্যের সামনে গিয়ে দেখা মিলল কয়েকজন দর্শনার্থীর। আগ্রহ নিয়ে নতুন ভাস্কর্য দেখতে এসেছেন তাঁরা। ভাস্কর্যের সামনের খালি মাঠে পথশিশুরা খেলা করছিল। পথচলতি মানুষের আগ্রহের বিষয় নতুন এই ভাস্কর্য, তাই চলার পথে ইতিউতি করছিলেন। ভাস্কর্যের দক্ষিণ ও পশ্চিম পাশে চলে গেছে প্রশস্ত দুটি রাস্তা। দক্ষিণ পাশে মুন্সিগঞ্জ জেলা আদালত, উত্তরে নির্মাণাধীন প্রবীণ পার্ক।

ভাস্কর্য নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছিল গত বছর। নকশা করেছেন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ঘাটশীলার ভাস্কর ইমরান হোসেন। জেলা প্রশাসকের উদ্যোগে স্থানীয় বিশিষ্টজন ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আর্থিক সহযোগিতা করেছে। ইমরান হোসেন জানালেন পেছনের কথা, ‘গত বছর ডিসেম্বর মাসে কাজ শুরু হয়। প্রথমে পুরান ঢাকার চকবাজারে ভাস্কর্যের ছাঁচগুলো তৈরির কাজ শুরু হয়। দুই মাস সেখানে মাটিতে নকশার কাজ করা হয়। পরে প্লাস্টারের মাধ্যমে ওই জায়গায় ছাঁচ নির্মাণ করা হয়। ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে ছাঁচ মুন্সিগঞ্জে এনে ঢালাইয়ের কাজ করি। যেহেতু দুই মার্চ উদ্বোধন করার কথা ছিল, তাই দিনরাত কাজ করতে হয়েছে।’

ভাস্কর্যে ছয়টি হাত নির্মাণের ব্যাপারে ইমরান বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির মুক্তির জন্য যে ছয় দফা দাবি উত্থাপন করেছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সনদ হিসেবে সেই ছয় দফাকেও এই পতাকা ভাস্কর্যের সঙ্গে তুলে ধরা হয়েছে। ছয়টি হাত ছয় দফা দাবির একেকটি প্রতীক। আরেক ভাস্কর রূপম রায় বললেন, ‘আমরা একুশে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাই, বিজয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবসে স্মৃতিসৌধে ফুল দিতে যাই। তেমনি পতাকা দিবসে মুন্সিগঞ্জের মানুষ এ ভাস্কর্যে এসে পতাকা দিবস পালন করতে পারবেন।’

ভাস্কর্যের নামকরণ করেছেন ঢাকা কলেজের শিক্ষক আলমগীর টুলু, সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন মোহাম্মদ জিয়াউল হক। মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও তরুণদের মধ্যে দেশাত্মবোধ জাগিয়ে তুলতেই পতাকা ভাস্কর্য নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়।’

তথ্যবিচিত্রা

পতাকা

*  ডেনমার্কের পতাকা বিশ্বের সবচেয়ে পুরোনো। ১২১৯ সাল থেকে দেশটিতে এই পতাকা ওড়ানো হচ্ছে।

*   চাইলে যে কেউ ডেনমার্কে পতাকা পোড়াতে পারেন, তবে সেটা নিজ দেশের পতাকা হতে হয়। বিদেশি পতাকা পোড়ানো আইনগতভাবে নিষিদ্ধ।

*   ফিলিপাইনের পতাকায় লাল ও নীলের দুটি চতুর্ভুজ আছে। যুদ্ধের সময় লাল অংশটি ওপরের দিকে ওড়ানো হয়, আর শান্তিকালীন সময়ে নিচের দিকে।

*   চাঁদের বুকে ওড়ানো অ্যাপোলো ১১ নভোযানের অভিযাত্রীদের মার্কিন পতাকার দাম ছিল মাত্র সাড়ে ৫ মার্কিন ডলার।

*   ১৯৩৬ সালের আগ পর্যন্ত হাইতি ও লিচটেনস্টাইনের পতাকা হুবহু একই ছিল। সে বছর অলিম্পিকে অংশ নিলে প্রথম দুই দেশের পতাকা যে একরকম, তা নজরে আসে।

*   মোজাম্বিকের পতাকায় একটি একে-৪৭ অস্ত্রের ছবি আছে!

*   পতাকা নিয়ে পড়াশোনাকে ইংরেজিতে ভেক্সিলোলোজি বলা হয়। লাতিন ভেক্সিলাম শব্দ থেকে এই শব্দের উৎপত্তি।

*   ১৯৭৭ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত লিবিয়ার পতাকার রং ছিল পুরোটাই সবুজ।

*   ভ্যাটিকান ও সুইজারল্যান্ডের পতাকা বর্গাকৃতির।

*   নরওয়ের পতাকাকে একটু কাটাছেঁড়া করলে ইন্দোনেশিয়া, পোল্যান্ড, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস ও থাইল্যান্ডের পতাকা পাওয়া যায়।

*   একমাত্র নেপালের পতাকা সমভূজাকৃতির নয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com