সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
বেহাল সড়কে চরম ভোগান্তি

বেহাল সড়কে চরম ভোগান্তি

দীর্ঘদিন প্রয়োজনীয় সংস্কার না হওয়ায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে হরষপুর-মির্জাপুর সড়কের অবস্থা বেহাল হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় সড়কটি এখন ওই এলাকার মানুষের কাছে মরণফাঁদ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। প্রায়ই দুর্ঘটনার কারণে এই সড়কে চলাচলরত যানবাহনের যন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে। আহত হচ্ছেন সাধারণ যাত্রীরা।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন এই সড়ক হয়ে বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর ও হরষপুরপুর ইউনিয়নের লোকজনসহ হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ চলাচল করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সড়কটির ছয় কিলোমিটার অংশ সংস্কারের জন্য গত ফেব্রুয়ারিতে দরপত্র (টেন্ডার) আহ্বান করা হয়। প্রায় চার কোটি টাকায় সংস্কার কাজ পায় চট্টগ্রামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স রিপন ট্রেডার্স ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মেসার্স পিন্টু কনস্ট্রাকশন। বর্তমানে সড়কের সংস্কার কাজ পরিচালনা করছে মেসার্স পিন্টু কনস্ট্রাকশনের মালিক মো. আতাউর রহমান পিন্টু। গত মার্চ মাসে কাজটির ওয়ার্ক অর্ডার (অনুমতিপত্র) পায় প্রতিষ্ঠানটি। এর পর গত মাসে ছয় কিলোমিটার সড়কের মাত্র আড়াই কিলোমিটার কাজ করেন ঠিকাদার।

গত দুই মাস ধরে সংস্কার কাজ বন্ধ থাকায় সড়কটি খানাখন্দে ভরে গেছে। বর্তমানে সড়কটির পাইকপাড়া, বাগদিয়া, পাঁচগাও, সোনামুড়া এলাকার অবস্থা খুবই নাজুক। সড়কটির মাঝখানে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় যানবাহনের চাকা গর্তে আটকে যাচ্ছে। গর্তে পড়ে নষ্ট হচ্ছে যানবাহনের গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ। পাশাপাশি যাত্রীরা পড়ছেন চরম ভোগান্তিতে। সামান্য বৃষ্টি হলেই কাদায় সয়লাব হয়ে যায় পুরো সড়ক। বৃষ্টির দিনে প্রায়ই সড়কটিতে চলাচলরত ইজিবাইক উল্টে গিয়ে যাত্রীরা আহত হন।

এই সড়কের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক মোস্তাক আহমেদ সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সড়কটির অবস্থা খুবই খারাপ। প্রতিদিনই সড়কে ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে। ভাঙাচোরা জায়গায় যাত্রী নামিয়ে ধাক্কা দিয়ে অটোরিকশা পার করতে হচ্ছে। এতে যানবাহনের মূল্যবান যন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে। দুর্ঘটনার কবলে পড়ে যাত্রীরা আহত হচ্ছেন। তিনি দ্রুত সড়কটির সংস্কার কাজ শেষ করে যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘব করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান।

এই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের নিদারাবাদ গ্রামের ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, এই সড়কের অবস্থা খুব খারাপ। সরকার রাস্তাটি সংস্কারের জন্য টেন্ডার দিলেও গত দুই মাস ধরে ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। ভাঙাচোরা সড়ক দিয়ে চলাচল করতে আমাদের খুবই কষ্ট হচ্ছে। সড়কের মাঝখানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই ওইসব গর্তে পানি জমে যায়। এত বাড়ছে দুর্ঘটনারশিকার হচ্ছন সাধারণ যাত্রীরা।

হরষপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান সাংবাদিকদের জানান, সড়কটির অবস্থা অবর্ণনীয়। বর্তমানে যান চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী। তিনি সড়কটির দ্রুত সংস্কার করার দাবি জানান।

হরষপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সারোয়ার রহমান ভূঁইয়া সড়কটির ভগ্নদশার কথা স্বীকার করে বলেন, সড়কে প্রতিদিনই দুর্ঘটনা ঘটছে। এতে জনগণ খুবই কষ্ট করছে। উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভায় বেশ কয়েকবার সড়কটির সংস্কার নিয়ে কথা বলেছি। কিন্তু কোনও লাভ হয়নি। বিজয়নগর উপজেলা প্রকৌশলী মো. আনিসুর রহমান ভূঁইয়া সাংবাদিকদের জানান, ফেব্রুয়ারি মাসে সড়কটি সংস্কারের জন্য টেন্ডার হয়। চট্টগ্রামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স দিয়ে কাজটি পায় ঠিকাদার আতাউর রহমান পিন্টু। প্রায় ছয় কিলোমিটার সড়কটির সংস্কারের জন্য ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে চার কোটি টাকা। গত ছয় মাসে সড়কটির মাত্র আড়াই কিলোমটির কাজ হয়েছে। এখনও সড়কটির আড়াই কিলোমিটার মেকাডমসহ কার্পেটিং এবং ২৭০ মিটার সিসি ঢালাইয়ের কাজ বাকি রয়েছে। তিনি বলেন, গত ২ মাস ধরে ঠিকাদার সংস্কার কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। আগামী অক্টোবর মাসের মধ্যে এর সংস্কার কাজ শেষ করার কথা ছিল। কিন্তু ঠিকাদার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজটি শেষ করতে পারবেন বলে মনে হয় না।

তিনি আরো বলেন, জনগনের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে ঠিকাদারকে দ্রুত সংস্কার কাজ শুরু করার জন্য কয়েকবার বলেছি। তিনি অর্থনৈতিক সংকটের কথা বলে কাজ নিয়ে সময়ক্ষেপণ করছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ.এইচ. ইরফান উদ্দিন আহম্মেদ সড়কটির বেহাল দশার কথা স্বীকার করে বলেন, গত দুই মাস ধরে সড়কের সংস্কার কাজ বন্ধ রয়েছে। ঠিকাদারকে দ্রুত সংস্কার কাজ শুরু করার কথা বলেছি। এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গেও সড়কটির সংস্কার কাজ নিয়ে কয়েক দফা কথা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদার আতাউর রহমান পিন্টু বলেন, আমি মার্চ মাসে কাজের কার্যাদেশ পেয়ে কাজ শুরু করেছি। ইতোমধ্যে ছয় কিলোমিটার রাস্তার প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার কাজ করেছি। কার্পেটিং করার মেশিনের অভাবে বর্তমানে সংস্কার কাজ বন্ধ আছে। আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে কাজটি পুনরায় শুরু করতে পারবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com