বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার দাবি করলেন হানিফ

বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার দাবি করলেন হানিফ

অনলাইন ডেস্ক: শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময়ের নানা ঘটনায় গণমাধ্যমের ভূমিকা বিষয়ে সাংবা‌দিকদের সমা‌লোচনা ক‌রে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও দলটির অন্যতম মুখপাত্র মাহবুব উল আলাম হানিফ বলেছেন: সাংবাদিকতার নামে এমন হলুদ সাংবাদিকতা পৃথিবীর মধ্যে কোথাও আছে কিনা আমার সন্দেহ আছে। বিএনপির নানা কর্মকাণ্ডের সমালোচনার পাশাপাশি বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার দাবি করেছেন তিনি।

 

সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

 

হানিফ বলেন: বিএনপি জামাতের আন্দোলন করার সামর্থ্য নেই, তাই তারা কোমলমতি শিশুদের ওপর ভর করেছিল। আর এই শিশুদের নাম করে ওই দিন আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা করেছিলো। তারপরও অনেক মিডিয়ায় সরকারের বিরুদ্ধে লেখা শুরু করে, কেন? সাংবাদিকতার নামে এমন হলুদ সাংবাদিকতা পৃথিবীর মধ্যে আছে কিনা আমার সন্দেহ আছে।

 

সেই সঙ্গে সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান আওয়ামী লীগের এ নেতা।  তিনি বলেন: কেউ আইনের উর্ধ্বে না। যেই জড়িত থাকুক না কেন তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

 

আওয়ামী লীগ নয় বিএনপিকে নিয়ে দেশবাসী আতঙ্কে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন: বিএনপিকে নিয়ে আওয়ামী লীগ আতঙ্কে ভোগে, আমরা জানি আমাদের দেশে পাগলা কুকুর কামড় দিলে জলাতঙ্ক হয়। জলাতঙ্কে সবাই ভয় পায়। বিএনপি যদি নিজেদের পাগলা কুকুরের পর্যায়ে ভাবে, তাহলে শুধু আওয়ামী লীগ নয়, বিএনপিকে নিয়ে দেশবাসী আতঙ্কে থাকবে।

 

তিনি আরও যোগ করেন, বিএনপির কোনো স্বপ্নই বাস্তবায়ন হচ্ছে না। তাদের কোনো ষড়যন্ত্রই সফল হচ্ছে না দেখে দলটি নেতারা হতাশ হয়ে নানা ধরণের অপ্রাসঙ্গিক কথা বলে।

 

‘শেষ সময় এসে সব সরকারই স্বৈরাচারী হয়, আওয়ামী লীগ এ অবস্থায় আছে’- বিএনপি নেতাদের এ বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন: আপনারা আন্দোলনে নামে মানুষকে আগুনে পুড়ে হত্যা করবেন। গাড়ি-ঘোড়া জ্বালিয়ে দিবেন। সরকারি- বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করবেন। সরকার আইনগত ব্যবস্থা নিলে বলেন স্বৈরাচারি আচরণ শুরু করেছে। আপনারা গণতন্ত্রের দোহাই দেন। আপনাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা খুনি জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য প্রায় ১২শ থেকে ১৪ মুক্তিযোদ্ধাকে বিনা বিচারে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করেছিলো।

 

জিয়াউর রহমান কখনও মুক্তিযুদ্ধা ছিলো না উল্লেখ করে হানিফ বলেন, জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের অংশগ্রহণ করেছে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন অবস্থায় পাকিস্তানের ক্যান্টমেন্টে জিয়ার স্ত্রী ও পুত্র আরাম আয়েশে ছিলো। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশে পাকিস্তানের ভাবধারায় চালু করেছিলো।

 

‘৭৫ এ বঙ্গবন্ধু হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে ছিলো জিয়াউর রহমান। ৭৫ এ বঙ্গবন্ধু হত্যার সময় জিয়াউর রহমানের কী ভূমিকা ছিলা এটা এটা জাতির কাছে উন্মোচন করা হোক। তার মরণোত্তর বিচার করা হোক।’

 

বঙ্গবন্ধু ফাউ‌ন্ডেশন এর সভাপ‌তি বাহাদুর বেপারীর সভাপ‌তি‌ত্বে আ‌লোচনা সভায় আ‌রো উপ‌স্থিত ছি‌লেন বঙ্গবন্ধু ফাউ‌ন্ডেশনের সাধারন সম্পাদক সাইফুর রহমান তপন, জগনাথ বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের সহকারী অধ্যাপক মহিউ‌দ্দিন মা‌হিসহ অনেকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com