বাহুবলে জেএসসি পরীক্ষা দিতে পারেনি শিক্ষার্থী: শিক্ষিকা বরখাস্ত

বাহুবলে জেএসসি পরীক্ষা দিতে পারেনি শিক্ষার্থী: শিক্ষিকা বরখাস্ত

বাহুবলে জেএসসি পরীক্ষা দিতে পারেনি শিক্ষার্থী: শিক্ষিকা বরখাস্ত
বাহুবলে জেএসসি পরীক্ষা দিতে পারেনি শিক্ষার্থী: শিক্ষিকা বরখাস্ত

বাহুবল (হবিগঞ্জ): হবিগঞ্জের বাহুবলে এক স্কুল শিক্ষিকার দায়িত্বে অবহেলা ও ভূলের কারনে চলতি জেএসসি পরীক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়েছে এক শিক্ষার্থী।

অভিযুক্ত শিক্ষিকাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি।

জানা যায়, বাহুবল উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের মীরের পাড়া গ্রামের মতিন মিয়ার কন্যা লিপি আক্তার পুটিজুরী শরৎচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে চলতি জেএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

সরকারী বিধি মোতাবেক রেজিষ্টেশন ফি ও সকল প্রকার কাগজ- পত্র ফিলাপ করে জেএসসি পরীক্ষার প্রস্ততি নিয়েছিল, কিন্ত পরীক্ষার জন্য প্রস্তত সকল কাগজ পত্রগুলো নিজ অবহেলা ও গাফিলাতির কারনে প্রতিষ্ঠানের দপ্তরে জমা দেননি ক্লাস শিক্ষিকা রুবী রানী দাস। যার কারনে চলতি জেএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করা হল না লিপি আক্তারের। তার শিক্ষা জীবন থেকে ঝড়ে গেল একটি বছর।

এ বিষয় নিয়ে আজ রোববার বেলা ১১ টায় স্কুল প্রাঙ্গনে ম্যানেজিং কমিটির এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় অভিযুক্ত ওই শিক্ষিকা নিজের দায়িত্বে অপহেলার কথা স্বীকার করলে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন।

এ বিষয়ে ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক কানু প্রিয় চক্রবর্তী বলেন, ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক অভিযুক্ত ওই শিক্ষিকাকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে, এবং পরীক্ষা বঞ্চিত মেয়েটির এক বছরের শিক্ষা বাবত সকল খরচ ক্ষতিপূরণ হিসেবে দিতে চাইছে।

তবে পরীক্ষা বঞ্চিত মেয়েটির পরিবারের দাবী, খরচ বাবত টাকা নিয়ে কি হবে, যার শিক্ষা জীবন থেকে একটি বছর ঝড়ে গেল তার ক্ষতিপূরণ কে দিবে?

এ বিষয়ে পুটিজুরী শরৎচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শাহ আব্দুল আহাদ বলেন, যে শিক্ষিকার দায়িত্বে অবহেলা ও গাফিলাতির কারনে একজন শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবনে ঝুকি নেমে আসে, তাকে সাময়িক নয়, প্রয়োজনে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করার পরীকল্পনা আমাদের রয়েছে, তারপরও স্কুলে শিক্ষার মানুন্নয়নে ব্যাঘাত ঘটতে দিবনা।

এছাড়া অভিযুক্ত শিক্ষিকা রুবী রানী দাস’র বিরুদ্ধে স্কুলে শিক্ষার্থীদের সাথে বাজে ব্যাবহারেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে, এমন কি স্কুলের অফিসে বসে শিক্ষা ও শিক্ষার্থীদের কথা মাথায় না নিয়ে মোবাইলে কথা বলায় ব্যাস্ত থাকেন বলেন জানা গেছে।

উল্লেখ্য শিক্ষিকা রুবী রানী দাস অত্র স্কুলের সহকারী শিক্ষক, দোলন চন্দ্র দাস,র স্ত্রী। এ বিষয় নিয়ে এলাকার অভিভাবকদের মাঝে ব্যাপক আলোচনা- সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com