সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
বাধা দিলেই খুন করত শুক্কুর আলী-দিদার

বাধা দিলেই খুন করত শুক্কুর আলী-দিদার

বাড়ি বাড়ি ডাকাতি। বাধা দিলে খুন। চার বছর হাজতবাসের পর ছাড়া পেয়ে আবারও পলাতক। খুন ও ডাকাতি মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি লাল পতাকা দলের নেতা ও তার প্রধান সহকারীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জে ভূমি দখল, ত্রাস সৃষ্টি, মারামারি ও লুটপাটসহ নানা অভিযোগ রয়েছে শুক্কুর আলীর বিরুদ্ধে।

বুধবার (৫ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-৩-এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ।

আরিফ মহিউদ্দিন জানান, অর্ধশতাধিক বাড়িতে ডাকাতি করেছে শুক্কুর আলী ও তার সহযোগীরা। বাধা দিলেই করত খুন। ২০১১ সালে খালিয়াজুরি হত্যাকাণ্ডে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হলে পালিয়ে নারায়ণগঞ্জে বসবাস শুরু করে। সেখানেও গড়ে তোলে ডাকাত চক্র। মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে শুকুর আলীকে তার প্রধান সহকারীসহ গ্রেফতার করে র‍্যাব। এর আগেও গ্রেফতারের পর চার বছর হাজতবাস করে ছাড়া পেয়ে আবার আত্মগোপনে চলে যায় সে।

তিনি বলেন, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জের ত্রাস পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি লাল পতাকা ওরফে সর্বহারা চরমপন্থি দলের সদস্য এবং পেশাদার খুনি শুক্কুর আলী ও তার সহযোগী দিদার মিয়া।
শুক্কুর আলী জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে তার দল নেত্রকোনার খালিয়াজুরি থানার একটি বাড়ির দেয়াল ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে স্বর্ণালংকার, নগদ টাকাসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে। ডাকাতির ঘটনায় ভুক্তভোগী মনোরঞ্জন সরকারের ছেলে বাধা দিলে তাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে শুক্কুর আলী ও তার দল। গ্রেফতার অপর আসামি দিদার ওই হত্যাকাণ্ডে তার চাচা শুক্কুর আলীর প্রধান সহকারী হিসেবে ভূমিকা পালন করে। খুনসহ ডাকাতির ঘটনায় খালিয়াজুরি থানায় মামলা হয়।

শুক্কুর ও দিদার ওই মামলার অন্যতম প্রধান আসামি। বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে আদালত ২০১৯ সালে তাদের যাবজ্জীবন সাজা দেন। গ্রেফতার এড়াতে তারা এলাকা ত্যাগ করে এবং নারায়ণগঞ্জে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করে এবং মাছের ব্যবসা করে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত শুক্কুর আলীর বিরুদ্ধে তিনটি ডাকাতি ও একটি খুনের মামলা রয়েছে।

সূত্র : সময় টিভি

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com