সংবাদ শিরোনাম :
শায়েস্তাগঞ্জে রেল লাইনে ঝুঁকিপূর্ণ বাজার দুর্নীতিমুক্ত সেবা প্রদানের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর শীতার্থ মানুষের পাশে দাঁড়ালেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ প্রথম সংসদেই বাহুবলকে পৌরসভায় উন্নীত করণের দাবি তোলে ধরবো: মিলাদ গাজী এমপি শিক্ষার মান উন্নয়নে সরকার নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে: শেখ আফিল উদ্দিন এমপি বেনাপোল পদ্মবিল এখন দেশি-বিদেশি পাখির অভয়াশ্রম বেনাপোল পোর্ট থানার এসআই হাবিব জেলার শ্রেষ্ট পুলিশ অফিসার নির্বাচিত হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ডাকাত লিলু আটক যতদিন বেঁচে থাকবো আপনাদের সংঘটের সাথে থাকতে চাই: এম পি পীর মিসবা নির্যাতিত সেই পূর্ণিমা কিনলেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম
প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ কী নিয়ে জানতে চান ড. কামাল হোসেন

প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ কী নিয়ে জানতে চান ড. কামাল হোসেন

প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ কী নিয়ে জানতে চান ড. কামাল হোসেন
প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ কী নিয়ে জানতে চান ড. কামাল হোসেন

লোকালয় ডেস্ক : বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে আবারও সংলাপে বসার যে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন, তাতে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে কী নিয়ে এই সংলাপ তা জানতে চান গণফোরামের নেতা ড: কামাল হোসেন।

একটি প্রভাবশালী বহুজাতিক গণমাধ্যমের অনলাইন বাংলা সংস্করণকে দেয়া এক সাক্ষাত্‍কারে তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী সবাইকে ডাকবেন সংলাপে, একটু তো ইঙ্গিত থাকবে কী কী বিষয় নিয়ে এই সংলাপ। যদি সেটা আমাদের কাছে বিবেচনাযোগ্য হয়, তখন আমরা কমিটিতে সিদ্ধান্ত নেব এ ব্যাপারে।

প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সংলাপের আমন্ত্রণ এলে তাতে সাড়া দেবেন কীনা, এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, নীতিগতভাবে আমি একে একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ বলে বিবেচনা করবো। কিন্তু সেটা জানতে হবে কী প্রেক্ষাপটে এটার আয়োজন করা হচ্ছে, কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের রোববার জানান, গতকাল দলের এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই এই সংলাপের কথা বলেন। তিনি জানান, নির্বাচনের আগে যেসব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ হয়েছিল তাদের সঙ্গে আবারও সংলাপ হবে।

নির্বাচনের আগে ঐ সংলাপে অংশ নিয়েছিল বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, জাতীয় পার্টি, যুক্তফ্রন্ট সহ আরও বহু দল। ঐ সংলাপের সময়েই বিরোধী দলগুলো নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা ঘোষণা করে।

নির্বাচনে জয়লাভ করে সরকার গঠনের পর কেন এরকম একটি সংলাপের উদ্যোগ নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী?

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী চান সবাইকে নিয়ে দেশ পরিচালনা করতে। সেই লক্ষ্যেই তিনি কিন্তু ৭০টির বেশি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করেছিলেন নির্বাচনের আগে। তখন শুধু রাজনীতি নয়, দেশ গঠনের বিভিন্ন বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যে তাদের ভুলে যাননি, তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করার আগ্রহ যে তাঁর আছে, সেই বিষয়টাই এখানে পরিস্ফুটিত হয়েছে।

যদি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে যোগ দেন, সেখানে কী জানাবেন তাঁকে? এ প্রশ্নের উত্তরে ডঃ কামাল হোসেন বলেন, সেখানে অবশ্যই নির্বাচনের ব্যাপারে কথা হবে। -সংলাপের প্রস্তাব আসলে প্রথমে আমরা জানতে চাইবো যে কী বিষয় নিয়ে হবে। তারপর আমাদের কমিটির বৈঠক হবে। ওখানে বসে আমরা আমরা আলোচনা করে সুচিন্তিত উত্তর দেব।

ড: কামাল হোসেন বলেন, সংলাপে যোগ দেয়া বা না দেয়ার সিদ্ধান্তটি তারা প্রথম নিজ দল গণফোরাম থেকেই নেবেন।

বিরোধী জোট জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, নির্বাচনের আগের অবস্থার সঙ্গে এখনকার অবস্থার একটা পার্থক্য রয়েছে। কাজেই যে কোন প্রস্তাবের ব্যাপারে এখন নতুন করে চিন্তা করতে হবে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চেয়ে এখন তিনি গণফোরামকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন কীনা, এ প্রশ্নের জবাবে ডঃ কামাল হোসেন বলেন, এটা তো সবসময় দিতে হয়। নিজের পার্টিকে গুরুত্ব দিয়ে তার পর তো ঐক্যফ্রন্ট।

যদি বিএনপি এই সংলাপে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় তখন কী গণফোরাম সংলাপ যাবে? এর উত্তরে ডঃ কামাল হোসেন বলেন, এটা একদম স্পেকুলেট করা উচিত্‍ নয়। এটা যখন ঘটবে তখন আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com