নিজের গায়ে হলুদে স্বামীর সঙ্গে নাচলেন শবনম ফারিয়া

নিজের গায়ে হলুদে স্বামীর সঙ্গে নাচলেন শবনম ফারিয়া

নিজের গায়ে হলুদে স্বামীর সঙ্গে নাচলেন শবনম ফারিয়া
নিজের গায়ে হলুদে স্বামীর সঙ্গে নাচলেন শবনম ফারিয়া

বিনোদন ডেস্ক– দীর্ঘদিন ধরেই শোবিজ পাড়ায় মডেল-অভিনেত্রী শবনম ফারিয়ার বিয়ের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। গত বছর মাঝামাঝিতে নিজের বিয়ের খবর নিজেই জানান দেন ‘দেবী’খ্যাত এই অভিনেত্রী। সে সময় তিনি জানান, গোপনে নয়, খুব ধুমধাম করে বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন তিনি। আর নিজের বিয়েতে বেশ আনন্দও করবেন এই অভিনেত্রী। সঙ্গে নিজের বিয়ের খবরও দেন শবনম ফারিয়া।

তিনি জানান, তার বরের নাম হারুনুর রশীদ অপু। নতুন বছরের শুরুর দিকে তাদের বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ হবে।

এবার আসা যাক, ফারিয়া ও অপুর বিয়ের খবরে। গতকাল রাতে রাজধানী গুলশানের একটি পার্টি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয় শবনম ফারিয়ার গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান। ফারিয়ার গায়ে হলুদ এর সঙ্গে মেহেদী উৎসবও অনুষ্ঠিত হয়। হলুদে নেমেছিল তারার ঢল।

ফারিয়া ও তার স্বামীকে শুভেচ্ছা জানাতে হাজির হয়েছিলেন জয়া আহসান, কোনাল, টয়া, সাফা কবির, তৌসিফ মাহবুব, পারসা ইভানা, নাঈম, নাদিয়া, মিশু সাব্বির, বিজরি, রুনা খান, তিশা, নির্মাতা বান্নাহ, অনম বিশ্বাস, চয়নিকা চৌধুরী, মেহের আফরোজ শাওন।

আরও ছিলেন ইমতু রাতিশ, শরিফুল রাজ, সামিহা, ফারহানা নিশো, মৌসুমি নাগ, তানভীন সুইটি, ভাবনা, কণ্ঠশিল্পী তপু, মারিয়া নূর, তানিয়া আহমেদ, তাসনোভা তিশা, নির্মাতা ইমরাউল রাফাত, ইরফান সাজ্জাদ,শেহতাজ, জেনিসহ আরও অনেক তারকা।

নাচ, গান, আড্ডায় মুখোর হয়ে ওঠে ফারিয়ার গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান। তারকারা প্রত্যেকেই ফারিয়ার নতুন জীবনে শুভেচ্ছা জানান। হলুদে ফারিয়া ও তার স্বামী হারুন অর রশিদ অপু ম্যাচিং করে পরেছিলেন ‘সি গ্রিন রঙ’র শাড়ী ও পাঞ্জবী। টিকলি ও ভারী গহনায় সেজেছিলেন ফারিয়া। এসময় স্বামীর সঙ্গে একটি গানে নাচতেও দেখা গেছে ফারিয়াকে।

এর আগে পালকীতে বসে গানের তালে নাচতে নাচতে হলুদ অনুষ্ঠানে আসেন ফারিয়া। আর বর অপু আসেন হলুদ রঙের ভেসপায় চড়ে।

শবনম ফারিয়ার স্বামী হারুন অর রশিদ অপু পেশায় একটি বেসরকারি বিপণন সংস্থার জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক। বিয়েতে অপু এবং ফারিয়ার দুই পরিবারের পূর্ণ সমর্থন ছিল। তারা পরস্পরকে ভীষণ ভাবে পছন্দ করেন। তাদের এই ভালোবাসাকে প্রাধান্য দিয়েছে তাদের দুই পরিবার।

শবনম ফারিয়া বলেন, দু-বছর আগে অপুর সঙ্গে বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ওই সময় অপুর বাবা মারা যাওয়ার কারণে পিছিয়ে যায় বিয়ে। এক বছরের মাথায় আবার আমার বাবা মারা যান। এ কারণে দুই বছর পিছিয়ে যায় আমাদের বিয়ে।

সবকিছু গুছিয়ে উঠে এখন বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার আয়োজন করা হয়েছে। ফারিয়া জানান, পহেলা ফেব্রুয়ারি মিরপুর ক্যান্ট. এলাকার একটি কনভেশন সেন্টারে তার বিয়ের সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে সবাইকে তিনি আমন্ত্রণ করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com