নিউইয়র্কে বাড়ি ক্রেতাদের বিমার অর্থ যায় চিত্তবিনোদনে

নিউইয়র্কে বাড়ি ক্রেতাদের বিমার অর্থ যায় চিত্তবিনোদনে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ নিউইয়র্কে বাড়ির মালিকানার বিপরীতে করা বিমার পরিমাণ কানেকটিকাট, ম্যাসাচুসেটস ও নিউজার্সির চেয়ে বেশি। এই বিমার অর্থের একটি অংশ ব্যয় হয় ক্রীড়া তথা চিত্তবিনোদনমূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিবর্গের ব্যয়বহুল জীবনযাপনের খরচ জোগাতে। বিশেষত ক্রীড়াবিদদের ম্যানহাটনের জাঁকালো হোটেলে অবস্থানসহ তাদের ব্যয়ের বিরাট অংশ বাড়ির ক্রেতাদেরও বহন করতে হয় অনেকটা অজ্ঞাতেই। এ ধরনের প্রক্রিয়া নিষিদ্ধ করে একটি আইন সামনে এলেও এখন সিনেটে সংশোধনী প্রস্তাব পাস হওয়ায় তা কার্যকর হওয়াটা অনিশ্চিত।

নিউইয়র্কের বাড়ির মালিক ও সম্পত্তি ক্রেতারা অনেক ক্ষেত্রেই জানেনই না যে, তাদের করা বিমার অর্থ কোন প্রক্রিয়ায় চিত্তবিনোদনের মতো খাতে ব্যয় হচ্ছে। এই চিত্তবিনোদনের ব্যয় নির্বাহের জন্যই তাদের বিমার কিস্তি বাবদ বিস্তর অর্থ পরিশোধ করতে হয়। একে অনেকে প্রশাসনিক দুর্নীতির সঙ্গে তুলনা করছেন।

প্রথম সারির রিয়েল এস্টেট রোজ অ্যাসোসিয়েটসের মালিক অ্যাডাম আর. রোজ বলেন, উন্নয়নশীল দেশের রাষ্ট্র-প্রযোজিত দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের সঙ্গে এটি তুলনীয় হতে পারে। ক্রীড়াবিদদের ব্যয়বহুল হোটেলে অবস্থান ও আপ্যায়নের ব্যয়ের অংশ হিসেবে নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে বাড়ি ক্রয়ের বিমার কিস্তি পরিশোধের অর্থ বেড়ে যায়। অথচ সাধারণ নাগরিকদের সামর্থ্যের দিক বিবেচনা করে একে কমিয়ে আনার সুযোগ রয়েছে।
তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, নিউইয়র্ক নগরীতে কিংবা এর কাছাকাছি পাঁচ লাখ ডলারের কোনো বাড়ি কিনতে ২০ শতাংশ অর্থাৎ এক লাখ ডলার পরিশোধ করতে হয় নগদ। বাকি চার লাখ ডলারের মূল ও বিমার সুদসহ প্রতি মাসে প্রায় ২ হাজার ৭০০ ডলার ক্রেতাকে পরিশোধ করতে হয়। বাড়ির বিমার নামে ক্রেতাকে মূলত জামিনদার কিনতে হয়। আর ঋণদাতা ব্যাংক প্রকারান্তরে বনে যায় বাড়ির মালিক। রয়েছে আরও সংকট। নিজের জন্য বিমা কোম্পানি বাছাইয়ের কাজটিও আবার ক্রেতার ইচ্ছা-অনিচ্ছার ওপর নির্ভর করে না। ক্রেতাকে বিমা কোম্পানির বিষয়ে পরামর্শ ও সহযোগিতার জন্য দ্বারস্থ হতে হয় রিয়েল এস্টেট এজেন্ট কিংবা অ্যাটর্নির।
সম্পত্তির মালিকানার বিপরীতে উচ্চ হারে বিমার কিস্তি নিয়ে এই সংকটের বিষয়টি সরকারি কর্মকর্তাদেরও নজরে এসেছে। নয় মাস আগে নিউইয়র্কের সরকারি কর্মকর্তারা এ ধরনের ব্যয় পুরোপুরি নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব দেন। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এ বিষয়ে একটি আইন কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও তা অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কারণ আইনটির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের একটি শক্তিশালী মহল। এর সঙ্গে যোগ দিয়েছেন রাজ্য সিনেটের শক্তিশালী বিমা কমিটি। তারা আইনে সংশোধনী আনার চাপ দিচ্ছেন। এমনকি রাজ্য সিনেট নতুন আইনকে সংশোধন করার একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেন। কোনো বিতর্ক ছাড়াই দুই মিনিটের মধ্যে এ প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়।
অনেকেই বাড়ির অতিরিক্ত ও জটিল বিমাকে অযৌক্তিক হিসেবে মন্তব্য করেছেন। রিয়েল এস্টেট কোম্পানি ও পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান ‘মিলার স্যামুয়েল’র প্রধান নির্বাহী ও প্রেসিডেন্ট জোনাথন মিলার বলেন, ‘আবাসন শিল্প চিত্তবিনোদন ব্যয় বহন করতে গিয়ে বাঁচা-মরার প্রান্তসীমায় এসে দাঁড়িয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com