সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
নবীগঞ্জে গৃহবধূ হত্যার রহস্য উদঘাটন, স্বামী আটক

নবীগঞ্জে গৃহবধূ হত্যার রহস্য উদঘাটন, স্বামী আটক

স্টাফ রিপোর্টার : হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁও গ্রামে তহুরা বেগম নামে এক নারীকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় দায় স্বীকার আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন স্বামী জারু মিয়া। জুয়া খেলার জন্য টাকা না দেওয়ায় স্ত্রীকে হত্যা করেন তিনি। শনিবার সন্ধ্যায় হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জাকির হোসেনের আদালতে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ১৬৪ ধারায় রোমহর্ষক বর্ণনায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। অভিযুক্ত আসামি নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁও গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশ জানায়, শুক্রবার (১৮ নভেম্বর) সকালে নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁও গ্রামে স্বামীর বসতঘর থেকে তহুরা বেগমের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনার রহস্য উদঘাটনে তদন্ত শুরু করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় স্বামীকে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে দায় স্বীকার করেন। এ ঘটনায় জারু মিয়াকে আসামি করে তহুরা বেগমের আগের স্বামী জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে আল-আমিন বাদী মামলা করেন। আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, তহুরা প্রায় তিন যুগ আগে প্রথমে জাহাঙ্গীর মিয়ার সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন। কয়েক বছর পর বিচ্ছেদ হয়। পরে জারু মিয়াকে বিয়ে করেন। এরপর তাদের পরিবারে মঞ্জিল মিয়া ও রমজান আলী নামে দুই সন্তান জন্মগ্রহণ করে। জারু মিয়াও এর আগে দুই বিয়ে করেন। তিনি নিয়মিত জুয়া খেলতেন। প্রায় সময় জুয়ার টাকার জন্য তহুরাকে মারধর করতেন। এই ঘটনায় পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হয়। জুয়ার টাকা জোগাড় করতে না পেরে পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনা করে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় স্ত্রীর গলা কেটে হত্যা করেন। এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ডালিম আহমেদ বাংলাদেশ জার্নালকে জানান, স্বামী জারু মিয়া প্রথমে ঘটনাটি ভিন্নখাতে নিতে তার স্ত্রীকে অন্য কেউ হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ করেন। ভিন্ন ভিন্ন সময় তার কথার পরিবর্তন হলে সন্দেহভাজন হিসেবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেয় পুলিশ । জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার দায় স্বীকার করেন জারু মিয়া। পরে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি শেষে রাতেই তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com